সমাপনী পরীক্ষা ২০ নভেম্বর থেকে শুরু

প্রকাশ:| বুধবার, ১৬ নভেম্বর , ২০১৬ সময় ১০:১৩ অপরাহ্ণ

প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী ও ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষায় এবছর চট্টগ্রামের ৪ হাজার ৩৩টি স্কুলের এক লাখ ৬১ হাজার ৪৭২ জন ক্ষুদে পরীক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে। এরমধ্যে ৭৪ হাজার ৭৬০ জন ছাত্র ও ৮৬ হাজার ৭১২ জন ছাত্রী। চট্টগ্রামের ২০ শিক্ষা থানায় ২৮টি ইবতেদায়ীসহ ৩৪৭টি কেন্দ্রে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। গতবছর চট্টগ্রামে পরীক্ষার্থী ছিল ১ লাখ ৫৬ হাজার ৫৪৫ জন।
পরীক্ষার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন। চট্টগ্রামসহ সারাদেশে একযোগে ২০ নভেম্বর (রোববার) শুরু হয়ে চলবে ২৭ নভেম্বর পর্যন্ত।
চট্টগ্রাম জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নাসরিন সুলতানা বলেন, প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে ইতোমধ্যে চট্টগ্রাম জেলার ৩৪৭ জন কেন্দ্র সচিবদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। থানা শিক্ষা কর্মকর্তাদের মাধ্যমে সব কেন্দ্র সচিবদের কাছে পরীক্ষার খাতা ও কাগজপত্র পাঠানো হয়েছে। এবছর চট্টগ্রাম জেলায় ৪ হাজার ৩৩টি স্কুলের এক লাখ ৬১ হাজার ৪৭২ জন ক্ষুদে পরীক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে। সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে, এখন পরীক্ষা নেওয়ার পালা।
প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী ও ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষায় এ বছর চট্টগ্রামের ২০ শিক্ষা থানায় এক লাখ ৬১ হাজার ৪৭২ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে। এরমধ্যে মহানগরীর ছয় শিক্ষা থানায় ৯৬০ স্কুলের ৫০ হাজার ৯১৭ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে।
কোতোয়ালী থানার ৭টি কেন্দ্রে ১০৯টি স্কুলের ৭ হাজার, চান্দগাঁও থানায় ৯টি কেন্দ্রে ১৭১টি স্কুলের ৮ হাজার ৭৮৮ জন, পাঁচলাইশ থানায় ১০টি কেন্দ্রে ১৯২টি স্কুলের ১০ হাজার ৮১জন, ডবলমুরিং থানায় ৯টি কেন্দ্রে ২০৭টি স্কুলের ১০ হাজার ১২৫ জন, পাহাড়তলী থানায় ৮টি কেন্দ্রে ১৩৫টি স্কুলের ৬ হাজার ৯১৩ জন, বন্দর থানার ৬টি কেন্দ্রে ১৪৬টি স্কুলের ৭ হাজার ৯৮৩ জন পরীক্ষার্থী রয়েছে।
অন্যদিকে, চট্টগ্রামের ১৪ থানায় তিন হাজার ৩৭৩ স্কুলের এক লাথ দশ হাজার ৫৫৫ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে। এরমধ্যে বাঁশখালী থানার ৩০টি কেন্দ্রে ২৭১টি স্কুলের ১১ হাজার ৪৩৩ জন, রাউজান থানার ২১টি কেন্দ্রে ২৩৪টি স্কুলের ৬ হাজার ৪৪৯ জন, সন্দ্বীপ থানার ১৫টি কেন্দ্রে ১৬৬টি স্কুলের ৬ হাজার ১২৮ জন, ফটিকছড়ি থানার ২৫টি কেন্দ্রে ৩০১টি স্কুলের দশ হাজার ৯১৮ জন, পটিয়া থানার ২৯টি কেন্দ্রে ৩৬৯টি স্কুলের ১২ হাজার ৭০৯ জন, আনোয়ারা থানার ১৪টি কেন্দ্রে ১৫৪টি স্কুলের ৬ হাজার ২৪৩ জন, বোয়ালখালী থানার ১৪টি কেন্দ্রে ১৪৯টি স্কুলের ৪ হাজার ৭২৫ জন, লোহাগাড়া থানার ১০টি কেন্দ্রে ১৫৩টি স্কুলের ৬ হাজার ১১৬ জন, চন্দনাইশ থানার ১৬টি কেন্দ্রে ১৮৬টি স্কুলের ৫ হাজার ৮০৫ জন, হাটহাজারী থানার ২০টি কেন্দ্রে ২৩৮টি স্কুলের ৮ হাজার ৭৩৮ জন, রাঙ্গুনীয়া থানার ১৮টি কেন্দ্রে ২৩৯টি স্কুলের ৭ হাজার ৩শ জন, মিরসরাই থানার ১৮টি কেন্দ্রে ২৪২টি স্কুলের ৭ হাজার ৯১৩ জন, সীতাকুণ্ড থানার ১২টি কেন্দ্রে ১৭৪টি স্কুলের ৮ হাজার ২৩০ জন, সাতকানিয়া থানার ২৮টি কেন্দ্রে ১৯৭টি স্কুলের ৭ হাজার ৮৭৫ জন পরীক্ষার্থী রয়েছে।
পরীক্ষার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে জানিয়ে চান্দগাঁও থানা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আশরাফুল আলম বাংলানিউজকে বলেন, কেন্দ্র সচিবদের কাছে পরীক্ষার সব কাগজপত্র, খাতা বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে। প্রত্যেকে স্কুলের পরীক্ষার্থীদের হাতে প্রবেশপত্র পৌঁছানো হয়েছে। এবছর ৯টি কেন্দ্রে ইবতেদায়ীসহ ৯ হাজার ৪৮২ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে।
পটিয়া উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোতাহের বিল্লাহ বাংলানিউজকে বলেন, রোববার (২০ নভেম্বর) থেকে পঞ্চম শ্রেণির ক্ষুদে পরীক্ষার্থীরা পিএসসি পরীক্ষা দিতে বসবে। এরই প্রেক্ষিতে পরীক্ষার সকল কাগজপত্রাদি ইতোমধ্যে আমাদের কাছে এসে পৌঁছেছে। বৃহস্পতিবার (১৭ নভেম্বর) সকালে পটিয়া উপজেলার ২৯ জন কেন্দ্র সচিবের কাছে পরীক্ষার সকল কাগজপত্র হস্তান্তর করা হবে। ইতোমধ্যে পটিয়া উপজেলার ৩৬৯টি স্কুলের ১২ হাজার ৭০৯ জন পরীক্ষার্থী তাদের প্রবেশপত্র হাতে পেয়েছে। পটিয়া উপজেলায় এবছর সবচেয়ে বেশি পরীক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে বলেও জানান তিনি।
মিরসরাই উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা গোলাম রহমান চৌধুরী বাংলানিউজকে বলেন, এবছর মিরসরা্ই উপজেলায় ১৮টি কেন্দ্রে ৭ হাজার ৯১৩ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিবে। কেন্দ্র সচিবদের পরীক্ষার সংক্রান্ত সব কাগজপত্র বুঝিয়ে দেওয়া হচ্ছে।