প্যাকেজে বিএনপিকে জামায়াত ছেড়ে আসতে হবে-ইনু

প্রকাশ:| শনিবার, ১৮ জানুয়ারি , ২০১৪ সময় ০৩:৫০ অপরাহ্ণ

যদি কোনো আলোচনা হয়, তবে তা হবে জঙ্গীবাদমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার নির্বাচন নিয়ে। আর এটি হবে একটি প্যাকেজ আলোচনা। এখানে নিষিদ্ধ জামায়াতের কোনো স্থান নেই। তাই এই প্যাকেজে বিএনপিকে জামায়াত ছেড়ে আসতে হবে।

শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে ‘সাম্প্রদায়িকতা ও গণমাধ্যম’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।

ইনু আরো বলেন, ‘জঙ্গীবাদ ও এর সমর্থকদের বিরুদ্ধে সাংবাদিকরা কলম ধরলে তবেই অসাম্প্রদায়িক গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠা সম্ভব। গণমাধ্যমে এখন সাম্প্রদায়িকতার পক্ষে-বিপক্ষে বিভক্তি দেখা দিয়েছে। সাংবাদিকরা নিরপেক্ষ হতে পারে না। তাই তাদের অবশ্যই সংবাদের বস্তুনিষ্ঠতার ক্ষেত্রে গণতন্ত্র, স্বাধীনতার পক্ষে এবং মৌলবাদের বিপক্ষে অবস্থান নিতে হবে।’

সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল বলেন, ‘রামুর ঘটনার কোনো বিচার না হওয়ার দুর্বৃত্তরা উৎসাহিত হয়ে ফের সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা চালাচ্ছে। তাই এ বিষয়ে সরকারকে এর উৎস খুঁজে বের করে দোষীদের শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।’

গণমাধ্যম বন্ধ করে দেয়ায় সরকারের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘গণমাধ্যম বন্ধ করে দিলেই সমস্যার সমাধান হয় না। এতে সাংবাদিকরা বেকার হয়ে চরম হতাশার মধ্যে পড়ে। অথচ পত্রিকার কর্তাব্যক্তিরা সহজেই পার পেয়ে যায়।’

একই সভায় ‘শুধু গণমাধ্যম শুদ্ধ হলেই সমস্যার সমাধান হবে না’ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, ‘গণমাধ্যমের সঙ্গে সঙ্গে রাজনীতি ও বিচারালয়কেও অসম্প্রদায়িক হতে হবে। তবেই অসাম্প্রদায়িক দেশ গড়া সম্ভব।’

‘অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের জন্য গণমাধ্যম’-এর আহ্বাবায়ক কাজী রফিকের সভাপতিত্বে সভায় আরো বক্তব্য দেন বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক শাহ আলমগীর, ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত প্রমুখ।