‘পটিয়া তথ্য অফিসকে আধুনিক ডিজিটাল কমপ্লেক্সে রুপান্তর করা হবে’

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ৮ সেপ্টেম্বর , ২০১৬ সময় ০৮:০৫ অপরাহ্ণ

পটিয়া তথ্য অফিস
পটিয়া প্রতিনিধি॥
পটিয়ার এমপি সামশুল হক চৌধুরী বলেছেন, ইসলাম শান্তির ধর্ম। ইসলামে সন্ত্রাস, নাশকতার স্থান নেই। যারা জঙ্গিবাদকে উসকে দিয়ে জান্নাতে যাওয়ার অপপ্রচার করে নাশকতা চালাচ্ছে তারা দেশের বিরুদ্ধে সন্ত্রাস কাজ করছে। তাই এই জঙ্গিবাদ ও নাশকতা হচ্ছে ধর্মের বিরুদ্ধে, শান্তির বিপক্ষে, উন্নয়নের বিরুদ্ধে এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে ধ্বংস করে দেওয়ার। তাই আমাদেরকে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলে সমাজে শান্তি ফিরিয়ে আনতে হবে। অনেকে বলেন কওমী মাদ্রাসা থেকে জঙ্গীর সৃষ্ঠি হয়। অথচ যেসব জঙ্গী ধরা পড়েছে সবগুলো মাম্মি ডেডি পরিবারের সন্তান। স্বাধীনতা বিরোধী চক্ররাই নারীদের ক্ষমতায়ন কেড়ে নিয়ে নারীদের দাসী বানাতে চায়। দেশ সম্পর্কে যাদের ধারণা নেই, তাদের বিপথগামী করে জঙ্গি বানাচ্ছে। এ জন্যই স্ব স্ব এলাকার সচেতন মহল, অভিভাবক, শিক্ষকসহ সকল পেশার নাগরিকদের সচেতন হওয়ার আহবান জানান।
বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টায় চট্টগ্রামের পটিয়ায় জেলা তথ্য অফিসের উদ্যোগে ও উপজেলা প্রশাসনের সহযোগীতায় অনুষ্ঠিত সন্ত্রাস, নাশকতা, জঙ্গিবাদ বিরোধী জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত বক্তব্য রাখেন।
পটিয়া উপজেলার ইউএনও আবুল হাসেমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে গণযোগাযোগ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কামরুন নাহার বলেছেন, মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। ভিশন ২০২১ সালকে লক্ষ্য করে দেশ ক্রমান্বয়ে উন্নতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। ২০২১ সালে সুবর্ণ জয়ন্তি হবে ‘সোনার বাংলা’ গড়ার প্রথম পদক্ষেপ। উন্নয়ন ঠেকাতে দেশে জঙ্গি তৎপরতা শুরু হয়েছে। সোনার বাংলা গড়তে বাঁধা দিতে একটি গোষ্টি দেশে সন্ত্রাস ও নাশকতা চালিয়ে যাচ্ছে। তথ্য প্রযুক্তির আরো আধুনিকায়ন করার প্রকল্পের আওতায় পটিয়া তথ্য অফিসকেও কমপ্লেক্সে রুপান্তর করা হবে। সমাজে জঙ্গিবাদ একটি কাঁটার মতো। সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টা থাকল এই কাঁটা দূর করতে সময় লাগবে না। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কামরুন নাহার আরও বলেন, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বেসরকারী সংস্থা, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান সহ বিভিন্ন সংগঠনে নিয়মিত জঙ্গিবাদ বিরোধী সচেতনতামূলক সভা সমাবেশ অব্যাহত রাখতে হবে। একইভাবে বিভিন্ন গণমাধ্যমে জঙ্গিবাদ বিরোধী সচেতনতামূলক প্রতিবেদন, বিজ্ঞাপন, নাটক সহ বিভিন্ন অনুষ্ঠান করতে হবে।
আলোচনায় অংশ নেন, গণযোগাযোগ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কে.এম আজিজুল হক, উপ পরিচালক রোকসানা আকতার, দক্ষিণ জেলা আ’লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী, পটিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ টিপু, পৌরসভার মেয়র অধ্যাপক হারুনুর রশিদ, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এয়ার মোহাম্মদ পেয়ারু, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আফরোজা বেগম জলি, কাউন্সিলর গোফরান রানা, পটিয়া আল জামেয়া ইসলামিয়া মাদ্রাসার সহকারী মহাপরিচালক আল্লামা আবু তাহের নদভী, পটিয়া সার্কেলের এএসপি জাহাঙ্গীর আলম, পটিয়া থানার ওসি রেফায়েত উল্লাহ চৌধুরী, শিক্ষক নেতা মাষ্টার শ্যামল দে, সাংস্কৃতিক কর্মী অধ্যাপক অভিজিৎ বড়–য়া মানু, শিক্ষক নেতা মাষ্টার শহীদুল ইসলাম অধ্যক্ষ রাজুল হোসেন, শিক্ষক নেতা মাষ্টার শহীদুল ইসলাম, মাওলানা সুফতি আলাউদ্দীন, সাংবাদিক নেতা হারুনুর রশীদ ছিদ্দিকী, ঈমাম সমিতির সভাপতি আবুল কাসেম নুরী প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে শিক্ষক-শিক্ষার্থী, সাংবাদিক, ধর্মীয় পুরোহিত, মৌলভী, এনজিও প্রতিনিধিসহ বিভিন্ন সরকারী ও আধাসরকারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।


আরোও সংবাদ