পেকুয়ায় ইউপি চেয়ারম্যানকে ফাঁসাতে এবার মামলাবাজদের কথিত ধর্ষণ নাটক!

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২৬ আগস্ট , ২০১৪ সময় ০৯:৩০ অপরাহ্ণ

মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে ভিকটিমের সংবাদ সম্মেলন

মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন, পেকুয়া
পেকুয়ায় ইউপি চেয়ারম্যানকে ফাঁসাতে এবার মামলাবাজদের কথিত ধর্ষণ নাটক!কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার উজানটিয়া ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এম, শহিদুল ইসলাম চৌধূরীর বিরুদ্ধে এক প্রতারক তার মেয়েকে ধর্ষণের কথিত অভিযোগের নাটক সাঁজিয়ে আদালতে মিথ্যা মামলা করেছন। এ নিয়ে এলাকায় ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। গত ১৯ আগষ্ট কক্সবাজার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করেছেন, উপজেলার উজানটিয়া ইউনিয়নের পেকুয়ার চর গ্রামের মৃত গুরা মিয়ার পুত্র নুরুল ইসলাম। এদিকে খবর পেয়ে নুরুল ইসলামের মেয়ে, ভিকটিম মরিয়ম বেগম ও তার পরিবার গতকাল মঙ্গলবার বিকালে পূর্ব উজানটিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছে। সংবাদ সম্মেলনে মরিয়ম বেগম অভিযোগ করেছেন, আমাকে ভিকটিম সাঁিজিয়ে মিথ্যা ও বানোয়াট ধর্ষণের ঘটনার নাটক রচনা করে আমার কুচক্রি পিতা নুরুল ইসলাম উজানটিয়া ইউনিয়নের জনপ্রিয় চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে গত ১৯/০৮/২০১৩ ইংরেজী কক্সবাজার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলা করায় আমি এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানচ্ছি।

মরিয়ম আরো সাংবাদিকে আরো বলেন, আমার পরিবারের অভাব অনটনের কারণে আমার মা আমাকে সাত বছর পূর্ব থেকে আজ পর্যন্ত দীর্ঘ ৬ বছর ধরে উজানটিয়া ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান ও পেকুয়া উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এম শহিদুল ইসলাম চৌধুরীর বাড়িতেই লালিত-পালিত হয়ে আসছি। চেয়ারম্যান ও তার স্ত্রী আমার মা-বাপ। তারাই আমাকে ছোট কাল থেকে মাতা-পিতার ¯েœহে লালন-পালন করে আসছিলেন। আমার পিতা নুরুল ইসলাম আমার মাতা ইউনুচ খাতুনকে কারণে-অকারণে দীর্ঘদিন ধরে নির্যাতন চালিয়ে আসছিল। আমার পিতা নুরুল ইসলাম আমার মা ও ভাই-বোনদের কোন প্রকার ভরণপোষন দেয়না। অতি কষ্টে আমার মা ভিক্ষা করে পরিবার চালান। এই অবস্থায় আমার পিতা আমার সম্মান ক্ষুন্ন করতে কথিত ধর্ষণের ঘটনার নাটক সাঁিজয়ে উজানটিয়া ইউনিয়ন পরিষদের জনপ্রিয় চেয়ারম্যান এম শহিদুল ইসলাম চৌধুরীকে আসামী করে কক্সবাজার নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনালে গত ১৯/০৮/২০১৪ ইংরেজী তারিখে একটি মিথ্যা ও চরম মানহানিকর বানোয়াট মামলা দায়ের করেছেন। যার মামলার স্মারক নং সিপি ৮০০/১৪ইং।

মরিয়ম লিখিত বক্তব্যে আরো বলেন, আমার পিতা কর্তৃক দায়ের করা ভূঁয়া মামলা সম্পূর্ণ মিথ্যা। আমার পিতাকে স্থানীয় বিএনপির সমর্থক আবুল মনছূর মো: রহিম, সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি ওসমান গণি, বিএনপি নেতা জমিস মাষ্টার ও ইউপি সদস্য শাহজামালসহ আরো কতিপয় মামলাবাজ ব্যক্তির কু-পরামর্শ দিয়ে আমাকে ভিকটিম দেখিয়ে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা করিয়েছেন। এ রকম কোন ধরনের ঘটনা চেয়ারম্যানের সাথে আমার আদৌ সংগঠিত হয়নি। চেয়ারম্যান আমাকে নিজের মেয়ের মতো লালন পালন করেন।

সংবাদ সম্মেলনে মরিয়ম বেগম আরো অভিযোগ করেছেন, চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলার কোন ধরণের ভিত্তি নেই। সংবাদ সম্মেলনে আমার মা ও উপস্থিত আছে আপনাদের সামনে। আপানার আমার মায়ের কাছ থেকে জিজ্ঞাসা করুন? আমার পিতা আমাকে ভিকটিম সাঁজিয়ে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে কিভাবে মিথ্যা মামলা করেছেন। আমি অবিলম্বে আমাকে ভিকটিম সাঁজিয়ে উজানটিয়া ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে যে ভিত্তিহীন মামলা করেছেন তা অবিলম্বে প্রত্যহার দাবী করছি। অন্যতায় এহেন ঘটনায় ভূঁয়্ ামামলা করে আমার সম্মানহানী করায় আমার পিতাকে কু-পরামর্শ দাতা ও মামলার কথিত স্বাক্ষীদের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করতে বাধ্য থাকব। সংবাদ সম্মেলনে পেকুয়ায় কর্মরত বিভিন্ন জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকার সংবাদকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।