পেকুয়ায় ৬ষ্ট শ্রেণীর ছাত্রীকে জোর করে বাল্য বিয়ে দিলেন বাবা-মা

প্রকাশ:| বুধবার, ৩০ এপ্রিল , ২০১৪ সময় ০৯:১৫ অপরাহ্ণ

পেকুয়া প্রতিনিধি
পেকুয়া উপজেলায় ৬ষ্ট শ্রেণীর এক স্কুল পড়–য়া মেধাবী ছাত্রীকে জোর করে বাল্য বিয়েতে বাধ্য করেছে নিজ বাবা-মা। এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে, বুধবার (৩০ এপ্রিল) বিকালে উপজেলার টইটং ইউনিয়নের বড় পাড়া গ্রামে। স্থানীয়দের মাধ্যমে সংবাদ পেয়ে সরেজমিনে এলাকায় গিয়ে জানা গেছে, ওই গ্রামের মৌলভী আবদু শুক্কুরের কন্যা ও টইটং ইক্বরা স্কুল এন্ড কলেজ এর ৬ষ্ট শ্রেণীর মেধাবী ছাত্রী আনিকাকে তার বাবা-মা জোর করেই একই ইউনিয়নের কাচারী পাহাড় গ্রামের মৌলভী আবুল হোছাইনের পুত্র হোছাইনের সাথে বিয়ে দেন। আর বাল্য বিয়ের শিকার মেধাবী ছাত্রী আনিকা টইটং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জেএড এম মোসলেম উদ্দিনের বোনের কন্যা। স্থানীয়রা অভিযোগ করেছেন, চেয়ারম্যানের প্রকাশ্যে সহযোগীতায় বুধবার তার বোনের বাড়ীতে বাল্য বিয়েটি সম্পন্ন হয়েছে। খোদ চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে বাল্য বিয়ে সম্পন্ন এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

বুধবার সরেজমিনে টইটং কাচারী পাহাড় গ্রামে বরের বাড়ীতে গিয়ে দেখা গেছে, পরিবারের সবাই এনগেইজমেন্ট অনুষ্টানে যোগ দিতে বাড়ী তালাবদ্ধ করে একই ইউনিয়নের বড় পাড়া গ্রামের মৌলভী আবদু শুক্কুরের বাড়ীতে যান। এসময় স্থানীয় কয়েকজন লোক জানান, চেয়ারম্যানের ভাগ্নি ৬ষ্ট শ্রেণীর স্কুল ছাত্রী আনিকাকে জোর করেই তার বাবা-মা চেয়ারম্যানে সহযোগীতায় বিয়ে দিচ্ছেন। খোদ ইউপি চেয়ারম্যান বাল্য বিয়েতে সহযোগীতা করায় স্থানীয়রা কোন ধরণের প্রতিবাদ করার সাহস পায়নি।

বাল্য বিয়ের বিষয়ে জানার জন্য বর হোছাইনের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, দীর্ঘদিন ধরে স্কুল ছাত্রী আনিকার সাথে তার গভীর প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছিল। তাই তারা সম্পর্কের বাস্তবে রূপ দিতে এনগেইজমেন্ট সম্পন্ন করেছেন; তবে এখনই বিয়ে করছেন না। তিনি এসব তার বিরুদ্ধে অপপ্রচার বলে দাবী করেছেন।

এ বিষয়ে জানার জন্য টইটং ইউপি চেয়ারম্যান জেএড এম মোসলেম উদ্দিনের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানিয়েছেন, এখন বিয়ে হচ্ছেনা; ভাল পাত্র পাওয়া যাওয়ায় তার ভাগ্নিকে টইটং বাজারের হোছাইন কম্পিউটারের মালিক হোছাইনের সাথে এনগেইজমেন্ট হচ্ছে। অপ্রাপ্ত বয়সে ৬ষ্ট শ্রেণীর ছাত্রীকে কেন বিয়ে দিচ্ছেন জানতে চাইলে তিনি কোন ধরণের সদুত্তর দিতে পারেনি।


আরোও সংবাদ