পেকুয়ায় মিথ্যা অপহরণ মামলায় নিরীহ লোকদের হয়রানীর অভিযোগ

প্রকাশ:| শনিবার, ১৫ মার্চ , ২০১৪ সময় ০৮:৪১ অপরাহ্ণ

পেকুয়া প্রতিনিধি
কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলায় মিথ্যা অপহরণ মামলা সাঁজিয়ে নিরীহ লোকদের আসামী করে হয়রানী করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। আর পুলিশ তদন্ত না করেই বাদীর কাছ থেকে মোটা অংকের উৎকোচ নিয়ে নিরীহ লোকদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অপহরণ মামলা রেকর্ড় করেছে বলে অভিযোগ করেছেন ভূক্তভোগীরা। প্রাপ্ত অভিযোগে জানা গেছে, পেকুয়া উপজেলার বারবাকিয়া ইউনিয়নের পাহাড়িয়া খালী গ্রামের প্রবাসী বেলাল উদ্দিনের স্ত্রী বুলবুল আক্তার তার শিশুপুত্র মো: রুবেলকে কথিত অপহরণের অভিযোগ এনে মিথ্যা অভিযোগ সাঁজিয়ে পূর্ব শত্র“তার জের ধরে গতকাল শুক্রবার একই এলাকার নুরুন্নবীর স্ত্রী রেজিয়া বেগম, তার পুত্র রেজাউল করিম, মাহমুদুল করিমসহ নিরীহ আরো ৮জনকে আসামী করে পেকুয়া থানায় একটি মিথ্যা অপহরণ মামলা দায়ের করে। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, গত ৮মার্চ ওই প্রবাসী বেলাল উদ্দিনের স্ত্রী তার শিশুপুত্র রুবেল (৮) কে চট্টগ্রামের এক আতœীয়ের বাসায় পাঠিয়ে দেন। এরপরেই ওই নিরীহ ব্যক্তিরা তার পুত্রকে অপহরণের অভিযোগে এনে পেকুয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগ পেয়েই পেকুয়া থানার এসআই কাইয়ুম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে অপহরণের সত্যতা পায়নি। পরে অভিযোগটি পেকুয়া থানার ওসি হাবিবুর রহমান ওই প্রবাসীর স্ত্রীর কাছ থেকে মোটা অংকের ঘুষ নিয়ে শুক্রবার মামলাটি পুনরায় তদন্ত ছাড়াই রেকর্ড় করেন। জানা যায়, গত কিছুদিন পূর্বে নুরুন্নবী গংয়ের দায়ের করা একটি মামলায় প্রবাসী বেলাল উদ্দিনের ২স্ত্রী জেল থেকে মুক্তি পান। বসতবাড়ী জবর দখলের অভিযোগে বেলাল উদ্দিনের দুই স্ত্রী ও পুত্রের বিরুদ্ধে মামলাটি করেছিলেন নুরুন্নবী গং। ভূক্তভোগী নুরুন্নবী স্থানীয় সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, তাদের মামলায় জেল খেটে এসে ক্ষিপ্ত হয়ে কথিত অপহরণের অভিযোগ এনে তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অপহরণ মামলাটি করেছেন । তিনি এ ব্যাপারে পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এ ব্যাপারে জানতে পেকুয়া থানার ওসি হাবিবুর রহমানের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে ও ফোন রিসিভ না করায় তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।


আরোও সংবাদ