পশু কোরবানির পর এর মাংস সংরক্ষণ

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর , ২০১৩ সময় ১০:১৬ অপরাহ্ণ

গরুর মাংস ‍১কোরবানির ঈদে মুসলাম ধর্মের মানুষ গরু, ছাগল ও মহিষ ইত্যাদি কোরবানি দিয়ে থাকে। পশু কোরবানির পর এর মাংস সংরক্ষণ করার প্রয়োজন হয়। কারণ একদিনেইতো আর এতো মাংস খাওয়া সম্ভব না। তবে সংরক্ষণের জন্য জানা চাই সঠিক পদ্ধতি।

গরুর মাংসে ১৫ থেকে ২৫ শতাংশ প্রোটিন থাকে, যা অত্যন্ত উচ্চ মানের। এছাড়া এই মাংসে লৌহ, ফসফরাস ও ভিটামিন ডি থাকে। সঠিক উপায়ে মাংস সংরক্ষণ না করলে এসব উপাদান নষ্ট হয়ে যাওয়ার সম্ভবনা থাকে। আর সঠিক উপায়ে মাংস সংরক্ষণ করলে দীর্ঘদিন তা ভালো থাকবে। বাংলামেইলের পাঠকদের জন্য আজকের আয়োজনে রইলো সঠিক উপায়ে মাংস সংরক্ষণের কিছু উপায়।

১০০ সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রায় মাংস সেদ্ধ করলে মাংসের ভেতরের অন্যান্য জীবাণু মরে যায়। এর ফলে গরমকালে ১২ ঘণ্টা এবং শীতকালে ২৪ ঘণ্টা মাংস ভালো থাকে। মাংস ভালোভাবে সেদ্ধ করার পর ঠাণ্ডা করে ফ্রিজে রাখা ভালো।
পশু জবাইয়ের অন্তত তিন থেকে চার ঘণ্টা পর্যন্ত মাংস শক্ত থাকে। সে সময় কোনোভাবে মাংস রেফ্রিজারেটরে রাখা ঠিক না। তিন থেকে চার ঘণ্টা পর মাংস শক্ত থেকে নরম হলে তারপর মাংস রান্না কিংবা রেফ্রিজারেটরে রাখা উচিৎ।
মাংস কেটে পরিষ্কার করে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে ছোট ছোট প্যাকেট করে রেফ্রিজারেটরে রাখতে হবে। তবে মাংসে লবণ, ভিনেগার, মসলা মাখিয়ে রেফ্রিজারেটরে রাখলে ভালো থাকে দীর্ঘদিন।
কাঁচা মাংস রেফ্রিজারেটরে রাখতে চাইলে ১৮ থেকে ২২ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড তাপে বরফ করে রাখতে হবে। এতে মাংস ভালো থাকবে দীর্ঘদিন।
এছাড়া খুব কড়া রোদে মাংস শুকিয়ে রাখা যায়।