প্রতিষ্ঠানে ভাংচুর : আহত ২০ জন : থানায় অভিযোগ দায়ের

প্রকাশ:| রবিবার, ৮ সেপ্টেম্বর , ২০১৩ সময় ১০:৫৫ অপরাহ্ণ

হাটহাজারীতে কলেজ ছাত্রীকে উত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায় শিক্ষকের উপর দূর্বৃত্তদের হামলা
hat  jpgহাটহাজারী সংবাদদাতা : চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলার নাজিরহাট কলেজ সংলগ্ন এলাকায় নিউরন কোচিং সেন্টার নামে একটি শিক্ষাসহায়ক প্রতিষ্ঠানের পরিচালক মো: হাসান নামে এক শিক্ষকের উপর হামলা করেছে দূর্বৃত্তরা। গতকাল রোববার (৮ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে নাজিরহাট ডিগ্রি কলেজ গেইট এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে। পরিচালকের সদ্য বিবাহিত স্ত্রীকে উত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায় দূর্বৃত্তরা এ হামলা চালিয়েছে। দূর্বৃত্তদের হামলায় স্থানীয় ফরহাদাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য আমান উল্লাহ, শিক্ষার্থীসহ প্রায় ২০ জন আহত হয়েছে। এ সময় তারা ওই শিক্ষকের নিউরন কোচিং সেন্টারে ভাংচুর চালিয়ে তিনটি ল্যাপটপসহ প্রায় তিন লাখ টাকার মালমাল লুট করে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় ওই কোচিং সেন্টারের পরিচালক আহত মো: হাসান বাদী হয়ে হাটহাজারী মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছে।
প্রত্যক্ষদর্শী ও থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত শনিবার দুপুরে উক্ত কোচিং সেন্টারের পরিচালকের স্ত্রী প্রাইভেট শেষে নাজিরহাট কলেজে যাওয়ার পথে গতিরোধ করে খাতা কেড়ে নেয় স্থানীয় বখাটে বাবলু ও তার এক সঙ্গী। এ সময় তারা (বখাটে) তাকে বেশ কুরুচি পূর্ণ উক্তি করে তাকে উত্যক্ত করে। এই বিষয়টি জানতে পেরে তার স্বামী ও নিউরন কোচিং সেন্টারের পরিচালক মো: হাসান পরবতীতে তাদের ডেকে এনে স্থানীয়দের সামনে তাদের কাছ থেকে খাতা ফেরত নিয়ে এ ধরণের কাজের জন্য ক্ষমা চাইতে বলেন। ক্ষমা চেয়ে তারা তখন বিদায় নেয়।
এরমধ্যে গতকাল রবিবার সকালে তারা (বখাটে) অপমানের শোধ নিতে বাবলু ও চবি অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী ওমর ফারুকের নেতৃত্বে প্রায় ২০ থেকে ৩০ জনের একটি দল তার (পরিচালক হাসান) নিউরন কোটিং সেন্টারে হামলা চালায়। এতে কোচিং সেন্টারের ছাত্র-ছাত্রী ও স্থানীয় এক ইউপি সদস্যসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়েছে। এ সময় তারা কোচিং এ ক্লাসরত শিক্ষার্থীদেরও লাঞ্চিত করে। হামলা চালিয়ে প্রতিষ্ঠান ভাংচুর করে তিনটি ল্যাপটপসহ প্রায় তিন লাখ টাকা মালামলা লুট করে নিয়ে গেছে বলে জানান নিউরন কোচিং সেন্টারের পরিচালক আহত মো: হাসান।
সংবাদ পেয়ে হাসানের চাচাত ভাই স্থানীয় ইউপি সদস্য আমান উল্লাহ ও তার ভাইপো মো: শাহাদাত এবং শিক্ষার্থী সহ আরো অন্যান্য স্থানীয়রা ছুটে এসে উদ্ধার করতে গেলে তারা তাদের উপরও হামলা করে দূর্বৃত্তরা। এ সময় তারা স্থানীয় ইউপি সদস্যের গলায় থাকা দুটি স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নেয়।
ঘটনার খরর থানা পুলি কে অবহিত করলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ভূদ্ধ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। এই হাটহাজারী মডেল থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক নুরুল হাকিম সাংবাদিকদের বলেন, নাজিরহাট নিউরন কোটিং সেন্টারের পরিচালক হাসান তার স্ত্রীকে ইভিটিং করার প্রতিবাদ জানালে স্থানীয় বখাটে বাবলু তার বন্ধুদের নিয়ে সকালে কোটিং সেন্টারে হামলা চালায়।
এ ঘটনায় নিউরন কোচিং সেন্টারের পরিচালক মো: হাসান বাদী হয়ে বাবলুকে প্রধান আসামীকে প্রধান বিবাদী করে ১৫ জনকে সুনিদিষ্ট ও ২৫-৪০ জনকে অজ্ঞাতনামা একটি অভিযোগ দায়ের করেছে। অন্য বিবাদীরা হলেন মো.মামুন,চবি শিক্ষার্থী ওমর ফারুক,মো.মুন্না,আল মর্তুজা রাহী,আবরারুল হক মাসুম,মো.নাছির উদ্দিন,মো.রিয়াজ,মো.কাউচার,আকতার হোসেন,মো.আলী,ফয়সাল আহমেদ,সো.রাজু,সো.তুষার ও মো.জনি।