পাহাড়খেকোদের ‘জাতীয় শত্রু’

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ১২ জুন , ২০১৮ সময় ১২:৪৪ পূর্বাহ্ণ

পরিবেশ ধ্বংসকারী পাহাড়খেকোদের ‘জাতীয় শত্রু’ আখ্যায়িত করে তাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সাধারণ মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন খেলাঘর চট্টগ্রাম মহানগরীর সভাপতি ডা. একিউএম সিরাজুল ইসলাম।

সোমবার (১১ জুন) বিকেলে প্রবল বর্ষণের মধ্যে ২০০৭ সালের এ দিনে পাহাড়ধসে নিহতদের স্মরণে আয়োজিত প্রদীপ প্রজ্বালন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ আহ্বান জানান।

চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এ কর্মসূচির আয়োজন করে পরিবেশবাদী নাগরিক আন্দোলন পিপলস ভয়েস, কারিতাস চট্টগ্রাম অঞ্চল ও বাংলাদেশ নারী প্রগতি সংঘ (বিএনপিএস)।

অনুষ্ঠান থেকে থেকে অবিলম্বে পাহাড় কাটা বন্ধ, অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ, পাহাড় রক্ষা কমিটির সব সুপারিশ বাস্তবায়ন, পাহাড়খেকোদের বিরুদ্ধে মামলা ও গ্রেফতার করে বিচার শুরুর দাবি জানানো হয়।

১১ জুনকে জাতীয় পাহাড় রক্ষা দিবস ঘোষণার দাবিতে আয়োজিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. একিউএম সিরাজুল ইসলাম বলেন, চট্টগ্রামের পাহাড়খেকোদের কারণে প্রতিবছর অসহায় মানুষের প্রাণহানি ঘটে। গত বছর রাঙামাটিতে ভয়াবহ পরিবেশ বিপর্যয়ের কারণও পাহাড় কাটা। শতাধিক মানুষ মারা গেলো। অথচ সেখানেই আবার মানুষ বসবাস করছে। কক্সবাজারে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ার নামে শত শত পাহাড় নির্বিচারে কাটা হয়েছে। এভাবে আমাদের পরিবেশের ভয়াবহ ক্ষতিসাধন করা হচ্ছে। বছরের পর বছর ধরে এসব বিষয়ে আশ্বাস দিয়ে প্রশাসন কিছুই করেনি। এখন সাধারণ মানুষের ঐক্য দরকার। একমাত্র ঐক্যবদ্ধ জনতার লড়াই ও প্রতিরোধই পারে পাহাড়খেকোদের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করতে। পাহাড় রক্ষায় ১১ জুনকে জাতীয় পাহাড় রক্ষা দিবস ঘোষণা করতে হবে।

প্রকৌশলী দেলোয়ার মজুমদার বলেন, প্রশাসন পাহাড় রক্ষার নামে প্রহসন শুরু করেছে। ২০০৭ সালে এত বেশি প্রাণহানির পর গত ১২ বছরে মাত্র ১৮ বার বৈঠক করেছে। মানে যেবার বিপর্যয় বেশি হয়েছে সেবার বছরে দু’বার আর অন্য বছর একবার করে বৈঠক করেই দায়িত্ব সেরেছে। পাহাড়ে বসবাসকারী দরিদ্র মানুষগুলোকে উচ্ছেদের নামে তারা প্রতি বর্ষায় নাটক করে। অথচ পাহাড় দখল করে যারা ঘর-বাড়ি নির্মাণ করে সেই দুর্বৃত্তদের