পাঁচ কোটি টাকার ফুল গেছে যশোর থেকে

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ১৩ ফেব্রুয়ারি , ২০১৮ সময় ১২:৪০ অপরাহ্ণ

যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার পানিসারা গ্রামের মাঠে গোলাপ কাটায় ব্যস্ত এক ফুলচাষি এহসান মিথুনযশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার পানিসারা গ্রামের মাঠে গোলাপ কাটায় ব্যস্ত এক ফুলচাষি এহসান মিথুনবাঙালির বসন্তবরণ ও বিশ্ব ভালোবাসা দিবসের আগের দুই দিনে যশোরের গদখালীর পাইকারি ফুলের বাজার থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে অন্তত পাঁচ কোটি টাকার ফুল গেছে। আর পয়লা বসন্তে গতকাল বৃহস্পতিবারও প্রায় ২০ লাখ টাকার ফুল বিক্রি হয়েছে।
গদখালী ফুলচাষি ও ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সভাপতি আবদুর রহিম প্রথম আলোকে বলেন, গদখালীর ৪০ শতাংশ ফুল ঢাকা ও চট্টগ্রাম এবং ৬০ শতাংশ ফুল চালানের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের ছোট-বড় বাজারে পাঠানো হয়। ওই সব চালানের হিসাব অনুযায়ী গত মঙ্গল ও বুধবার পাঁচ কোটি টাকার ফুল বিক্রি হয়েছে।
বসন্তবরণ ও ভালোবাসা দিবস সামনে রেখে এবার যশোরের কৃষকেরা ফুলের ভালো দাম পেয়েছেন বলেও উল্লেখকরেন আবদুর রহিম।
সরেজমিনে গদখালী বাজারে গিয়ে প্রতিটি গোলাপ ৯-১০ টাকা, জারবেরা ১৫-১৬ টাকা, গ্লাডিওলাস তিন থেকে ছয় টাকা, রজনীগন্ধা পাঁচ থেকে ছয় টাকা এবং গাঁদা প্রতি হাজার দেড় থেকে ২০০ টাকা দরে বিক্রি হতে দেখা গেছে।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের যশোর কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এ বছর যশোর জেলায় ৫৯৩ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের ফুলের চাষ হয়েছে। এর সঙ্গে জড়িত রয়েছেন মোট নয় হাজার ২০ জন কৃষক।
অন্যদিকে কৃষি বিভাগের তথ্যের সঙ্গে দ্বিমত প্রকাশ করে গদখালী ফুলচাষি ও ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সভাপতি বলেন, এক হাজার ৪০০ থেকে ৫০০ হেক্টর জমিতে এবার ফুলের চাষ হয়েছে। আর ফুল চাষে সম্পৃক্ত আছেন সাড়ে চার হাজার কৃষক।
গত তিন দিনে গদখালী বাজারে কাকডাকা ভোরেই চাষিরা প্রচুর পরিমাণে গোলাপ, গাঁদা, জারবেরা, রজনীগন্ধা, গ্লাডিওলাস প্রভৃতি ফুল নিয়ে আসেন। বাজারে জায়গা না হওয়ায় তাঁদের অনেককেই আবার ফুল নিয়ে যশোর-বেনাপোল সড়কের ওপরও বসতে হয়। তবে সকাল নয়টার মধ্যেই সব ফুল কিনে ব্যবসায়ীরা ট্রাক কিংবা বাসের ছাদে করে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের বাজারে নিয়ে যান বা পাঠিয়ে দেন। বাঙালির বসন্তবরণ উৎসব ও বিশ্ব ভালোবাসা দিবস সামনে রেখে প্রতিবছরই যশোর অঞ্চলের ফুলচাষি ও ব্যবসায়ীদের আগাম প্রস্তুতি থাকে।
এদিকে যশোর অঞ্চলের চাষি ও ব্যবসায়ীদের কাছে ফুলের আবাদ ও ব্যবসা এখন বেশ লাভজনক বলে জানা গেছে।
ঝিকরগাছা উপজেলার পানিসারা গ্রামের চাষি আমিনুর রহমান গত দুই দিনে দুই লক্ষাধিক টাকার শুধু জারবেরা ফুল বিক্রির তথ্য জানিয়ে প্রথম আলোকে বলেন, ‘হরতাল-অবরোধের কারণে গত কয়েক মাস লোকসান গুনতে হয়েছে। আশা করছি, বেচাবিক্রির যে ভাব তা অব্যাহত থাকলে ক্ষতি অনেকটা পুষিয়ে নেওয়া যাবে।’
উল্লেখ্য, যশোর শহর থেকে প্রায় ২০ কিলোমিটার পশ্চিমে ঝিকরগাছা উপজেলার গদখালী বাজার। দেশে ফুলের চাহিদার একটি বড় অংশ পূরণ করে থাকেন এই অঞ্চলের কৃষকেরা।