পেকুয়ায় দূর্বৃত্তদের তান্ডব: বসত ঘরে অগ্নিসংযোগ-ভাংচুর,মহিলাসহ আহত ৩

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর , ২০১৩ সময় ০৭:১৩ অপরাহ্ণ

মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন, কক্সবাজার >>কক্সবাজার
কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলায় পুর্ব শত্র“তার জের ধরে বসত বাড়িতে অগ্নি সংযোগ ভাংচুরসহ তান্ডব চালিয়েছে প্রতিপক্ষের লোকজন। এ সময় তাদের বাধা দিতে গিয়ে সংঘবদ্ধ লোকজনের হামলায় এ বাড়ির মহিলাসহ ৩ জন গুরুতর আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে আতাউল (২৭)কে স্থানীয়রা উদ্ধার করে পেকুয়া হাসপাতালে ভর্তি করেছে। এ ঘটনায় এলাকায় চরম উত্তেজনা দেখা দিয়েছে।
এদিকে খবর পেয়ে পেকুয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল ১১ নভেম্বর সোমবার বিকেল সাড়ে ৪ টার দিকে উপজেলার টইটং ইউনিয়নের ভেলুয়ার পাড়া গ্রামে।
স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শী সুত্রে জানা যায়, গত কয়েক মাস ধরে জায়গার বিষয় নিয়ে এ এলাকার মৃত নেজামুল হকের পুত্র আতাউর রহমান গংদের সাথে একই ইউনিয়নের ধনিয়াকাটা এলাকার মৃত বশির আহমদের পুত্র মনজুর আলমের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। ঘটনার দিন আতাউর রহমান তার মৎস্য খামারের খাদ্য ক্রয় করার জন্য বাড়ি থেকে পেকুয়ার চৌমুহুনী আসছিল। পথিমধ্যে কাদিমা কাটা ব্রীজের উত্তর পার্শ্বে নির্জন স্থানে পৌছলে পুর্ব থেকে ওৎপেতে থাকা মনজুর আলম, তার ভাই মিয়াজান, হেলাল উদ্দিনের পুত্র সাদ্দাম, শুক্করের পুত্র কামাল হোসেন, মৃত লেদু মিয়ার পুত্র বদিউল আলমসহ ৮/১০ জনের একদল সন্ত্রাসীরা তাকে গতিরোধ করে মারধর করে। এ সময় তার কাছ থেকে নগদ ৯৫ হাজার টাকা ও একটি মোবাইল সেট ছিনিয়ে নেয়। এছাড়া উত্তেজিত লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ২য় দফা আতাউরের বাড়িতে গিয়ে হামলা চালায়। এ সময় তারা ওই বাড়ির একটি বাংলো আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেয়। এছাড়া বসত বাড়ির ঘিরা বেড়া ব্যাপক ভাংচুর ও উঠতি গাছের চারাও নষ্ট করে দেয়। এতে বাধা দেওয়ার চেস্টা করলে হামলাকারীরা হাবিবুর রহমান ও বাড়ির কাজের মেয়ে হাছিনা আক্তারকে মারধর করে আহত করে।
এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে টইটং ইউপির চেয়ারম্যান জেডএম মোসলেম উদ্দিন জানান বিষয়টি শুনেছি তবে এ ধরনের ঘটনায় আমি খুবই মর্মাহত।
পেকুয়া থানার ওসি এম মইন উদ্দিন আহমদের কাছে জানতে চাইলে তিনি ঘটনার খবর পেয়ে সেখানে দ্রুত পুলিশ পাঠানো হয়েছিল বলে জানিয়েছেন।