‘নির্বাচনে পর্যবেক্ষকের কোনো প্রয়োজন নেই’জয়

প্রকাশ:| সোমবার, ২৩ ডিসেম্বর , ২০১৩ সময় ১১:১৪ অপরাহ্ণ

জয়প্রধানমন্ত্রীর পুত্র এবং নির্বাচনকালীন সরকারের তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজিব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, আগামী ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে। এ নির্বাচনে পর্যবেক্ষকের কোনো প্রয়োজন নেই, সে কারণেই তারা কোনো পর্যবেক্ষক পাঠাবে না।

আজ সোমবার রাত পৌনে ৯টায় শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরের ভিআইপি কনফারেন্স রুমে সজীব ওয়াজেদ জয় সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন, কমনওয়েলথ নির্বাচনে পর্যবেক্ষক পাঠাচ্ছে না। নির্বাচনের স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে পারে কিনা-এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, নির্বাচনে বিরোধী দল নেই। তাই অবজারভারেরও প্রয়োজন নেই। তারা তো বলছে না, নির্বাচন নিরপেক্ষ হচ্ছে না।

এর আগে রাত সোয়া ৮টায় এমিরেটেসের একটি বিমানে তিনি যুক্তরাষ্ট্র থেকে ঢাকায় আসেন। পরে বিমানবন্দরের ভিআইপি কনফারেন্স হলে এক সংবাদ সম্মেলনে অংশ নেন।

এসময় জয় বলেন, বিজয় দিবসের আগেই আসার ইচ্ছে ছিল কারণ এবারের বিজয় দিবসটি অন্য রকমভাবে পলিত হয়েছে। কেননা দিবসটির আগে একজন যুদ্ধাপরাধীর ফাঁসির রায় কার্যকর করা হয়েছে। আর এ রায় কার্যকর হওয়া পেছনে বড় অবদান হলো আওয়ামী লীগ এবং আমার মা শেখ হাসিনার।

তিনি বলেন, কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় কার্যকর হওয়ার পর পাকিস্তানের পার্লামেন্টে একটি নিন্দা প্রস্তাব পাস করা হয়। সে দেশের নিন্দা প্রস্তাব পাস করার পরও বাংলাদেশের দুইবারের প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া কোনো প্রতিক্রিয়া দেননি। যা বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য লজ্জার বিষয়। এ অবস্থায় কোনো দেশপ্রেমিক নেতানেত্রী চুপ করে থাকতে পারে না।

যুদ্ধাপরাধী দল জামায়াতে ইসলামী নির্বাচন করতে পারবে না বলেই বিএনপি নির্বাচনে আসেনি উল্লেখ করে জয় বলেন, অন্তর্বতীকালীন সরকারে অংশ নেয়ার জন্য বিএনপিকে অনেক অনুরোধ করা হয়েছে। হোম মিনিস্টারের পদ দেয়ারও প্রস্তাব করা হয়েছিল কিন্তু তারা আসেননি। তারা না আসলেও নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে।

তত্ত্বাবধায়ক ছাড়া নির্বাচন নিরপেক্ষ হবে না বিরোধী দলের এ অভিযোগের প্রেক্ষিতে তিনি বলেন, ইতোপূর্বে এ সরকারের অধীনে ৬ হাজার নির্বাচন হয়েছে। এসব নির্বাচনে বিরোধী দলের নেতারাই নির্বাচিত হয়েছেন। কই তারা তো পদত্যাগ করেননি। এখন বিরোধী দল নির্বাচন বয়কট করলে আমরা তাদের জোর করতে পারি না।

দশম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার পর বিরোধী দলের সঙ্গে যদি সমঝোতায় আসা যায় তবে একাদশ নির্বাচনে দ্বিতীয়বার যে নির্বাচনী খরচ হবে তা কতটুকু গ্রহণযোগ্য হবে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এ জন্য বিরোধী দলই দায়ী থাকবে।

এবার দেশে কয়দিন থাকবেন সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে জয় বলেন, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট দিতে এসেছি। পাশাপাশি নিজের মত করে নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যাব।