বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে ধারণা দিতে স্কুল ভিত্তিক কর্মসূচীর বিকল্প নেই

প্রকাশ:| শনিবার, ২২ নভেম্বর , ২০১৪ সময় ১১:৫০ অপরাহ্ণ

কয়ারে পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠান
আমরা বিভিন্ন বক্তব্যে ‘তৃণমূল’ শব্দটি ব্যবহার করি, মানুষের হাতে তালির জন্য বিভিন্ন কথা বলে থাকি, কিন্তু তৃণমূলে আমাদের কাজ নেই। আমরা প্রত্যেকেই স্ব স্ব এলাকায় প্রাথমিক বিদ্যালয়, কিন্ডারগার্টেন, উচ্চ বিদ্যালয়ে গিয়ে স্কুল ভিত্তিক কর্মসূচী গ্রহণ করে ছোট ছেলেমেয়েদেরকে নিয়ে বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে ধারণা দিতে স্কুল ভিত্তিক কর্মসূচীর বিকল্প নেই। চট্টল ইয়ূথ কয়ার ২০১৪ সাল থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত স্কুল ভিত্তিক কর্মসূচী বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সকলে সহযোগিতা করা উচিত। ২২ নভেম্বর সকাল ১০টায় চট্টগ্রাম নগরীর জামালখানস্থ এ.জি.চার্চ স্কুলে অনুষ্ঠিতব্য পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে নাজমিম সরওয়ার কাবেরী উপরোক্ত কথা বলেন। অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন এ.জি. চার্চের ফাদার রেভা আলফ্রেড এ অধিকারী। বঙ্গবন্ধু জন্মশত বার্ষিকী শিক্ষা পরিষদের চেয়ারম্যান ও স্কুল অধ্যক্ষা জেসিন্তা অধিকারীর সভাপতিত্বে প্রধান বক্তা ছিলেন বিশিষ্ট আবৃত্তি শিল্পী সায়রা বানু রোশনী। অরুণ বণিকের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক সংগঠক ডা. বিধান মিত্র, সুরঞ্জিত দত্ত সৈকত, কয়ার কর্মকর্তা সুজিত ভট্টাচার্য্য দোলন, সাইফুর রহমান, আবদুল জলিল, নুপুর কান্তি বিশ্বাস প্রমুখ। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সালমা জাহান মিলি। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সুজিত চৌধুরী মিন্টু, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব প্রণবরাজ বড়–য়া, ডা. রূপক কান্তি নাথ, এম লোকমান হাকিম। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সঙ্গীত শিল্পী অচিন্ত দাশ, নারায়ণ দাশ, দিলীপ সেনগুপ্ত, সাংস্কৃতিক সংগঠক সন্তোষ ঘোষ, নিউটন মজুমদার, রনি গোমেজ, রতন ঘোষ প্রমুখ।
আগামীকাল ২৩ নভেম্বর রবিবার কর্মসূচী
২৩ নভেম্বর সকাল ১০টা ৩০ মিনিটে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের সঙ্গে বঙ্গবন্ধু জন্মশতবার্ষিকী উদ্যাপনের পরিষদের শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক পরিষদের কর্মকর্তারা সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হবেন। ১২টা ৩০ মিনিটে চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশ কমিশনারের সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করবেন কর্মকর্তারা। এতে যথাসময়ে পরিষদ কর্মকর্তাদের উপস্থিত থাকার জন্য অনুরোধ জানানো যাচ্ছে।