প্রধানমন্ত্রী, তনুর জন্য কেন কথা বলছেন না?

প্রকাশ:| শুক্রবার, ২৫ মার্চ , ২০১৬ সময় ১১:২১ অপরাহ্ণ

প্রধানমন্ত্রী, তনুর জন্য কেন কথা বলছেন নাগণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকার বলেছেন, ‘আমরা প্রধানমন্ত্রীকে ইয়াসমিন হত্যার প্রতিবাদে রাস্তায় নামতে দেখেছি। কিন্তু আপনাকে তো আজকে কোনো কথা বলতে দেখছি না। তনুর জন্য আপনি কেন কোনো কথা বলছেন না? আপনার নীরবতা যদি এই ধর্ষকদেরকে রক্ষা করে যায় তাহলে এই হত্যাকাণ্ড ও ধর্ষণের দায় আপনিও এড়াতে পারবেন না। আপনাকেও বাংলাদেশের জনগণের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে।’

শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর শাহবাগের প্রজন্ম চত্বরে তনুর হত্যাকারী পিশাচদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে আয়োজিত গণসমাবেশে তিনি একথা বলেন।

ধর্ষণ আইন সংশোধন করার দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, ধর্ষকদেরকে প্রশ্রয় দেয়া জনগণ মানবে না। বাংলাদেশের মাটিতে ধর্ষকদের সাথে আপোষ করা হবে না। ধর্ষক আইনে সাজা কমিয়ে দেয়া হয়েছে। আইন সংশোধন করতে হবে যাতে করে তনুর ধর্ষকদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা যায়। এসময় তিনি নারী ও শিশু বিচার ট্রাইবুন্যালকে কার্যকর করার আহ্বান জনান।

মানবাধিকার কর্মী খুশি কবির বলেন, আজকের এইদিনে আমাদের অন্যস্থানে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু আমরা গণজাগরণ মঞ্চে এসেছি তনুর জন্য। এ ঘটনা মিলিটারির কেউ জড়িত হোক না কেন, তার বিচার সিভিল আদালতে যেন হয়। যেভাবে যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসি হয়েছে সেভাবে যেন ধর্ষণকারীদেরও ফাঁসি হয়।

সমাবেশে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের যুগ্ম-মহাসচিব পুলক ঘটক বলেন, সেনাবাহিনী নিজেদের কার্যক্রমের মধ্য দিয়ে প্রমাণ করবে যে ঘটনাটিকে তারা ধামাচাপা দিচ্ছেন না। যে সেনাবাহিনী পাকিস্তানি ধর্ষক সেনাবাহিনী থেকে এদেশের স্বাধীনতা এনেছে তাদের ব্যাপারে যেন কোনো কলঙ্ক না থাকে।

উদীচীর সহ-সাধারণ সম্পাদক সংগীতা ইমাম বলেন, ক্যান্টনমেন্টে একাত্তরের সেই ধর্ষণকারী শকুন এখনো রয়ে গেছে। সরকার ভয় পাচ্ছে, ভয় পাক। আমরা প্রতিবাদ চালিয়ে যাব।

ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি লাকী আক্তার বলেন, একটি মানচিত্র আর স্বাধীন ভুখণ্ডের জন্য বাংলাদেশের মানুষ মুক্তিযুদ্ধে লড়াই করে নাই, সংগ্রাম করেছে এমন রাষ্ট্রের জন্য যা নারীদের জন্য হবে একটি নিরাপদ রাষ্ট্র। কিন্তু এমন কোনদিন নাই যেদিন প্রত্রিকার পাতায় ধর্ষণের সংবাদ ছাপা হয়না। তিনি সেনানিবাস এলাকার সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ প্রকাশ করার দাবি জানান।

সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ছাত্রফ্রন্ট সভাপতি ইমরান হাবিব রুমন, ভাস্কর রাশা, আহমেদ মহিউদ্দিন, তাহমিনা সুলতানা সাথী প্রমুখ।


আরোও সংবাদ