ফ্ল্যাট কেনার আগে একটু খোঁজখবর নেওয়া প্রয়োজন

প্রকাশ:| শুক্রবার, ১৩ সেপ্টেম্বর , ২০১৩ সময় ০১:১৮ পূর্বাহ্ণ

ফ্ল্যাটসংসারে কেবল ভালোবাসাই নয়, মাথা গোঁজার মতো একটা ‘ভালো বাসা’ও চাই। বাড়ির কর্তা হয়তো কয়েকটা দিন সিএনজিচালিত অটোরিকশায় না চড়ে বাসের ঝক্কি সামলান; বাড়ির কর্ত্রী মাসের বাজারে করেন একটুখানি কৃপণতা। উদ্দেশ্য, কিছু টাকা সঞ্চয় করে মনের মতো একটা ফ্ল্যাট কেনা। নিজের ফ্ল্যাটের বারান্দায় এক বিকেলে আয়েশ করে বসবেন, সামনে থাকবে ধোঁয়া ওঠা কফির কাপ—সেই স্বপ্ন কে না দেখেন? কিন্তু স্বপ্ন পূরণের পথে আজকাল নানা ঝক্কি। ব্যাঙের ছাতার মতো অ্যাপার্টমেন্ট গড়ে উঠছে। ‘সুলভ মূল্যে’, ‘শহরের প্রাণকেন্দ্রে’, ‘রেডি ফ্ল্যাট’, ‘বুকিং দিলেই এলসিডি টেলিভিশন’ ইত্যাদি চটকদার বিজ্ঞাপন দিয়ে ক্রেতাদের দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টাও চলছে। না বুঝে ফ্ল্যাট কিনতে গিয়ে অনেকে কিস্তির সঙ্গে কুস্তি লড়ে হাঁপিয়ে যান! তাই ফ্ল্যাট কেনার আগে একটু খোঁজখবর নেওয়া প্রয়োজন।
এ প্রসঙ্গে কথা হলো রাজউকের পরিকল্পনা বিভাগের সদস্য শেখ আবদুল মান্নানের সঙ্গে। ফ্ল্যাট কেনার আগে কাগজপত্র যাচাই করে নেওয়া উচিত বলেই তিনি মনে করেন। পাশাপাশি ক্রেতাদের জন্য কিছু পরামর্শও দিলেন তিনি। জেনে নেওয়া যাক ফ্ল্যাট কেনার আগে কী কী বিষয় লক্ষ করা জরুরি।
 প্রথমেই দেখে নিতে হবে, জমির মালিকানা সঠিক কি না।
 যে বাড়িতে ফ্ল্যাট কিনছেন, সেই বাড়ির নকশায় অনুমোদন আছে কি না, তা-ও যাচাই করা প্রয়োজন।
 অনুমোদনহীন আবাসনপ্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ফ্ল্যাট কেনা উচিত নয়।
 তৈরি ফ্ল্যাটের ক্ষেত্রে বাড়ির ‘অকুপেন্সি সার্টিফিকেট’ যাচাই করে নেওয়া প্রয়োজন।
 ফ্ল্যাট কেনার আগে বাড়ির কাঠামোগত ও স্থাপত্য নকশার কাগজপত্রও দেখে নিতে পারেন।
 ফ্ল্যাট বরাদ্দের সময় প্রতিটি শর্ত ভালোমতো জেনে নিন। উভয় পক্ষকেই সব শর্ত পূরণে সচেষ্ট থাকতে হবে।
 ফ্ল্যাটটি আগে কারও কাছে বিক্রয় করা হয়েছে কি না, সে সম্পর্কেও খোঁজখবর নিতে হবে।