প্রজন্মের মুক্তিযোদ্ধার সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সিটি মেয়র

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই , ২০১৫ সময় ০৮:২৭ অপরাহ্ণ

আ জ ম নাছির

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ.জ.ম. নাছির উদ্দীন বলেন, ধৈয্য, সহনশীলতা ও একাগ্রতা থাকলে জীবনে সাফল্য আসে। তিনি বলেন, রাজনীতিকে চাওয়া পাওয়ার হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করলে জনগণের প্রত্যাশা পুরন হয় না। রাজনীতিকে আদর্শ ও সেবার মাধ্যম হিসেবে যারা গ্রহণ করেছে তারই সফল রাজনীতিবিদ। মেয়র বলেন, রাজনীতির চলমান ধারায় কেউ সফল হয় কেউ না মাঝপথে ছিটকে পড়ে। হতাশা, অভিমান, অবহেলা, ক্ষোভ, হতাশা, অভিমান, সব কিছুকে অতিক্রম করেই অভিষ্ট লক্ষ্যে পৌছঁতে হবে। তিনি বলেন, চট্টগ্রাম মহানগরের আওয়ামী পরিবারকে ঢেলে সাজাতে হবে। আওয়ামীলীগ, আওয়ামীযুবলীগ, আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগ ও শ্রমিকলীগ সহ সবগুলো সংগঠনকে নীতি আদর্শের উপর গতিশীল করতে হবে। মেয়র বলেন, ছাত্র সংগঠনের ভিত্তি আরো সুদৃঢ় করতে হবে। সিটি মেয়র আ.জ.ম. নাছির উদ্দীন বলেন, আমাকে সহযোগীতা দিন আমি সংগঠনকে গতিশীল করবো এবং সিটি কর্পোরেশনকে আদর্শ সিটি কর্পোরেশনে প্রতিষ্ঠিত করবো। ১৪ জুলাই ২০১৫ খ্রিঃ মঙ্গলবার হোটেল আগ্রাবাদের ইছামতি হলে প্রজন্মের মুক্তিসেনা কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিল আয়োজিত সিটি মেয়র ও কাউন্সিলরদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সংবর্ধিত অতিথি এ সব কথা বলেন। সংগঠনের প্রধান সমন্বয়কারী দিদারুল আলম দিদারের সভাপতিত্বে এবং কাউন্সিলর গোলাম মোহাম্মদ জোবায়েরের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠিত সংবর্ধনা ও ইফতার মাহফিলে সাবেক সফল মন্ত্রী ও শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ডাঃ মোঃ আফছারুল আমীন এম.পি, সিডিএ চেয়ারাম্যান আলহাজ্ব আবদুচ ছালাম, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মসিউর রহমান চৌধুরী, নির্বাহী কমিরি সদস্য আবদুল লতিফ টিপু, কাউন্সিলর তারেক সোলায়মান সেলিম, মোঃ গিয়াস উদ্দিন, হাসান মুরাদ বিপ্লব, মোঃ আবদুল কাদের, আলহাজ্ব এস.এম এরশাদ উল্লাহ, আলহাজ্ব সাবের আহমদ সওদাগর, হারুন অর রশিদ, মোঃ সাইফুদ্দিন সাইফু, হাবিবুল হক, মিসেস আঞ্জুমান আরা, মিসেস আবিদা আজাদ, প্রজন্মের মুক্তি সেনা কেন্দ্রিয় কমান্ড কাউন্সিল এর দিদারুল আলম মাসুম, মোহাম্মদ লোকমান, আবুল কালাম আবু, বেলায়েত হোসেন বেলাল, শাহেদুল ইসলাম সাহেদ, মোঃ সেলিম মিঞা, তারেক সুলতান, আবদুল হাই, রফিকুস সামাদ সোহেল, জাকির মিঞা, মোঃ খাইরুল বশর তসলিম, মোঃ আবদুল লতিফ, তারেক ইমতিয়াজ ইমতু, রেজাউল করিম ভুট্টু, মিজানুর রহমান মিজান, এস.এম সিরাজ, সেলিম আখতার পিয়াস ও বোরহান উদ্দিন গিফারী সহ অন্যরা বক্তব্য রাখেন। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সাবেক মন্ত্রী ডাঃ আফসারুল আমীন এম.পি বলেন, আদর্শে নিবেদিত খাঁটি কর্মিরা সংগঠনের জন্য জীবন দিতে পিছনা হয় না। সুবিধা ভোগীরা সংগঠনের দুঃসময়ে পালিয়ে যায়। তিনি বলেন, পদলোভ, ক্ষমতার লোভ, চাওয়া পাওয়া যাদের মোহ তারা সুসময়ের কর্মী। সাবেক মন্ত্রী ত্যাগ ও আদর্শবান নেতা-কর্মীদেরকে ধৈর্য্যে ও সহযোগীতার সাথে নিজেদের নিয়ন্ত্রন করার পরামর্শ দেন। পরে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে মেয়র ও কাউন্সিলরদের ক্রেষ্ট ও ফুলেল শুভেচ্ছায় বরণ করা হয়।