পেকুয়ায় হাসপাতাল ক্লিনিক আর প্যাথলজি পরিদর্শনে সিভিল সার্জন আবদুস সালাম

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১৬ আগস্ট , ২০১৮ সময় ১০:২৫ অপরাহ্ণ

পেকুয়া প্রতিনিধি:

পেকুয়ায় সরকারী হাসপাতাল ব্যক্তি মালিকনাধীন ক্লিনিক ও প্যাথলজিগুলো পরিদর্শনে ঝটিকা সফর করলেন জেলা সিভিল সার্জন আবদুস সালাম। বৃহস্পতিবার (১৬আগস্ট) সকাল ১০টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত তিনি পরিদর্শন সম্পন্ন করেন।

ওই সময় তিনি ব্যক্তি মালিকনাধীন হাসপাতাল ও প্যাথলজিগুলোতে নিয়মাবলী ও অব্যবস্থাপনা দেখভাল করে দিকনির্দেশনা প্রদান করেন। বিশেষ করে পেকুয়া জেনারেল হাসপাতাল, পেকুয়া মেডিকেল সেন্টার, পেকুয়া লাইফ কেয়ার হাসপাতাল, নুর ক্লিনিক, সেবা প্যাথলজি, চৌমহুনী প্যাথলজিতে সরাসরি পরিদর্শক করেন। এক পর্যায়ে ডাক্তার হারুণুর রশিদের ক্লিনিক পরিদর্শন করে হতাশা প্রকাশ করে সাংবাদিকদের ব্রিফিং করেন।

ব্রিফিংয়ে সিভিল সার্জন আবদুস সালাম বলেন, পেকুয়ায় ক্লিনিক ও হাসপাতালগুলো পরিদর্শন করি। পেকুয়া জেনারেল হাসপাতালের বিরুদ্ধে একটি মামলার বিষয়ে কর্তৃপক্ষ ও ডাক্তারের সাথে কথা বলে বক্তব্য রেকর্ড করেছি। অভিযোগকারীকে আসতে বলা হয়েছিল। কিন্তু না আসায় তাদের বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি। এছাড়াও সকল ক্লিনিকের মূল্যতালিকা ও প্যাথলজির গুণগতমান পরিক্ষা করা হয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বর্তমান সরকার চিকিৎসা সেবা জনগণের দূরগোরায় পৌছে দেওয়ার জন্য মফস্বলে চিকিৎসক নিয়োগ দিচ্ছেন। পেকুয়ায় চিকিৎসা সেবার মানবাড়াতে সম্ভাব্য সব করা হবে। যাদের ক্লিনিকে নিয়মাবলী ও অসঙ্ঘতি পাওয়া যাবে তাদের নিবন্ধন দেওয়া হবেনা। আরেক প্রশ্নের জবাবে পেকুয়া সরকারী হাসপাতালের চিকিৎসা সেবার মানবাড়াতে চেষ্টা করা হবে জানান।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পেকুয়া জেনারেল হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কামরান জাদিদ মুকুট বলেন, আমরা হাসপাতালের নিবন্ধনের জন্য আবেদন করেছি। পরিদর্শন ছাড়া নিবন্ধন দেওয়া হয়না। তাই সম্মানীত সিভিল সার্জন আমাদের হাসপাতাল পরিদর্শন করেছে এছাড়া আর কিছুই নয়।

পেকুয়া লাইফ কেয়ার হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক দিদারুল ইসলাম বলেন, জনাব সিভিল সার্জন হাসপাতাল পরিদর্শনপূর্বক আমাদের নিবন্ধন প্রদান করবেন। প্যাথলজির গুণগতমান ও মূল্যতালিকা আমরা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সিভিল সার্জন মহোদয়কে দেখিয়েছি।

ডাক্তার মুজিবুর রহমান বলেন, পেকুয়া সরকারী হাসপাতালে চিকিৎসা সেবার মান আগের চেয়ে অনেক ভাল। রোগি ভর্তি থাকে সব সময়। ডাক্তার সংকটের কারণে কিছু সময় সমস্যা হয়।