পিতার দায়ের করা হত্যা মামলার বদলে অপমৃত্যু মামলা নিল পুলিশ

প্রকাশ:| শুক্রবার, ২২ আগস্ট , ২০১৪ সময় ১০:২৪ অপরাহ্ণ

শফিউল আলম, রাউজান প্রতিনিধিঃ পিংকির মৃত্যুরাউজানের চিকদাইর দক্ষিন সর্তায় এলাকায় স্বামী, দেবর, শ্বাশুরীর র্নিযাতনে নিহত অন্তঃসত্তা গৃহবধুর পিংকির মৃত্যুর ঘটনায় অপমৃত্যু মামলা নিয়েছে পুলিশ পিংকির পিতার দায়ের করা হত্যা মামলা নেয়নি পুলিশ । চট্টগ্রামের রাউজানের ৩ নং চিকদাইর ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের দক্ষিন সর্তা নবচন্দ্র সওদাগরের বাড়ীর লিটন চৌধুরী তার ভাই টিটু চৌধুরী মাতা রেবা চৌধুরী একজোট হয়ে লিটন চৌধুরীর পাচঁমাসের অন্তসত্বা স্ত্রী পিংকি মুহুরী (১৯) কে নির্মমভাবে নির্যাতন করে হত্যা করে । পিংকি মুহুরী কে হত্যা করে পিংকি আত্বহত্যা করেছে ও ডায়রিয়ায় পিংকির মৃত্যু হয়েছে এলাকায় প্রচার করেন পিংকির স্বামী লিটন চৌধুরী দেবর টিটু চৌধুরী শ্বাশুরী রেবা চৌধুরী । গত ২১ আগষ্ট বৃহস্পতিবার সকাল নয়টার সময় রাউজানের চিকদাইর দক্ষিন সর্তা নবচন্দ্র সওদাগরের বাড়ীতে এই নির্মম ঘটনা সংগঠিত হয় । ঘটনার পর পিংকির স্বামী লিটন চৌধুরী প্রকাশ বাপ্পি, দেবর টিটু চৌধুরী, শ্বাশুরী রেবা চৌধুরী পিংকির লাশ ফেলে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায় । ঘটনার সংবাদ পেয়ে রাউজান থানার এস আই খলিল ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পিংবির লাশঁ উদ্বার করে রাউজান থানায় নিয়ে আসেন । ঘটনার দিন ও রাত লাশঁ রাউজান থানায় রেখে দেয়। গতকাল ২২ আগষ্ট শুক্রবার সকালে পিংকির লাশ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করেন । গতকাল শুক্রবার ময়না তদন্ত শেষে পিংকির লাশ তার পিতা তরণ মুহরীর বাড়ী রাউজানের ডাবুয়া ইউনিয়নের কলমপতি এলাকায় নিয়ে আসলে স্বজনদের আহাজারীতে হৃদয় বিদায়ক দৃশ্যের সৃষ্টি হয় । পরে পিংকিকে তার পিতার পারিবারিক শ্বশানে দাহ করা হয় । ঘটনার ব্যাপারে নিহত পিংকি মুহুরীর মাতা শিল্পি মুহরী অভিযোগ করে বলেন, গত একবৎসর পুর্বে রাউজানের ডাবুয়া ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের কলমপতি ডাঃ সুধীর দাশের বাড়ীর তরুন মুহুরীর কন্যা পিংকি মুহুরীকে রাউজানের ৩ নং চিকদাইর ইউনিয়নের দক্ষিন সর্তা এলাকার নবচন্দ্র সওদাগরের বাড়ীর মৃত কালিপদ চৌধুরীর পুত্র লিটন চৌধুরী প্রকাশ বাপ্পি বিবাহ করেন । বিবাহের সময় পিংকির দরিদ্র পিতা তরুন এলাকার লোকজনের কাছ থেকে ধার করে পিংকির স্বামী লিটন চৌধুরীকে তিন ভরি ওজনের স্বর্ণঅলংকার, একলক্ষ টাকার ফার্নিসার, রঙ্গিন টেলিভিশন, ফ্রিজ যৌতুক হিসাবে দেয় । বিবাহের পর থেকে প্রতিনিয়ত পিংকির স্বামী লিটন চৌধুরী প্রকাশ বাপ্পি, দেবর টিটু চৌধুরী, শ্বাশুরী রেবা চৌধুরী পিংকিকে নির্যাতন করতো । পিংকি নিরবে সহ্য করে স্বামীর সংসার করার প্রচেষ্টা চালায় । ঘটনার দিন গতকাল ২১ আগষ্ট বৃহস্পতিবার সকাল আটটার সময় পিংকি ফোন করে তার মাতা শিল্পি মুহুরীকে পিংকির স্বামী লিটন চৌধুরী