প্রিয় নবীর (দ.) পদাঙ্ক অনুসরণের অনন্য মডেল হযরত শাহজী পীর (রহ.)

প্রকাশ:| শনিবার, ২২ অক্টোবর , ২০১৬ সময় ১১:১৪ অপরাহ্ণ

%e0%a6%a6%e0%a6%b0%e0%a6%ac%e0%a6%be%e0%a6%b0%e0%a7%87-%e0%a6%ac%e0%a6%be%e0%a6%b0%e0%a7%80%e0%a7%9f%e0%a6%be

নিজের ব্যক্তি সত্ত্বাকে গোপন রেখে নীরবে দেশ, জাতি ও সুন্নিয়তের নিরলস খেদমত করেছেন এরকম বিরল ও ক্ষণজন্মা ব্যক্তিত্ব ছিলেন দরবারে বারীয়ার প্রতিষ্ঠাতা আল্লামা হাফেজ শাহজী পীর (রহ.)। যার প্রতিটি কর্ম সুন্নতে রসূলের (দ.) পদাঙ্ক অনুসরণে দ্বীন, মাযহাব, সুন্নিয়ত ও মানবতার কল্যাণে ব্যয়িত হয়েছে।
আজ ২২ অক্টোবর শনিবার হযরত মখদুম শাহ্ জুলফিকার শাহজী পীর বাবাজান কেবলা (রহঃ) এর ১১ তম চান্দ্র বার্ষিক ওরশ উপলক্ষে আয়োজিত মিলাদুন্নবী (দ.) মাহফিলে সভাপতির বক্তব্যে পীরে তরিকত আল্লামা মুফতি সৈয়দ শামছুদ্দোহা বারী (মজিআ) এসব কথা বলেন। চট্টগ্রাম নগরীর চান্দগাঁওস্থ দরবারে বারীয়া শরীফ জুলফিকার মঞ্জিল বাগানবাড়িতে অনুষ্ঠিত মাহফিলে প্রধান অতিথি ছিলেন পীরে তরিকত মাওলানা আল্লামা নাঈমুল হক চিশতি (মজিআ)। তিনি বলেন, মানুষের উপকারার্থে নিজের জীবন উৎসর্গকারী আল্লামা শাহজী পীরের (রহঃ) জীবনালেখ্য আমাদের অনুসরণীয়। তিনি আরও বলেন, শাহজী পীরের অর্পিত, নির্দেশিত, সিলসিলার মহান খেদমত আঞ্জাম দিয়ে যাচ্ছেন তাঁরই সুযোগ্য উত্তরাধিকারী মেঝ শাহজাদা সাজ্জাদানশীন পীরে তরিকত আল্লামা মুফতি সৈয়দ শামছুদ্দোহা বারী (মজিআ)।
শাহজী পীরের চান্দ্র বার্ষিক ওরশে বিশেষ অতিথি ছিলেন পীরে তরিকত মাওলানা সৈয়দ এহসানুল হক চিশতি। শাহজাদা সৈয়দ তরিকতুল্লাহ হাশেমী, আল হাছানী, মাওলানা এনাম রেজা কাদেরী। দাদাজান শাহজী পীরের চন্দ্রবার্ষিকী ওরশে স্বাগত বক্তব্য দেন শাহজাদা সৈয়দ মোহাম্মদ মোকারম বারী। আশুরা দিবসের তাৎপর্য নিয়ে আলোচনা করেন সৈয়দ সাইফুল ইসলাম বারী।
অনুষ্ঠানে বক্তারা শোহাদায়ে কারবালায় ইমাম হোসাইনের ঐতিহাসিক ত্যাগের কথা স্বীকার করে বলেন, নিজের জীবন উৎসর্গ করে ইসলামের পুনর্জীবন দান করেছেন ইমাম হোসাইন (রাহঃ)। বক্তারা আহলে বায়ত, খোলাফায়ে রাশেদীন এবং হযরত শাহজী পীরের (রহঃ) এর জীবনী অনুসরণের গুরত্বারোপ করেন।
মাহফিলে সম্মানিত অতিথি ও আলোচক ছিলেন মাওলানা নুরুল আবছার, কলামিস্ট ও রাজনীতিবিদ অধ্যাপক মাসুম চৌধুরী, সরকারি বিএড কলেজের নির্বাচিত বার্ষিকী সম্পাদক সাংবাদিক মোহাম্মদ নূরুল মোস্তফা, মাওলানা মিজানুর রহমান আলকাদেরী, মাওলানা সৈয়দ নাসির উদ্দিন আলকাদেরী, মাওলানা মোহাম্মদ মিনহাজ উদ্দীন আশরাফ। মিলাদ কিয়াম পরিচালনা করেন শাহজাদা হাফেজ সৈয়দ এরশাদুল বারী। মিলাদ কিয়ামের পর দেশ, জাতি বিশেষত সুন্নী মুসলমানদের অগ্রগতি কামনায় আখেরী মুনাজাত পরিচালনা করেন দরবারে বারীয়ার সাজ্জাদানশীন পীর আল্লামা মুফতি সৈয়দ শামছুদ্দোহা বারী (মজিআ)।