‘বঙ্গবন্ধুর মতো নেতা পাওয়াটা বাঙালি জাতির জন্য পরম সৌভাগ্য’

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ১৬ আগস্ট , ২০১৬ সময় ০৯:২৮ অপরাহ্ণ

মহির শোক দিবস পালন
চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি, সাবেক সফল মেয়র টুঙ্গি পাড়ায় মেজবান সফল করে নেতাকর্মীসহ চট্টগ্রামে ফিরে এসেছেন। ১৪ আগষ্ট বাদ আছর চট্টগ্রাম জমিয়তুল ফালাহ্ মসজিদ প্রাঙ্গণ থেকে ৫ শাতাধিক নেতাকর্শীর বহর নিয়ে আলহাজ্ব এ.বি.এম. মহিউদ্দিন চৌধুরী সড়ক পথে টুঙ্গিপাড়ার উদ্দেশ্যে যাত্রা করে জাতীয় শোক দিবস ১৫ আগষ্ট ভোর ৬ টায় বঙ্গবন্ধুর সমাধি স্থলে টুঙ্গিপাড়ায় পৌঁছেন। বেলা ১০ টায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ডেকে নিলে তিনি শোক দিবসের রাষ্ট্রীয় কর্মসূচীতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী পরিষদ ও সরকারের উর্ধ্বতন গণ্যমান্য কর্মকর্তাদের সাথে অংশ গ্রহণ করেন। মিলাদ মাহফিল ও পুষ্প স্তবক অর্পণে অংশ নেন। এসময় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আলহাজ্ব এ.বি.এম. মহিউদ্দিন চৌধুরী’র সাথে কুশল বিনিময় করে তার স্বাস্থ্যের খোঁজ খবর নেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্মসূচী পালন শেষে হেলিক্যাপ্টার যোগে ঢাকা চলে গেলে তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মহাবিদ্যালয় প্রাঙ্গণে মেজবানের অনুষ্ঠান স্থলে ফিরে এসে মেজবানের তদারকি করেন। পরে বাদ জোহর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর মাজার কমপ্লেক্সে তিনি মিলাদ মাহফিল ও বঙ্গবন্ধুর আত্মার শান্তি কামনা ও দেশের সার্বিক কল্যাণ ও সমৃদ্ধি অর্জনে দোয়া করা হয়। মিলাদ মাহফিল পরিচালনা করেন মওলানা আতিকুর রহমান, মোনাজাত পরিচালনা করেন বঙ্গবন্ধু কমপ্লেক্সের মসজিদের পেশ ইমাম। এসময় নেতাকর্মীর উদ্দেশ্যে আলহাজ্ব এ.বি.এম. মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেন, বঙ্গবন্ধুর মতো নেতা পাওয়াটা বাঙালি জাতির জন্য পরম সৌভাগ্য। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও দর্শন মনে প্রাণে ধারণ করে আমি জনগণের কল্যাণের জন্য সার্বক্ষণিক কাজ করে গেছি। যতদিন বেঁচে থাকবো ততদিন এই কাজ করে যাবো। বঙ্গবন্ধুর আজন্ম সংগ্রাম ছিল বাঙালির স্বায়ত্ব শাসন ও ন্যার্য্য অধিকার আদায়। এদেশে কোন অন্যায় কাজ হলে বঙ্গবন্ধুর কর্মময় জীবন থেকে সমাধানের পথ খুঁজে নিয়ে রাজপথে সোচ্চার থাকায় আমার কাজ। তিনি নেতাকর্মীর উদ্দেশ্যে বলেন, নতুন প্রজন্ম বঙ্গবন্ধু সংগ্রামি জীবন অনুসরণ করলেই সঠিক দিক নির্দেশনা পেয়ে যাবে। তিনি কখনো অন্যায়ের কাছে মাথা নত করেন নি। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখতে আমাদেরকে জঙ্গীদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। পরে তিনি চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ, চৌদ্দ দল চট্টগ্রাম নেতৃবৃন্দকে সাথে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এ সময় নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শফিক আদনান, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আলহাজ্ব শফিকুল ইসলাম ফারুক, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মশিউর রহমান চৌধুরী, উপ-প্রচার সম্পাদক আলহাজ্ব শহীদুল আলম, কার্যনির্বাহী সদস্য আবুল মনসুর, আলহাজ্ব মো: ইয়াকুব, আলহাজ্ব নুরুল আমিন শান্তি, হাজী শফিক আহাম্মদ, মহানগর শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী মাহবুবুল হক চৌধুরী এটলী, মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক আলহাজ্ব মহিউদ্দিন বাচ্চু, যুগ্ম আহ্বায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকা, আলহাজ্ব ফরিদ মাহমুদ, মাহবুবুল হক সুমন, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের নিজাম উদ্দিন নিঝু, মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের দেবাশীস নাথ দেবু, মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু ও সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনি প্রমুখ। ফেরার পথে টুঙ্গিপাড়াবাসী এবং সমবেত নেতৃবৃন্দের কাছে গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সম্মতি সাপেক্ষে যতদিন বেঁচে থাকি টুঙ্গিপাড়ায় মেজবান আয়োজনের আগ্রহ প্রকাশ এবং টুঙ্গিপাড়ায় একটি রেষ্ট হাউজ নির্মাণ করবেন। কেননা টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধি স্থলে সারাদেশ থেকে আগত নেতাকর্মী যাতে জাতীয় শোক দিবসের দিন এসে এখানে সামান্য বিশ্রাম করতে পারেন। অনুষ্ঠান শেষে বেলা ৩ টায় মেজবানের খাওয়া-দাওয়া আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে সকল নেতাকর্মীসহ চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে রওনা দেন। মেজবান আয়োজনের বিষয়ে প্রতিবছর টুঙ্গিপাড়া উপজেলা নেতৃবৃন্দ ও সাবেক মেয়রের এপিএস ওসমান গণিকে সার্বিক সহযোগীতা করেন। টুঙ্গিপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। এজন্য চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা হয়। চট্টগ্রাম মহানগর সভাপতি আলহাজ্ব এ.বি.এম. মহিউদ্দিন চৌধুরী’র নেতৃত্বে টুঙ্গিপাড়ার উদ্দেশ্যে আওয়ামী লীগ, শ্রমিক লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের নিয়ে পরিবহন বহরকে শুভেচ্ছা জানান চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দীন, সহ-সভাপতি আলহাজ্ব খোরশেদ আলম সুজন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব বদিউল আলমসহ মহানগর আওয়ামী লীগের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ


আরোও সংবাদ