ফটিকছড়ির সুন্দরপুরে ৭টি ঘর হালদা গর্ভে বিলীন

প্রকাশ:| সোমবার, ৩১ জুলাই , ২০১৭ সময় ১২:২২ পূর্বাহ্ণ


শওকত হোসেন করিম,ফটিকছড়ি (চট্টগ্রাম) সংবাদদাতা:

ফটিকছড়িতে ৭টি বসতঘর হালদা গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। গতকাল শনিবার উপজেলার পশ্চিম সুন্দরপুর গ্রামের মনু সিপাই বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। এতে মো. ইসলামের সেমি পাকা ঘর, জাহানারা বেগমের বেড়ার ঘর, মো: জসিমের ঘর, মো.মজাহের, মো.নবী, মো: ছাত্তার, আজিজুল হকের সেমি পাকা ঘর ধসে গিয়ে হালদা গর্ভে বিলীন হয়ে যায়।
এছাড়া ওই গ্রামে চলিত বর্ষা মৌসমে মো. বেলালের ঘর, মো. ইউসুফের ঘরও হালদা নদীর গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে বলে জানা গেছে। বর্তমানে এসব ঘরহারা পরিবারের মানুষ গুলো প্রতিবেশিদের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছে। রবিবার (৩০ জুলাই) বিকেলে ফটিকছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার দীপক কুমার রায়, সুন্দরপুর ইউপি চেয়ারম্যান এম.শাহনেওয়াজ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক নাজিম উদ্দিন মুহুরী, দিদারুল বশর চৌধুরী দুদু, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো.তারিকুল ইসলাম, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী প্রনবেশ মহাজন প্রমুখ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার দীপক কুমার রায় বিষয়টি উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট অবহিত করা হয়েছে বলে জানান। অপর দিকে চেয়ারম্যান এম শাহনেওয়াজ এবং স্থানীয় জনগন একমত পোষন করে বলেন, হালদায় মাত্র দেড় হাজার ফুট বাঁক কেটে সোজা করে দিলে অন্তত দুই কি.মি এলাকার ভুখন্ড রক্ষা পেত। কয়েক শত পরিবার ভাঙ্গনের কবল থেকে রক্ষা পেত বলে তারা মন্তব্য করেন।