পেকুয়ায় শ্রমিক সংগঠনের আধিপত্য নিয়ে দু’পক্ষের ধাওয়া পাওয়া পাল্টা, উত্তেজনা

প্রকাশ:| সোমবার, ১০ মার্চ , ২০১৪ সময় ০৭:৪৯ অপরাহ্ণ

মূহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন, পেকুয়া থেকে
কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলায় সিএনজি-অটোরিক্সা পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের দু’পক্ষের মধ্যে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সোমবার সকালে পেকুয়া বাজারস্থ সংগঠনের কার্যালয়ে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। ওই শ্রমিক সংগঠনের একটি পক্ষ সংগঠনের কার্যালয়টি ও দখল করে নিয়েছে। এসময় পেকুয়া বাজারের ব্যবসায়ীরা আতংকে দোকান পাঠ বন্ধ করে দেয়। দু’পক্ষই মারমূখী অবস্থান নিলে পরে খবর পেয়ে পেকুয়া থানার ওসির নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নেন।
সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, পেকুয়া-চকরিয়া অভ্যন্তরীন সড়কে সিএনজি অটোরিক্সা ও পরিবহন শ্রমিক সংগঠনে দীর্ঘদিন ধরে সভাপতি পদে মো: নাছির উদ্দিন ও সাধারান সম্পাদক হিসেবে হারুনর অর রশিদ দায়িত্ব পালন করে আসছিল। দীর্ঘ ৭/৮ বছর পূর্বে তারা শ্রমিকদের ভোটে নির্বাচিত হয়েছিলেন। এরপর তাদের কমিটির মেয়াদ উর্ত্তীন হলেও তারা নানা অনিয়মের আশ্রয় নিয়ে নির্বাচন না করেই শুরু করে নানা টালবাহানা। এদিকে ওই সংগঠনের প্রতিষ্টাতা ছৈয়দুল হক দীর্ঘদিন ধরে ওই শ্রমিক সংগঠনের নির্বাচনের দাবী জানিয়ে আসছিল। ঘটনার দিন তার নেতৃত্বে ২০/২৫ জনের একদল শ্রমিক পেকুয়া বাজারের সংগঠনের কার্যালয় দখলে নিতে চেষ্টা চালায়। এখবর পেয়ে সংগঠনের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটির সভাপতি ও সাধারান সম্পাদক তাদের কিছু অনুগত শ্রমিক নিয়ে এসে তাদের কার্যালয় থেকে বের করে দেওয়ার চেষ্টা চালায়। এসময় দু’পক্ষের মধ্যে শুরু হয় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া। পেকুয়া বাজারের ব্যবসায়ীদের মাঝে ও উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পরে সকাল ১১টার দিকে খবর পেয়ে পেকুয়া থানার ওসি হাবিবুর রহমানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে উভয় পক্ষকে শান্ত করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন।
পেকুয়া সিএনজি অটোরিক্সা পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের মেয়েদোত্তীর্ণ কমিটির সভাপতি নাছির উদ্দিন ও সাধারান সম্পাদক হারুন অর রশিদ অভিযোগ করেছেন, কমিটির মেয়াদ শেষ হয়ে গেলেও জেলা শ্রমিক ইউনিয়ন তাদের দুইজনের নেতৃত্বে একটি আহবায়ক কমিটি অনুমোদন দিয়েছেন। এরপর থেকেই তারা বৈধভাবেই সংগঠনের কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। জেলা কমিটি থেকে এখানো তাদের নিার্বচন করার জন্য কোন ধরণের দিক নির্দেশনা দেয়নি বলে জানান।
অপরদিকে তাদের এ বক্তব্যের বিরোধীতা করে পেকুয়া উপজেলায় সংগঠনটির প্রতিষ্টাতা ছৈয়দুল হক জানিয়েছেন, সম্পূর্ণ নিয়ম বহির্ভূকভাবে জেলা কমিটিকে ম্যানেজ নাছির-হারুন শ্রমিকদের জিম্মি করে সংগঠনের কোন নির্বাচন দিচ্ছেনা। তারা দীর্ঘদিন ধরে দায়িত্বে থাকার সুযোগে নানা অনিয়মের আশ্রয় নিয়েছেন। কার্যালয় দখলের বিষয়ে তিনি বলেন, সংগঠনের সদস্যদের নিয়ে কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে সভা করা হয়েছে মাত্র। এখানে কার্যালয় দখলের প্রশ্নই আসেনা। এসব আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র।
পেকুয়া থানার ওসি হাবিবুর রহমান জানিয়েছেন, পেকুয়া বাজারে শ্রমিক সংগঠনের দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেওয়া হয়েছে। কাল (মঙ্গলবার) তাদের দু’পক্ষকে থানায় বৈঠকে বসতে বলা হয়েছে।