পেকুয়ায় আওয়ামীলীগের প্রতিবাদ সভা

প্রকাশ:| শুক্রবার, ৯ অক্টোবর , ২০১৫ সময় ০৮:৪৫ অপরাহ্ণ

পেকুয়া প্রতিনিধি
পেকুয়ায় প্রতিবাদ সভায় বক্তারা বলেছেন, খুনীরা উপজেলা আ’লীগের সভাপতি সত্তর দশকের ছাত্র নেতা আ.ক.ম শাহাব উদ্দিন ফরায়েজীকে নিষ্টুর ভাবে হত্যা করেছে। এ হত্যার নিরপেক্ষ তদন্তের স্বার্থে পেকুয়ায় সেই বিতর্কিত ওসি আবদুর রকিবকে এখান থেকে অপসারন করতে হবে।
বক্তারা বলেন, ওই ওসি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়ন কালে শিবিরের সক্রিয় কর্মী ছিল। তিনি পেকুয়ায় আসার পর থেকে আইন শৃংখলা পরিস্থিতির চরম অবনতি হয়েছে। একের পর এক মানুষ খুন হচ্ছে। খুনীদের সাথে তার আঁতাত থাকতে পারে। তার পেকুয়ায় যোগদানের পর এখানে পুলিশের হাতে সবচেয়ে লাঞ্চিত ও হয়রানির শিকার হয়েছে ক্ষমতাসীন দলের শতশত নেতাকর্মী। মামলা মোকাদ্দমা হয়েছে আ’লীগ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে।
তারা বলেছেন, ওই ওসি সরকারের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন করতে কৌশলে জামাত-বিএনপির এজেন্ডো বাস্তবায়নের কাজ করছে। সেদিন ফরায়েজীকে যেভাবে হত্যা করা হয়েছে অথচ ওই ওসি প্রচার করেছেন তিনি বজ্রপাতে নিহত হয়েছেন।
বক্তারা বলেন, আমরা সরকারের অংশ। ক্ষমতাসীন দলের হয়েও ওই ওসি আবদুর রকিবের কারনে প্রশাসনের বিরুদ্ধে মুখ খোলতে হচ্ছে। ওসির দায়হীন ওই উক্তিতে প্রমানিত হয় তিনি ফরায়েজীর এ জঘন্যতম হত্যা কান্ডের ঘটনাকে ভিন্ন খাতে প্রভাবিত করার চেষ্টা করছেন।
গতকাল শুক্রবার বিকেল ৩টায় পেকুয়া চৌমুহনী চত্ত্বরে আওয়ামীলীগ ও সহযোগি সংগঠনের উদ্যোগে আয়োজিত সমাবেশে বক্তারা উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। পেকুয়া উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক মো. বারেকের সঞ্চালনায় অনুষ্টিত ওই সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, জেলা আ’লীগ মুক্তিযুদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক এড.কামাল হোসেন, সদস্য এস,এম গিয়াস উদ্দিন, চকরিয়া উপজেলা আ’লীগ সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) ছরওয়ার কামাল, সাধারন সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন চৌং চেয়ারম্যান, পৌর আ’লীগ সহ-সভাপতি ওয়ালিদ মিল্টন, পেকুয়ার সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বখতিয়ার উদ্দিন চৌং, সাধারন সম্পাদক আজমগীর চৌং, জেলা যুবলীগ সহ সভাপতি জি.এম কাসেম, টইটং ইউনিয়ন আ’লীগ সাধারন সম্পাদক জাহেদুল ইসলাম চৌং, মগনামা ইউনিয়ন আ’লীগ সভাপতি খাইরুল এনাম চেয়ারম্যান, ওলামালীগ সভাপতি শফিকুর রহমান, সদর আ’লীগ সম্পাদক বেলাল উদ্দিন, স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি ওসমান গনি, সৈনিকলীগ সভাপতি সাংবাদিক শহিদুল ইসলাম হিরু, সাধারণ সম্পাদক মো. ফারুক, বারবাকিয়া ইউনিয়ন আ’লীগ সহসভাপতি আবু ছিদ্দিক, যুবলীগ নেতা সাংবাদিক নাজিম উদ্দিন, মৎস্যজীবিলীগ সভাপতি জাকিরুল ইসলাম, প্রজন্মলীগ সভাপতি মোকতার আহমদ, সহসভাপতি কাইয়ুম রেজা, ছাত্রলীগ আহবায়ক কফিল উদ্দিন বাহাদুর, যুগ্ন আহবায়ক শহিদুল ইসলাম, শাহাব উদ্দিন ফরায়েজীর ছেলে মেহেদী হাসান ফরায়েজী। এদিকে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড থেকে প্রতিবাদ সমাবেশে আ’লীগ ও সহযোগি সংগঠন পৃথক পৃথক মিছিল নিয়ে যোগ দেয়।
এদিকে সাহাবউদ্দিন ফরায়েজি হত্যার ঘটনায় গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত কোন মামলা হয়নি।
উল্লেখ্য, গত ৬ অক্টোবর গভীর রাতে উপজেলা আ’লীগ সভাপতি আ.ক.ম শাহাব উদ্দিন ফরায়েজী দুর্বৃত্তের হাতে নৃশংসভাবে খুন হয়েছেন।