পুলিশ পরিচয়ে দুই গরু লুট, ৮রাউন্ড গুলি, আহত-২

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ১৫ নভেম্বর , ২০১৬ সময় ১০:৪৫ অপরাহ্ণ

পটিয়া প্রতিনিধি॥
পটিয়ায় পুলিশ পরিচয়ে ফিল্ম স্টাইলে দুইটি গরু লুট করে নিয়ে গেছে সংঘবদ্ধ ডাকাতদল। এসময় অজ্ঞাত ডাকাতেরা প্রায় আট রাউন্ড ফাঁকা গুলি করে পালিয়ে যায়। ডাকাতদের হামলায় গরুর মালিকসহ দুই জন আহত হয়। আহরা হলেন, মো. ইসমাইল(৩৪) ও তাজুল ইসলাম(২৭)। গত সোমবার দিবাগত রাতে উপজেলার হাবিলাসদ্বীপ হুলাইন গ্রামে ঘটনাটি ঘটে। এব্যাপারে ইকবাল হোসেন বাদী হয়ে পটিয়া থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।
স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার হালিবাসদ্বীপ হুলাইন গ্রামের আকবর চৌধুরীর ইকবাল হোসেনের দুটি গরু ও একটি বাছুর তার গোয়াল ঘরে রেখে তালাবদ্ধ করে ঘুমিয়ে পড়ে। সোমবার দিবাগত রাত আনুমানিক দুইটার সময় সংঘবদ্ধ ডাকাতদল গরু দুটি ও একটি বাছুর তালা ভেঙ্গে নিয়ে পালিয়ে যায় ডাকাত দল। গরুর মালিক ইকবাল বাইরে আওয়াজ শুনে গোয়াল ঘরে গিয়ে দেখে তালাবদ্ধ গরু আর বাছুর নেই। গরু চুরি হয়েছে বলে চিৎকার দিলে চারিদিকে লোকজন বের হয়ে অজ্ঞাত ডাকাতদলদের ধাওয়া করে। এসময় একটি নাম্বারবিহীন মাইক্রোবাস থেকে প্রায় আট রাউন্ড গুলি ছুড়ে স্থানীয় লোকজনদের দিকে। ডাকাতদলের দুই সদস্যরা ইসমাঈল ও তাজুলকে সামনে পেয়ে দুইজনকে বেদড়ক মারধর করে। এসময় একটি স্যামসাং মোবাইলটি নিয়ে গুলি ছুড়তে ছুড়তে পালিয়ে যায় ডাকাতদল। স্থানীয় ইউপি সদস্য শহীদুল ইসলাম জানান, ডাকাতদল যখম নাম্বারবিহীন মাইক্রোবাস করে চলে যাচ্ছিল ঠিক তখনই স্থানীয়রা মিলে তাদের ঘিরে ফেলার চেষ্টা করি। এসময় তারা পুলিশ দাবী করে গুলি ছুড়তে ছুড়তে পালিয়ে যায়। বিষয়টি তাৎক্ষনিক পুলিশকে জানানো হলে দ্রুত ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌছালেও ততক্ষণে ডাকাতদল গরুগুলো নিয়ে চলে যায়। থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই শাহ আলম সরকার জানায়, পুলিশের কোন সদস্য এ ধরনের কাজের সাথে জড়িত থাকতে পারে না। পুলিশের পরিচয় দিয়ে কেউ যদি এ ধরনের কর্মকান্ড করে থাকলে তাহলে এদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। গরুর মালিক ইকবাল হোসেন জানায়, গত দুই দিন আগে তিন লাখ টাকা দামে দুইটি গরু নিয়েছিলাম। এর আগে গরু চুরির ঘটনা ঘটায় গোয়ালঘরটি পাকা করা হলেও সোমবার তালা ভেঙ্গে গরু লুট করে নিয়ে যায়। স্থানীয়রা জানান, ঘটনার পর চারিদিকে আতংক বিরাজ করে। প্রতিদিন রাতে টহল পুলিশ মোতায়ন থাকার পরও মহাসড়কের পাশে এধরনের ঘটনা ঘটায় বিস্ময় প্রকাশ করেছেন অনেকে।
পটিয়া থানার ওসি রেফায়েত উল্লাহ চৌধুরী জানান, খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে গেলেও এরআগেই ডাকাতদল পালিয়ে যায়। গরু চোরদের গ্রেপ্তারে এ আগেও বেশ কয়েকবার অভিযান চালানো হলে এধরনের ঘটনা কমে যায়। হঠাৎ করে সংঘবদ্ধ চক্রটি আবার সক্রিয় হয়ে উঠেছে। তবে যারাই এঘটনার সাথে জড়িত তাদের গ্রেপ্তারের অভিযান চলছে। সোমবারের ঘটনায় পুলিশ একটি কাতুর্জ উদ্ধার করেছে বলে তিনি জানায়।


আরোও সংবাদ