ফাতেমা মহিলা মাদ্রাসায় জেসিআইর নতুন ভবন

প্রকাশ:| শুক্রবার, ২৪ জুন , ২০১৬ সময় ১১:৫৬ অপরাহ্ণ

জুনিয়র চেম্বার চিটাগাং (জেসিআই) কসমোপলিটনের প্রজেক্ট ‘হোপ’র আওতায় সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য নগরীর আকবরশাহের ফাতেমা তুজ জোহরা মহিলা মাদ্রাসায় নতুন ভবন উদ্বোধন করা হয়েছে।

ফাতেমা মহিলা মাদ্রাসায় জেসিআইর নতুন ভবনশুক্রবার (২৪ জুন) উদ্বোধন অনুষ্ঠান সভাপতিত্ব করেন জেসিআই সভাপতি জসিম আহমেদ । অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আন্তর্জাতিক সহ-সভাপতি আমজাদ হোসেন, জুনিয়র চেম্বার বাংলাদেশের সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন মামুন, সহ-সভাপতি আহমেদ আশফাকুর রহমান, জুনিয়র চেম্বার চট্টগ্রাম কসমোপলিটনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও জাতীয় জেনারেল লিগ্যাল কাউন্সিলর নিয়াজ মোর্শেদ এলিট, জুনিয়র চেম্বার চট্টগ্রাম কসমোপলিটনের সাবেক সভাপতি শিহাব মালেক, নির্বাহী সহ-সভাপতি মো. গিয়াস উদ্দিন, সহ-সভাপতি মো. শফিউল আলম রানা, জাতীয় জেনারেল লিগ্যাল কাউন্সিলর মাশফিক আহমেদ রুশাদ, পরিচালক বোরহান উদ্দিন শাহেদ, ইঞ্জিনিয়ার মো. নুরুজ্জামান, জুনায়েদ ইজদানী রবিন, অসিম কুমার দাস, ফারুক আহমেদ ও সরওয়ার ।

সদস্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জুবায়ের, টিপু, ইশতিয়াক, ইফতেখার, মান্নান, মিথুন, মাহফুজ, শাহাদাত, মারুফ, মিজান, সাদ, রাকিব, সাহেদ ও রাজু ।

জসিম উদ্দিন বলেন, জুনিয়র চেম্বার চট্টগ্রাম কসমোপলিটন সবসময় সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে ব্যাবসা বাণিজ্য সংক্রান্ত কার্যক্রম ছাড়াও দুস্থ মানুষের সেবায় এগিয়ে আসে । আমরা বিশ্বাস করি সমাজের প্রতি আমাদের দায়বদ্ধতা আছে। তারই অংশ হিসেবে আমরা উক্ত ভবন নির্মাণের কাজে হাত দেই । আজ আমরা এই মহৎ কাজটি সফল করতে পেরে অত্যন্ত আনন্দিত।

সাখাওয়াত হোসেন মামুন বলেন, জুনিয়র চেম্বার চট্টগ্রাম কসমোপলিটন অত্যন্ত কৃতিত্বের সাথে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে । আমি চট্টগ্রাম কসমোপোলিটন নিয়ে অত্যন্ত গর্বিত। আমি আশা করি জেসিআই তাদের মহৎ কার্যক্রমগুলো আরও এগিয়ে নিয়ে সংগঠনকে আরও গৌরবান্বিত করবেন ।

আমজাদ হোসেন বলেন, জুনিয়র চেম্বার সারা বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন সামাজিক কার্যক্রমের সাথে জড়িত। আমি জুনিয়র চেম্বার চট্টগ্রাম কসমোপলিটনের কার্যক্রম নিয়ে অত্যন্ত আনন্দিত । আমি আশা করি সংগঠনের এ ধরনের কার্যক্রম দেশব্যাপী আরও ছড়িয়ে পড়বে।

আহমেদ আশফাকুর রহমান বলেন, রমজান মাসে জুনিয়র চেম্বার ইন্টারন্যাশনাল চট্টগ্রাম কসমোপলিটনের এমন মহৎ কাজের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে থাকতে পেরে আনন্দিত।

তিনি ভবিষ্যতে এ ধরনের সামাজিক কাজগুলো চালিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানান ।

নিয়াজ মোর্শেদ এলিট বলেন, জুনিয়র চেম্বার চট্টগ্রাম কসমোপলিটন প্রতিষ্ঠা করার পর থেকে ভালো কাজের মাধ্যমে সংগঠনকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছে। আমি দেখতে পাচ্ছি আমার উত্তরসূরিরা সঠিক পথেই এগোচ্ছে। আমার উদ্দেশ্য সফল হওয়ায় আমি আজ অত্যন্ত আনন্দিত ।