পাহাড়ে বৈসাবী উৎসব

প্রকাশ:| শনিবার, ১১ এপ্রিল , ২০১৫ সময় ০৭:০৯ অপরাহ্ণ

এম.নাজিম উদ্দিন,রাঙামাটিঃ পুরাতন বছরকে বিদায় ও নতুন বছরকে বরণ করতে বাংলা চৈত্র সংক্রান্তিতে পাহাড়ের আদিবাসীরা মেতেছে বৈসাবী উৎসবে। নতুন সাজে সেজেছে পার্বত্য জনপথ। পাড়া মহল্লায় পড়েছে সাজ সাজ রব। এবারে ও জুম ঈসথেটিকস কাউন্সিল (জাক) এর উদ্যোগে আদিবাসী সংস্কৃতি মেলা আয়োজন করা হয়েছে। এতে আদিবাসীদের ঐতিহ্যবাহী নাচ-গান,নাটক মঞ্চায়িত হচ্ছে । অন্যদিকে পুরো মাঠ জুড়ে বসেছে বিভিন্ন ষ্টল। সেখানে প্রদর্শিত হচ্ছে আদিবাসীদের ঐতিহ্যবাহী পোষাক,অলংকার সামগ্রী এবং পিঠা উৎসব। পাহাড়ে পক্ষ ব্যাপী চলছে নানা আয়োজন। উৎসব প্রিয় আদিবাসীরা সারা বছর মেতে থাকেন নানান অনুষ্ঠানে। তবে তার সবকিছুকে ছাপিয়ে যায় চৈত্র সংক্রান্তির বৈসাবি উৎসব এর মাধ্যমে। বৈসাবীকে কেন্দ্র করে তিনদিন ধরে উৎসব করার কথা থাকলেও তা চলবে সপ্তাহ ধরে। আদিবাসী সংস্কৃতি মেলা, ঐতিহ্যবাহী আদিবাসী বৈসাবীখেলাধূলা, নদীতে ফুল ভাসানো, বয়স্ক ¯œান আর পানি খেলার মধ্যে দিয়ে চলবে এ উৎসব। পার্বত্য এলাকায় আদিবাসীদের সংস্কৃতি তুলে ধরতে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র আদিবাসীদের এক কাতারে নিয়ে আসতেই প্রতিবছর এই আদিবাসী সাংস্কৃতি মেলার মুল আয়োজন। চৈত্র সংক্রান্তির আগের দিনকে বলা হয় ফুল বিজু। উৎসবের প্রথম দিনে চাকমা, ত্রিপুরা ও মারমারা বন থেকে ফুল আর নিমপাতা সংগ্রহ করে সেই ফুল দিয়ে ঘর সাজায় ও মা গঙ্গার উদ্দেশ্যে নদীতে ফুল ভাসায়। আর চৈত্র সংক্রান্তির দিনকে বলা হয় মুল বিজু। ঘরে ঘরে রান্না হয় ঐতিহ্যবাহী খাবার পাচন। তা দিয়ে দিন ভর চলে অতিথি আপ্যায়ন। উৎসবের তৃতীয় দিনে রাখাইন,মারমা সম্প্রদায় উদযাপন করে ঐতিহ্যবাহী পানি খেলা উৎসব। এর মধ্যে দিয়ে শেষ হবে এই বৈসাবী উৎসব। বৈসাবি উৎসব এর আনন্দ উচ্ছাস পাহাড়ের আদিবাসীসহ অন্যান্য সম্প্রদায়ের সকল মানুষের মধ্যে বয়ে যাবে এমন প্রত্যাশা সকলের।


আরোও সংবাদ