প্রদর্শিত হয়েছে মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন দুর্লভ আলোকচিত্র

প্রকাশ:| বুধবার, ১৬ ডিসেম্বর , ২০১৫ সময় ১১:০৭ অপরাহ্ণ

বিশাল সাদা ব্যানারে দিনব্যাপী প্রদর্শিত হয়েছে মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন দুর্লভ আলোকচিত্র।  সেই আলোকচিত্রে উঠে এসেছে বায়ান্ন’র ভাষা আন্দোলন থেকে মুক্তিযুদ্ধের শুরু পর্যন্ত বিভিন্ন আন্দোলন-সংগ্রামের পটভূমি।  মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানের সেনাবাহিনী এবং তাদের দেশীয় দোসর রাজাকার-আলবদরদের নির্মমতার চিত্রও ফুটে উঠেছে সেখানে।  আর দুর্লভ সেসব আলোকচিত্র দেখতে সকাল থেকে চেরাগিতে ভিড় জমায় বিভিন্ন বয়সী শত, শত নারীপুরুষ ও শিশু।

বুধবার (১৬ ডিসেম্বর) সকাল ৮টা থেকে এই আলোকচিত্র প্রদর্শনী সকলের জন্য উন্মুক্ত করে উদীচী চট্টগ্রাম জেলা সংসদ।  শুরু থেকেই প্রদর্শনী মঞ্চের সামনে ভিড় জমতে থাকে।

সকালে শহীদ মিনারে পুস্পস্তবক অর্পণের মধ্য দিয়ে উদীচী দিনের কর্মসূচী শুরু করে।  এসময় সেখানে উদীচী চট্টগ্রাম জেলা সংসদের সহ সভাপতি ডা.চন্দন দাশ, প্রবাল দে, সুনীল ধর, সাধারণ সম্পাদক শীলা দাশগুপ্ত, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জয় সেন, মনীষ মিত্র, ভাস্কর রায়সহ সংগঠকরা উপস্থিত ছিলেন।

বিকেলে চেরাগি চত্বরে গণজাগরণ মঞ্চ আয়োজিত সম্মিলিত কণ্ঠে জাতীয় সংগীত পরিবেশন কর্মসূচীতে অংশ নেয় উদীচীর শিল্পীরা।

এরপর সন্ধ্যায় চেরাগিতে নন্দন বইঘরের সামনে জাতীয় পতাকাশোভিত মঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা, আবৃত্তি ও গণসঙ্গীত পরিবেশ কর্মসূচী।  আলোচনায় সভাপতিত্ব করেন উদীচী চট্টগ্রাম জেলা সংসদের সহ-সভাপতি ডা.চন্দন দাশ।

প্রদর্শিত হয়েছে মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন দুর্লভ আলোকচিত্রএতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উদীচী চট্টগ্রাম জেলা সংসদের সভাপতি ও শহীদ জায়া বেগম মুশতারি শফি, গণজাগরণ মঞ্চ চট্টগ্রামের সমন্বয়কারী শরীফ চৌহান, কবি ও সাংবাদিক কামরুল হাসান বাদল।

বক্তারা বলেন, স্বাধীনতার ৪৪ বছর পর এবার ৪৫ তম বিজয় দিবস জাতির জন্য ভিন্নভাবে এসেছে।  চট্টগ্রামের কুলাঙ্গার সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরী এবং আলবদর কমান্ডার আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের ফাঁসি হওয়ায় এবার বিজয়ের আনন্দে বাড়তি মাত্রা যোগ করেছে।  তবে শুধু যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসিতেই মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী নগরিকদের সন্তুষ্ট হলে চলবেনা।  সাম্প্রদায়িক রাজনীতির বিরুদ্ধে আদর্শের সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হবে।  নতুন প্রজন্মের নব্য রাজাকারদেরও আদর্শিকভাবে পরাজিত করতে হবে।

উদীচী চট্টগ্রাম জেলা সংসদের সহ-সভাপতি রবিন দে’র নেতৃত্বে গণসঙ্গীত পরিবেশনায় অংশ নেন সংগঠনের শিল্পীরা।  এছাড়া চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় উদীচী, অভ্যুদয় সঙ্গীত একাডেমিও আলাদাভাবে গণসঙ্গীত পরিবেশন করে।  উদীচীর আয়োজনে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে আবৃত্তি পরিবেশ করে বোধন ও প্রমা।