প্রতিবন্ধী উন্নয়ন অধিদপ্তর বাস্তবায়নের দাবিতে মানববন্ধন

প্রকাশ:| শনিবার, ২৯ এপ্রিল , ২০১৭ সময় ০৮:০৩ অপরাহ্ণ

ইমরান এমি, আনোয়ারা:

প্রতিবন্ধী ব্যাক্তি উন্নয়ন অধিদপ্তর বাস্তবায়নের দাবিতে আজ মানবন্ধন ও সমাবেশে করেছে বিভিন্ন প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংগঠন।
আজ শনিবার চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে কোষ্টাল ডিপিও এলায়েন্স (সিডিএ), চন্দনাইশ প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংগঠন, চট্টগ্রাম বধির উন্নয়ন সংস্থা, বি এস্কান, পিএনএসপি, সংশপ্তক, উৎসসহ চট্টগ্রামের বিভিন্ন প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংগঠন এ মানববন্ধনের আয়োজন করে।
বি-স্ক্যান সভাপতি সাবরিনা সুলতানার সভাপেিত্ব মানববন্ধনে সংহতি প্রকাশ কওে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি রিয়াজ হায়দার, উদ্যোক্তা সংগঠনের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন কোষ্টাল ডিপিও এলায়েন্সের সাধারণ সম্পাদক স্বরুপানন্দ চক্রবর্তী, চন্দনাইশ প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংগঠনের সেলিনা আকতার, চট্টগ্রাম বধির উন্নযন সংস্থার নিমাই বণিক, পিএনএসপির পরিচালক রফিক জামান, সংশপ্তকের প্রোগ্রাম কো-অর্ডিনেটর নার্গিস চৌধুরী, ঢাবির প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থী আহাদ খান, লায়ন হুমায়ুন কবির প্রমুখ।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, প্রতিবন্ধী জনগণ এবং তাদের প্রতিনিধিত্বকারী প্রতিবন্ধী ব্যক্তি সংগঠনসমূহের প্রাণের দাবী অবিলম্বে এই অধিদফতরের বাস্তবায়ন করার। তাই জেলা পর্যায়ের প্রতিবন্ধী ব্যক্তি সংগঠনগুলোর সাথে যৌথ আয়োজনে চলতি বছরের ৭ মার্চ খুলনা থেকে শুরু হয়ে এ পর্যন্ত ৯টি জেলায় এ মানববন্ধন কর্মসূচি সম্পন্ন হয়েছে।
সর্বস্তরের প্রতিবন্ধী মানুষের ক্ষমতায়ন ও উন্নয়ন নিশ্চিত করতে আমাদেরকে জাতীয় উন্নয়নের মূল ¯্রােতে সম্পৃক্ত করা অপরিহার্য। এ লক্ষ্য বাস্তবায়নে সমন্বয়কারি প্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রতিবন্ধী ব্যক্তি উন্নয়ন অধিদফতর গঠনের বিকল্প নেই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিবন্ধী মানুষের উন্নয়ন কার্যক্রমকে তরান্বিত করতে ২০১০ সালের অটিজম সচেতনতা দিবসে জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশনকে এই অধিদফতরে রূপান্তরের ঘোষনা দেন। এই ঘোষণার ধারাবাহিকতায় একই বছরের আগস্ট মাসে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ফাউন্ডেশনকে অধিদফতরে রূপান্তরের সাংগঠনিক কাঠামোগত অনুমোদন দেয়। কিন্তু অর্থ মন্ত্রণালয়ের আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় পড়ে স্থবির হয়ে যায় এই প্রক্রিয়া।
জানা যায়, পরবর্তীতে অর্থ মন্ত্রণালয় এর অনুমোদন দেয়। কিন্তু বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নের প্রকল্প বাস্তবাায়নসহ নানা জটিলতায় আবারও থমকে যায় প্রতিবন্ধী মানুষের স্বতন্ত্র অধিদফতর গঠন প্রক্রিয়া। মূলত ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনায় বোর্ডের বেসরকারি সদস্যদের স্বার্থগত বিরোধিতার কারণে মুখ থুবড়ে পড়ে অধিদফতর বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া।
জাতিসংঘ প্রতিবন্ধী ব্যক্তি অধিকার সনদে (সিআরপিডি) একই নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। এ নির্দেশনা অনুযায়ী সিআরপিডি’র অনুসমর্থনকারি বিভিন্ন দেশ ইতোমধ্যে প্রতিবন্ধী মানুষের উন্নয়নে এ ধরণের সমন্বয়কারি সরকারি প্রতিষ্ঠান গঠন করেছে। একই অঙ্গীকার বাস্তবায়নে বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে প্রতিবন্ধী ব্যক্তি উন্নয়ন অধিদফতরের অনুমোদন পায়। গত ২০১৪ সালের ৪ এপ্রিল বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবসে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রতিবন্ধী ব্যক্তি উন্নয়ন অধিদফতরে উদ্বোধন করেন। তবে এই অধিদফতর গঠনের উদ্যোগের শুরু থেকে কয়েকজন আমলা এবং প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের নিয়ে কর্মরত এনজিও নেতৃবৃন্দ এবং তাদের নেটওর্য়াক জাতীয় প্রতিবন্ধী ফোরাম তার বিরোধিতা করে আসছে। আমলাতান্ত্রিক জটিলতা আর এনজিও নেতৃবৃন্দের বিরোধিতায় বিগত প্রায় তিন বছরেও আলোর মূখ দেখেনি প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনকৃত প্রতিবন্ধী ব্যক্তি উন্নয়ন অধিদফতর। অতিদ্রুত প্রতিবন্ধী উন্নয়ন অধিদপ্তর বাস্তবায়নে প্রতিবন্ধী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ সরকারের নিকট দাবি জানান।


আরোও সংবাদ