প্রার্থীদের প্রচারণার দখলে চলে গেছে বিলবোর্ড

প্রকাশ:| সোমবার, ১৬ মার্চ , ২০১৫ সময় ০৭:৩৫ অপরাহ্ণ

সিটি করপোরেশন নির্বাচনের এখনো তফসিল ঘোষণা হয়নি কিন্তু মেয়র এবং কাউন্সিলর পদের সম্ভাব্য প্রার্থীদের বিলবোর্ড এবং ফেস্টুনে ভরে গেছে পুরো নগরী।
প্রার্থীদের প্রচারণার দখলে চলে গেছে বিলবোর্ড
পণ্যের বিজ্ঞাপনের পরিবর্তে বিলবোর্ডগুলো এখন প্রার্থীদের প্রচারণার দখলে চলে গেছে। বিশেষ করে ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থীদের নানাভাবে নানা-ঢঙে প্রচার চলছে চোখে পড়ার মতো। এক্ষেত্রে মেয়র প্রার্থীরাও কম যান না।

আগামী জুন মাসের প্রথম সপ্তাহে নির্বাচন কমিশন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচন সম্পন্ন করার প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে। কিন্তু নির্বাচনের তফসিল কখন ঘোষণা করা হবে তা এখনো নিশ্চিত করা হয়নি। কিন্তু থেমে নেই সম্ভাব্য প্রার্থীদের বিলবোর্ড প্রচারণা।

বরং তফসিল ঘোষণার দিন যতই এগিয়ে আসছে ততই যেন প্রচারণায় নতুন রঙ লাগছে। এক্ষেত্রে আগে জাতীয় এবং ধর্মীয় উৎসবের দিনগুলোতে শুভেচ্ছা জানিয়ে বিলবোর্ড লাগানো হলেও এখন আসন্ন নির্বাচনে দোয়া কামনা করছেন তারা।

২০ নম্বর দেওয়ান বাজার ওয়ার্ডের সম্ভাব্য প্রার্থী রফিকুল ইসলাম বাপ্পী বলেন, ‘আগামী নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে এলাকাবাসীর পাশে থাকবো। এ বিষয়ে নগরবাসীকে আকর্ষিত করতে আমাদের এ প্রচারণা।’

চট্টগ্রাম বিলবোর্ড ওনার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি ফরিদ মাহমুদ বলেন, ‘ গত ১ থেকে দেড় বছরে চট্টগ্রামের ৪০-৫০ শতাংশ বিলবোর্ড চসিক নির্বাচন প্রার্থীদের দখলে চলে গেছে।’

নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার তোড়জোড় শুরু হওয়ার পর প্রার্থীরা এ প্রচারণায় নেমেছে, তা কিন্তু নয়। গত কয়েক বছর ধরেই বিভিন্ন জাতীয় দিবস, ধর্মীয় উৎসবসহ নানা কর্মকাণ্ডকে সামনে রেখেই চলছে এ প্রচারণা।

সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন)-এর চট্টগ্রাম জেলার সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আখতার কবির চৌধুরী বলেন, ‘তফসিল ঘোষণার আগেই সম্ভাব্য প্রার্থীদের পক্ষে যেভাবে বিলবোর্ড প্রচারণা চলছে তা বেআইনি। এ ক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশনের উচিৎ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা।’

২১ নম্বর জামাল খান ওয়ার্ড সম্ভাব্য প্রার্থী শৈবাল দাশ সুমন বলেন, ‘নির্বাচনকালীন তফসিল ঘোষণার আগ পর্যন্ত ফেস্টুন ও বিলবোর্ডের মাধ্যমে আমরা প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছি। তফশিল ঘোষণা হলে আইনানুগভাবে বিলবোর্ড-ফেস্টুন নামিয়ে নেয়া হবে।’

৬০ বর্গমাইলের এ চট্টগ্রামকে ৪১টি ওয়ার্ডে ভাগ করা হয়েছে। প্রতিটি ওয়ার্ডে ৫ থেকে ৭ জন করে প্রার্থী নির্বাচনে অংশ নেয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। যে কারণে এখানকার প্রধান সড়ক থেকে শুরু করে অলিগলিতে শোভা পাচ্ছে সম্ভাব্য প্রার্থীদের পোস্টার, ফেস্টুন এবং বিলবোর্ড।


আরোও সংবাদ