পটিয়াকে জেলা ঘোষনার দাবী

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২০ মার্চ , ২০১৮ সময় ০৮:০২ অপরাহ্ণ

বঙ্গবন্ধু ঘোষিত পটিয়াকে জেলা ঘোষনার দাবীতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করে পটিয়া জেলা বাস্তবায়ন কমিটির সংবাদ সম্মেলন
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ঘোষিত পটিয়াকে জেলা ঘোষনা পুনঃবহালের দাবীতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করে পটিয়া জেলা বাস্তবায়ন কমিটির এক সংবাদ সম্মেলন ২০ মার্চ বিকেল ৫টায় নগরীর রেস্টুরেন্টে অনুষ্ঠিত হয়। এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন পটিয়া জেলা বাস্তবায়ন কমিটির সদস্য সচিব, চট্টগ্রম জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক এড. অশোক কুমার দাশ। উক্ত সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন দক্ষিণজেলা আওয়ামীলীগনেতা, কমিটির উপদেষ্ঠা সেলিম নবী, পটিয়া জেলা বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক সৈয়দ নুরুল আবছার, যুগ্ন আহবায়ক আসিফ ইকবাল, মুক্তিযোদ্ধা ফজল আহমদ, সাংবাদিক জাকির হোসেন, অমর দত্ত, প্রভাষক সুমন দত্ত, জামাল উদ্দীন, কানুরাম দে, সুমন চৌধুরী, জয়নাল আবেদীন, শাহেদ হায়দার খান, আবদুর রাজ্জাক, সজল দাশ প্রমুখ। লিখিত বক্তব্যে পটিয়া জেলা বাস্তবায়ন কমিটির সদস্য সচিব এড. অশোক কুমার দাশ বলেন, বাংলাদেশের অন্যতম প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী তৎকালীন মহকুমা শহর বর্তমানে পটিয়া উপজেলা। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ঘোষিত বাংলাদেশের ২২টি জেলা শহরের অন্যতম হচ্ছে পটিয়া। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐকান্তিক ইচ্ছা আর দেশ উন্নয়নের অংশ হিসেবে বঙ্গবন্ধু ঘোষিত ২২টি মহাকুমা শহরের ২১টি জেলায় পরিণত হয়েছে। শুধামাত্র পটিয়া ছাড়া। সিপাহী বিপ্লবের অন্যতম সংগঠক হাবিলদার রজব আলী, আব্দুল করিম সাহিত্য বিশারদ, বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনের অগ্নিকন্যা বিপ্লবী প্রীতিলতা ওয়াদ্দাদের, মরমী গানের প্রবক্তা আষ্কর আলী পন্ডিত, ভারতীয় উপ-মহাদেশের প্রবীন কবি বিপীন বিহারী চৌধুরী, চট্টগ্রামের প্রথম দৈনিক পত্রিকার সম্পাদক মহিম চন্দ্র দাশ, বিশ্ব বিখ্যাত প্রকৌশলী ফজল আহমদ, আগর তলা ষড়যন্ত্র মামলার অন্যতম আসামী ভুপতি ভুষণ চৌধুরী প্রকাশ মানিক চৌধুরী, খ্যাতিমান শিক্ষাবিদ ও গবেষক ডা. আহমদ শরীফ, আঞ্চলিক গানের উপমহাদেশের খ্যাতিমান গীতিকার আব্দুল গফুর হালী, নুর মোহাম্মদ সাহিত্য রতœ, কবিয়াল মনিন্দ্র সরকার, কবি ত্রিদিব দস্তিদার, ভাষা সৈনিক ড. মাহফুজুল হক, সিএসপি আহসান, পুঁথিগবেষক আব্দুস সত্তার চৌধুরী, সাবেকমন্ত্রী নুরুল ইসলাম শিক্ষাবিদ মৌলভী আবদুস ছোবাহান, মৌলভী রাহাত আলী, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক সুলতান আহমদ কুসুমপুরী, বীরমুক্তিযোদ্ধা মিয়া মুহাম্মদ ফারুকী, সাবেক প্রধান বিচারপতি ফজলুল করিম চৌধুরী সহ অনেক বিখ্যাত মনিষীদের জন্মস্থান পটিয়া। এই পটিয়ায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু একাধিক সময়ে এসেছিলেন।
১৯৯১ সালে তৎকালিন বিরোধী দলীয় নেত্রী বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা পটিয়ায় সমাবেশে এসেছিলেন। আমরা বিশ্বাস করি আপনি বঙ্গবন্ধুকন্যা হিসেবে বাংলাদেশকে একটি সমৃদ্ধ রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠার জন্য বিশ্ব উন্নয়নের রোল মডেল নেত্রী হিসেবে সমাদৃত হচ্ছেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য উত্তরাধিকার হিসেবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বিশ্বনেত্রী বঙ্গকন্যা শেখ হাসিনা আপনি আজ বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংরা ও ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তাবায়ন করতে চলেছেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সকল স্বপ্ন ও চেতনা আপনি এক এক করে বাস্তবায়ন করে যাচ্ছেন। ইতিমধ্যে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারসহ আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা, বছরের ১ম দিনে প্রায় ৩৫ কোটি বই বিনামূল্যে প্রদান, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, যোগাযোগ, প্রযুক্তি, নারী উন্নয়নসহ সকল ক্ষেত্রে অভাবনীয় সাফল্য অর্জিত হয়েছে আপনার সুযোগ্য নেতৃত্বে। আমরা পটিয়া তথা দক্ষিণ চট্টগ্রামবাসীর দীর্ঘদিনের দাবী ও অধিকার হিসেবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঘোষিত পটিয়াকে আগামী ২১শে মার্চ চট্টগ্রাম দক্ষিণজেলা আওয়ামীলীগ আয়োজিত পটিয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বিশাল জন সমাবেশে পটিয়াকে জেলা ঘোষনা পূণঃবহালের দাবী জানাচ্ছি। নেতৃবৃন্দ আশাবাদ ব্যক্ত করেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিকভাবে ঘোষিত এই পটিয়াকে পূনরায় জেলা ঘোষণা করে জাতির জনকের স্বপ্ন পুরণে বিশ্ব মানবতার নেত্রী, বিশ্ব শন্তির রোল মডেল ও বঙ্গকন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নতুন দৃষ্টান্ত স্থাপন করবেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ঘোষিত বৃটিশ বিরোধী আন্দোলন সহ বাংলাদেশ সৃষ্টির সকল আন্দোলন সংগ্রামের অন্যতম সূঁতিকাগাথর প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহি ইতিহাস সমৃদ্ধ পটিয়াকে জেলা ঘোষণা পূণঃবহালের জন্য আপনাদের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মাদার অব হিউম্যানিটি বঙ্গকন্যা শেখ হাসিনা এম.পি’র প্রতি বিনীত আহবান জানাচ্ছি।


আরোও সংবাদ