ফোন আসাতেই সরকার ভয় পেয়েছে-মান্না

প্রকাশ:| শনিবার, ১০ জানুয়ারি , ২০১৫ সময় ১১:০০ অপরাহ্ণ

নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, ‘আমাদের নেতারা মুখে জাতীয় ঐক্যের কথা বললেও প্রকৃতপক্ষে হাসিনা-খালেদা কখনোই ঐক্যে আসবেন না। পানিবণ্টন চুক্তির মতো কোনো নির্দিষ্ট বিষয়েও তারা এক হতে পারবেন না। তাই দেশের সবাইকে এসব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে এক হতে হবে।’

জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে শনিবার বিকেলে এক গোলটেবিল আলোচনায় এসব কথা বলেন মান্না।

‘উজানে পানি প্রত্যাহার: বাংলাদেশের মহাবিপর্যয়’ শীর্ষক এ গোলটেবিল আলোচনার আয়োজন করে ভাসানী অনুসারী পরিষদ।

মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের ৪৩ বছর পরেও আমরা যেন ধীরে ধীরে নতজানু হয়ে যাচ্ছি। বিভিন্ন দেশের স্বার্থ রক্ষিত হলো কি না সেদিকেই নেতাদের নজর বেশি।’

‘ভারত থেকে খালেদার কাছে সামান্য একটা ফোন আসাতেই সরকার ভয় পেয়েছে। ফোন দিয়ে শারীরিক সুস্থতার কথা জিজ্ঞাসা করতেই আওয়ামী সরকার নড়ে চড়ে বসেছে।’

‘দেশের জনগণ বড় রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতি বিরক্ত’ মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘সবাই নতুন কিছু খুঁজছে। কোনো একটি ইস্যু নিয়ে সাধারণের ভেতর থেকেই নতুন কোনো শক্তি বের হয়ে আসতে পারে।’

সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জাতিসংঘের সাবেক পরিবেশ ও পানি বিশেষজ্ঞ ড. এসআই খান।

তিনি বলেন, ‘ভারত ব্যারেজ নির্মাণের মাধ্যমে পানির স্বাভাবিক প্রবাহে বাধা সৃষ্টি করে ভাটিতে পানির প্রবাহ বন্ধ করেছে। পানির প্রবাহ না থাকায় আমাদের কৃষি উৎপাদন জীব বৈচিত্রসহ স্বাভাবিক জীবন যাত্রা ব্যাহত হচ্ছে। ইতোমধ্যে ফারাক্কার বিরূপ প্রভাবে দেশের উত্তরাঞ্চলে মরুকরণ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। আবার নতুন করে ১৬টি ব্যারেজ নির্মাণের সিদ্ধান্ত খুবই ন্যক্কারজনক।’

ভারতের একতরফা বাঁধ নির্মাণের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে আমাদের নদীর পানির দাবি জাতীসংঘের পানি কমিটিতে উপস্থাপনের দাবিও জানান তিনি।

সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন- আয়োজক সংগঠনের সভাপতি কবীর চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক শেখ রফিকুল ইসলাম বাবলু, আমার দেশ পত্রিকার প্রতিষ্ঠাকালীন সম্পাদক আমান উল্লাহ কবীর প্রমুখ।


আরোও সংবাদ