‘‘পরিচ্ছন্ন ও আধুনিক প্রযুক্তি সমৃদ্ধ নগরী গড়া মেয়রের ভিশন’’

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২ ফেব্রুয়ারি , ২০১৬ সময় ১১:০৩ অপরাহ্ণ

মেয়রের ভিশনচট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীনের ভিশন চট্টগ্রাম শহরকে সবুজ, পরিচ্ছন্ন এবং আধুনিক প্রযুক্তি সমৃদ্ধ নগরীতে পরিনত করতে The Innovation Solution Limited এবং এক্সটেনসীভ মিডিয়া মেয়র বরাবরে একটি করে প্রস্তাবনা উপস্থাপন করেন। ০২ ফেব্রুয়ারী মঙ্গলবার রাতে, নগর ভবনের তৃতীয় তলায় সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন গঠিত প্ল্যানিং সেলের সভায় সিটি মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন এর অনুমোদনক্রমে উক্ত প্রস্তাবসমূহ পেশ করা হয়। এছাড়াও স্থপতি সোহেল মোহাম্মদ শাকুর নগর ভবনের একটি প্রস্তাবনা পাওয়ার পয়েন্টে উপস্থাপন করেন। সভায় সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন। The Innovation Solution Limited Gi cwiPvjK gywReyi ingvb Zuvi cÖ¯Ívebvq Mid-Island & Foothpath Beautification, Beautification at airport Road, Solar panel Wifi Bus stop with Information Desk & Toilet, Flyover Beautification at GEC, Flyover Beautification, Sculpture with fountain at Tiger pass, Sculpture with Fountain at Jamalkhan, Dancing Fountain at Probortok, Musical Dancing Fountain with Eternal Flame At M A Aziz Stadium, Sculpture at Karnaphuly Bridge, Sculpture with Fountain At GEC, Sculpture with Fountain at Kazir Dewri, Sculpture With Fountain at Oxygen, Dancing fountain at New Market, Sculpture with Fountain at GPO, Kotowaly, Sculpture at Airport, Dancing Fountain At Airport Entrance, New Techonology LED HD Scroller, Solar Panel HD Scroller with Bin-Box ইত্যাদি সচিত্র প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন। তাঁর উপস্থাপিত প্রস্তাবনায় বলা হয়, নকশা অনুযায়ী আধুনিক ডিজিটাল যাত্রী ছাউনী স্থাপন, যাহাতে সোলার প্যানেল দ্বারা বিদ্যুতের ব্যবস্থা, ওয়াই-ফাই সিষ্টেমের মাধ্যমে ইন্টারনেট সুবিধা, ইনফরমেশন ডেস্ক, যাত্রীদের জন্য পানীয় ও জরুরী মোবাইল রিচার্জ এবং প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে টয়লেটের সু-ব্যবস্থা থাকিবে। চট্টগ্রাম শহরে নির্মিত বহদ্দারহাট ফ্লাই ওভার, কদমতলী ফ্লাই ওভার, দেওয়ানহাট ফ্লাই ওভার, নির্মানাধীন আখতারুজ্জামান ফ্লাই ওভার এবং নির্মিতব্য লালখান বাজার থেকে বিমান বন্দর এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে সমূহে সংযুক্ত নকশা অনুযায়ী সৌন্দর্য্য বর্ধিত করন, যাহাতে ফ্লাই ওভারের নিম্নাংশে সবুজায়ন, পুষ্পায়ন, ভাষ্কর্য্য স্থাপন, বিভিন্ন রং,লাইটিং এবং ফ্লাইওভারের ওপরের লাইটপোস্ট সমূহে সহনীয় ওজনের পুষ্পঝার স্থাপন। চট্টগ্রাম শহরকে আধুনিক পরিচ্ছন্ন শহরে রূপ দেওয়ার নিমিত্তে সড়ক সমূহে সংযুক্ত নকশা অনুযায়ী সৌন্দর্য্য বর্ধনে রাস্তার মিডিয়ানে লাইটপোস্টের সাথে পুষ্পঝার স্থাপন ও পথচারীদের সহজ সুবিধা নিশ্চিত করনের লক্ষ্যে সোলার প্যানেল দ্বারা আলোকিতকরন ও সহজে পরিষ্কার যোগ্য ডাষ্টবিনসহ বিভিন্ন ডিজিটাল লাইটবক্স স্থাপন ও চৌরাস্তার মোড়ে ফুটপাতের বাহিরের ফাঁকা জায়গায় সবুজায়ন ও পুষ্পায়ন করিয়া বিভিন্ন পরিমানের এল ই ডি ও এইচ ডি স্ক্রলার সাইন স্থাপন এবং চট্টগ্রাম শহরের গুরুত্বপূর্ন সড়ক মোড় ও সড়কদ্বীপ সমুহে সংযুক্ত নকশা অনুযায়ী নান্দনিক ফোয়ারাসহ ভাষ্কর্য্য স্থাপন। এছাড়াও এক্সটেনসীভ মিডিয়া এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সরোজ বড়–য়া রাস্তার মির্ডআইলেন্ড সৌন্দর্য বর্ধন, চট্টগ্রাম ক্লাবের বিপরীত পার্শ্বে দেওয়ালে ভিজুয়াল টেরাকোটা নির্মান, যাতে আমাদের চট্টগ্রামের কৃষ্টি, ঐতিহ্য, সংস্কৃতির চিত্র প্রকাশ পাবে, দেওয়াল, গোলচত্বর এবং ত্রিভুজ আকৃতির স্থানে বিউটিফিকেশান, লেন্ডস্কেপ, সৌন্দর্যবর্ধনকারী টব, মিড আইলেন্ড সবুজায়ন ইত্যাদি প্রস্তাবনার উপর সচিত্র প্রতিবেদন পাওয়ার পয়েন্টে উপস্থাপন করেন। সভায় স্থপতি তসলিম উদ্দিন চৌধুরী, আই ই বি চট্টগ্রাম কেন্দ্রের ভাইস চেয়ারম্যান প্রকৌশলী আবদুর রশিদ, সাবেক চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মোহাম্মদ হারুন, প্রকৌশলী আলী আশরাফ, প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেন মজুমদার, প্রকৌশলী সুভাষ বড়–য়া, স্থপতি জেরিনা হোসাইন, স্থপতি ইনষ্টিটিউট চট্টগ্রাম কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক স্থপতি সোহেল মোহাম্মদ শাকুর, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাধারন সম্পাদক মহসিন চৌধুরী, বি আই পি চট্টগ্রাম চ্যাপ্টারের সেক্রেটারী মো. আবু ঈসা আনছারী,চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মোহাম্মদ শফিউল আলম, মেয়রের একান্ত সচিব মোহাম্মদ মঞ্জুরুল ইসলাম, প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ স্থপতি এ কে এম রেজাউল করিম, তত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. রফিকুল ইসলাম, আনোয়ার হোছাইন, মো.মাহফুজুল হক, নির্বাহী প্রকৌশলী মনিরুল হুদা,আবু ছালেহ, কামরুল ইসলাম, সহকারী প্রকৌশলী হারাধন আচার্য, সহকারী নগর পরিকল্পনাবিদ স্থপতি আবদুল্লাহ আল ওমর, সহকারী প্রকৌশলী মঞ্জুরুল হক তালুকদার সহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন। সভার সভাপতি সিটি মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, চট্টগ্রামকে নান্দনিকতায় গড়ে তোলা হবে। বিশ্বে চট্টগ্রাম হবে একটি মডেল ক্লিন ও গ্রিন সিটি। প্রসঙ্গক্রমে মেয়র বলেন, ২২ আগষ্ট ২০১৫খ্রি. থেকে নগরীর সৌন্দর্য বর্ধনে নাগরিক সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে প্রচার কার্যক্রম অব্যাহত আছে। তিনি বলেন ১ সেপ্টেম্বর ২০১৫খ্রি. থেকে রাতে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা চালু করা হয়েছে । এ বিষয়ে নাগরিকদের সহযোগিতা দৃশ্যমান। তিনি বলেন, আবর্জনামুক্ত, পরিচ্ছন্ন নগরী গড়ার পরিকল্পনা অনুযায়ী ঘরে ঘরে আবর্জনা সংগ্রহ কার্যক্রমের পাইলট প্রকল্প হাতে নেয়া হবে। প্রাথমিক পর্যায়ে কয়েকটি ওয়ার্ডকে পাইলট প্রকল্পের আওতায় আনা হবে। জনাব আ জ ম নাছির উদ্দীন পরিকল্পিত নগরায়ন এর উপর একটি পূর্ণাঙ্গ প্রস্তাবনা উপস্থাপনের জন্য নগর পরিকল্পনাবিদদের আহবান জানান। মেয়র বলেন, ৫৩.৩৮ জায়গার উপর দুতলা বেইসম্যান্টসহ ২৩ তলা ফ্লোর বিশিষ্ট একটি আইকন নগরভবন নির্মাণ করা হবে। নগরভবনে রেষ্টহাউজ, পাল্টিপারপাস হল, সম্মেলন কক্ষ, গ্যালারি সিষ্টেমের হলরুম সহ সিটি কর্পোরেশন এর প্রতিটি বিভাগ ও শাখার কার্যক্রম একই ভবন থেকে পরিচালিত হবে। সিটি মেয়র যানজট নিরসনে গণপরিবহন নিয়ন্ত্রন এবং ট্রাফিক ব্যবস্থা যুগোপযুগি করার লক্ষে সংশ্লিষ্টদের সাথে পরামর্শ করা হবে বলে সভাকে অবহিত করেন। জনাব আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, সর্বস্তরের নাগরিকদের স্বার্থ সংরক্ষণ করেই সিটি কর্পোরেশন জনস্বার্থে সেবা কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে অঙ্গিকারাবদ্ধ। তিনি তাঁর ভিশন বাস্তবায়নে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।