ফিরে দেখা ২০১৪ : আলোচনায় চসিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ৩০ ডিসেম্বর , ২০১৪ সময় ১০:৪৭ অপরাহ্ণ

সরকারি-স্কুলে-ভর্তিযুদ্ধ২০১৪ সাল জুড়েই আলোচনায় ছিল চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) শিক্ষা বিভাগ। সংস্থাটির শিক্ষা বিভাগের কর্মকর্তাদের নিয়মিত মনিটরিংয়ের মাধ্যমে চসিকের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো এবছর ভাল ফলাফল ও শিক্ষার মান বৃদ্ধি করে আলোচনায় আসে। বছর জুড়ে চসিকের প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা অধ্যাপক মুহম্মদ শহীদুল্লাহ নিজে কোন না কোন প্রতিষ্ঠানে সারপ্রাইজ ভিজিট করেন। একই সাথে নির্ধারিত তারিখ দিয়ে প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে গিয়ে অভিভাবক সমাবেশে অভিভাবক-শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মাঝে একটি সেতু বন্ধনও রচনার চেষ্টা করে এর সুফল পান।

সরকারি স্কুলে আসন সংকট আর বেসরকারি স্কুলে শিক্ষা বাণিজ্যের এ সময়ে মধ্যবিত্ত ও নিম্ন-মধ্যবিত্ত অভিভাবকদের শেষ ভরসাস্থল হয়ে উঠেছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) পরিচালিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো।
এদিকে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে শিক্ষাকে ‘পণ্য’ হিসেবে গণ্য করা হলে চসিক পরিচালিত ৪৬টি স্কুলে তা এখনও ‘সেবা’। অনেক কম খরচে প্রায় ৭০হাজার শিক্ষার্থী পড়ালেখা করছে এসব স্কুলগুলোতে। পড়াশোনার পাশাপাশি অন্যান্য কার্যক্রম বিতর্ক, খেলাধুলা, রোভার স্কাউটসহ বিভিন্ন ধর্মীয় উৎসব পালন করা হয় এসব স্কুলে। রয়েছে দরিদ্র ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের জন্য বৃত্তির ব্যবস্থা।
চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে বাংলা নববর্ষ
গত বছর চসিক পরিচালিত ৪৬টি স্কুলে প্রায় ১৯ হাজার শিক্ষার্থী ভর্তিযুদ্ধে অবতীর্ণ হয়। এর মধ্যে উত্তীর্ণ হয় ১৫ হাজার ৭শ’ শিক্ষার্থী। এবারও সব সংখ্যক আসনের জন্য চসিক পরিচালিত ৪৬টি স্কুলে প্রায় ২৫ হাজার শিক্ষার্থী ভর্তিযুদ্ধে অবতীর্ণ হয়। চসিকের স্কুলে ভর্তি ফি ১ হাজার ৮শ’ টাকা। চসিকের স্কুল সম্পর্কে কাপাসগোলা সিটি করপোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের এক অভিভাবক বলেন, সরকারি স্কুলে সুযোগ না পাওয়ায় আমার সন্তানকে এখানে ভর্তি করিয়েছি। শিক্ষার্থী বেশী হলেও এখানকার শিক্ষার মান ভাল। তাছাড়া খরচও কম।’

জানা গেছে, এসএসসি ও জেএসসি পরীক্ষার ফলাফলে ঈর্ষনীয় সাফল্য পেয়ে আসছে চসিক পরিচালিত স্কুলগুলো। এর ধারাবাহিকতায় ২০১৪সালের স্কুলগুলোর এসএসসি পরীক্ষার পাসের হার ছিল ৯৬.৬৯। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৭৫১ জন। অনেক সীমাবদ্ধতার মাঝেও ধারাবাহিক ভাল ফলাফল করায় চসিকের স্কুলগুলো এখন অভিভাবকদের পছন্দের তালিকায় চলে এসেছে।
ccc edu 7
চসিকের যেসব স্কুল অভিভাবকদের পছন্দের তালিকার শীর্ষে রয়েছে: কাপাসগোলা সিটি কর্পোরেশন উচ্চ বিদ্যালয়, কুসুমকুমারী সিটি কর্পোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, কদম মোবারক সিটি কর্পোরেশন বালক উচ্চ বিদ্যালয়, পাঠানটুলী সিটি কর্পোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, ফতেয়াবাদ সিটি কর্পোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, পতেঙ্গা সিটি কর্পোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, পূর্ব মাদার বাড়ী সিটি কর্পোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় এবং বাগমনিরাম আব্দুর রশিদ সিটি কর্পোরেশন বালক উচ্চ বিদ্যালয় ।

চসিকের শিক্ষা অফিস থেকে জানা যায়, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনে মোট ৪৬টি স্কুল ও ১৫টি কলেজ রয়েছে। শিক্ষক রয়েছে মোট ১৬শ ৭৫জন। এদের মধ্যে অস্থায়ী শিক্ষক রয়েছে ১২০ থেকে ১৫০ জন। এছাড়া শিগগিরই আরো শিক্ষক নিয়োগ দিচ্ছে কর্তৃপক্ষ। মোট শিক্ষার্থী রয়েছে প্রায় ৭০ হাজার। শিক্ষার বাজেট প্রায় ২৯ কোটি।
ccc
২০১৪ সালের প্রাথমিক সমাপনী (পিএসসি) পরীক্ষায় চসিক স্কুল সমূহের গড় পাশের হার ৯৮.৮৫ এবং চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের অধীনে ২০১৪ সালের জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষায় চসিক স্কুল সমূহের গড় পাসের হার ৯৩.১২। এবার চসিক পরিচালিত স্কুল এর ১০৪৩ জন শিক্ষার্থী পিএসসি এবং ৬,২৪৭ জন শিক্ষার্থী জেএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়া। যার মধ্যে ১০৩১ এবং ৫৮২৭ জন শিক্ষার্থী পাশ করেছে।

চসিকের প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা অধ্যাপক মুহম্মদ শহীদুল্লাহ বলেন, ‘ধারাবাহিকভাবে ভাল ফলাফল করায় বর্তমানে অভিভাবকরা চসিকের স্কুলগুলো বেছে নিচ্ছে।’