প্রকাশ বাপ্পি, দেবর টিটু চৌধুরী, শ্বাশুরী রেবা চৌধুরী মারধর করছে ও তাকে এসে নিয়ে যাওয়ার জন্য বলেন । পিংকি ফোন করার পর পুনরায় পিংকির মাতা শিল্পি মুহরী মেয়েকে ফোন করে কথা বলার চেষ্টা করলে পিংকির ফোন বন্দ্ব পাওয়া যায় বলে জানিয়েছেন পিংকির মাতা শিল্পি মুহরী । সকাল এগারটার সময় পিংকির স্বামী লিটন চৌধুরী ফোন করে ফিংকির মাতা শিল্পি মুহরীকে বলেন পিংকি ডায়রিয়া রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে । সংবাদ পেয়ে ফিংকির মাতা শিল্পি মুহুরী ও এলাকার লোকজন কে নিয়ে পিংকির শ্বাশুর বাড়ীতে পৌছলে পিংকির স্বামী লিটন চৌধুরী প্রকাশ বাপ্পি, দেবর টিটু চৌধুরী, শ্বাশুরী রেবা চৌধুরী বাড়ীঘর ছেড়ে পালিয়ে গেছে । পিংকির লাশ পিংকির স্বামী লিটন চৌধুরী প্রকাশ বাপ্পির ঘরের সামনে পড়ে রয়েছে । এলাকার লোকজনের চোখঁকে ফাকিঁ দিয়ে পিংকিকে হত্য করে তার লাশঁ ফেলে রেখে পিংকির স্বামী লিটন চৌধুরী প্রকাশ বাপ্পি, দেবর টিটু চৌধুরী, শ্বাশুরী রেবা চৌধুরী পালিয়ে যায় । স্থানীয় মেম্বার নজরুল ইসলাম কালন বলেন পিংকি তার শয়ন কক্ষে গলায় ওড়না দিয়ে ফাসঁ লাগিয়ে আত্বহত্যা করে। এই সংবাদ পেয়ে আমি পুলিশকে জানালে পুলিশ এসে পিংকির লাশ উদ্বার করে লাশ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করেন । পিংকির গলার বাম পার্শ্বে , হাতে পায়ে জখমের দাগ দেখা যায় । পিংকির শয়ন কক্ষে আলমিরার আয়না ভাংচুর অবস্থায় দেখা যায় । ঘটনার পর স্থানীয় মেম্বার নজুরুল ইসলাম কালনের লিখিত দেওয়া মৃত্যু সংবাদকে অপমৃত্যু মামলা হিসাবে বেকর্ড করেন পুলিশ । পিংকির পিতা তরুন মুহুরী বাদী হয়ে তার মেয়েকে যৌতুকের কারনে হত্যা করা হয়েছে মর্মে পিংকির স্বামী লিটন চৌধুরী প্রকাশ বাপ্পি, দেবর টিটু চৌধুরী, শ্বাশুরী রেবা চৌধুরীকে আসামী করে রাউজান থানায় মামলা দায়ের করা হলে ও পিংকির পিতা তরুন মুহুরীর মামলা রেকর্ড করেনি পুলিশ ।পিংকির পিতা তরুন মুহরীর দায়ের করা মামলা প্রসঙ্গে রাউজান থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ বলেন, পিংকির লাশের ময়নাতদন্ত রির্পোটে পিংকিকে হত্যা করা হয়েছে রির্পোট পাওয়া গেলে পিংকির পিতার দায়ের করা মামলা রেকর্ড করা হবে । আদরের কন্যা পিংক মুহরীর লাশ গতকাল শুক্রবার পিতার বাড়ী রাউজানের কলমপতিতে নিয়ে আসলে এলাকার শত শত মানুষ জড়ো হয়ে পিংকি মুহরীর পিতা মাতা ও স্জনদের কান্নায় এলাকার লোকজন ও কাদঁতে দেখা যায় । পিংকির পিতা তরুন মুহরীূ কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন আমার মেয়ের হত্যা কারীরা হত্যাকান্ডকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে পিংকি আত্বর্হত্যা করেছে বলে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে । হত্যাকান্ডকে ধামাচাপা দিতে মোটা অংকের টাকা দিয়ে এলাকার প্রভাবশালী মহলকে দিয়ে হত্যাকে আর্ত্বহত্যা করেছে মর্মে ঘটনাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার প্রচেষ্টায় মেতে উঠেছে ।


আরোও সংবাদ