পাহাড়ের চূড়ায় নগ্ন হয়ে ছবি তোলার দোষ স্বীকার

প্রকাশ:| শুক্রবার, ১২ জুন , ২০১৫ সময় ১১:২৬ অপরাহ্ণ

পাহাড়ের চূড়ায় নগ্ন হয়ে ছবি তোলার দোষ স্বীকারমালয়েশিয়ায় একটি পাহাড়ের ওপর নগ্ন হয়ে ছবি তুলে জনসমক্ষে বিরক্তিকর আচরণের জন্যে অভিযুক্ত চারজন বিদেশি পর্যটক আদালতের কাছে নিজেদের দোষ স্বীকার করেছেন।
স্থানীয় লোকজনের কাছে এই মাউন্ট কিনাবালু পবিত্র একটি পর্বত বলে বিবেচিত।

এখন তারা অপেক্ষা করছেন তাদেরকে কি সাজা দেওয়া হয় সেটা জানার জন্যে।

এদের মধ্যে একজন ব্রিটিশ, দু’জন কানাডার এবং অন্যজন ডাচ নাগরিক।

এরাসহ আরো ছ’জনের একটি দল ওই পাহাড়ের ওপর উঠে ছবি তুলেছিলো। আর ৫ দশমিক ৯ মাত্রার একটি ভূমিকম্পের জন্যে দায়ী করা হয়েছিলো এই ছবি তোলার ঘটনাকে।

এই চারজনই কোটা কিনাবালু ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে তাদের অপরাধ স্বীকার করেছেন তবে সরকারি কৌঁসুলিদের পক্ষ থেকে আনা আরো কিছু অভিযোগ তারা অস্বীকার করেছেন।

কৌঁসুলির বলছেন, সূর্যোদয় উপভোগ করার জন্যে এই গ্রুপটি গত ৩০শে মে মাউন্ট কিনাবালুর চূড়ায় উঠেছিলো।

নেমে আসার আগে তারা একজন আরেকজনকে কাপড় খুলে নগ্ন হতে বলে। কিন্তু স্থানীয় গাইড তাতে আপত্তি জানায়। তাদেরকে বলা হয় যে এই আচরণ যথাযথ হবে না। তখন ওই গাইডকে ‘চুপ কর’, ‘জাহান্নামে যাও’ বলে গালাগাল করা হয়েছে বলে কৌঁসুলির অভিযোগ করেছেন।

বিচারক জানতে চান এসব অভিযোগ সত্য কীনা তখন তাদের কেউ কেউ মাথা নেড়ে সত্যতা স্বীকার করেন।

এখন অভিযুক্তদেরকে তাদের আইনজীবীদের সাথে আলোচনার জন্যে সময় দেওয়া হয়েছে।

এই খবরটি কভার করতে বহু সংবাদকর্মী আদালতের সামনে উপস্থিত ছিলেন। অভিযুক্তরা তখন মুখ ঢেকে আদালতে আসেন।

বিবিসির সংবাদদাতা বলছেন, এই ঘটনায় সাধারণ লোকজনের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে কারণ তাদের অনেকেই বিশ্বাস করেন যে মাউন্ট কিনাবালু একটি পবিত্র পর্বত।

তারা মনে করেন যে মানুষের মৃত্যুর পর তার আত্মা ওই চূড়াতে বিশ্রাম নিতে যায়।

পর্যটকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ হচ্ছে তারা ওই চুড়াতে গিয়ে নগ্ন হয়ে, প্রস্রাব করে পাহাড়টিকে অসম্মান করেছেন।

গত শনিবার ওই এলাকায় এক ভূমিকম্পে ১৮ জন নিহত হয়।
– বিবিসি বাংলা


আরোও সংবাদ