নির্বাচনী তামাশাকে বর্জন করায় জনগণকে অভিনন্দন-বাবুনগরী

প্রকাশ:| রবিবার, ৫ জানুয়ারি , ২০১৪ সময় ১১:৩৪ অপরাহ্ণ

নির্বাচনী তামাশাকে বর্জন করায় জনগণকে অভিনন্দন জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব মাওলানা জুনায়েদ বাবুনগরী। একই সঙ্গে অন্যায় জুলুম ও অত্যাচারের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ দৃঢ় অবস্থান জোরদার করার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, দেশের সকল রাজনৈতিক দল ও গণমানুষের দাবির প্রতি কোনরূপ তোয়াক্কা না করে ক্ষমতাসীন দল এক তরফা প্রহসনের নির্বাচনের আয়োজন করেছে। ভোটাররা তা ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছেন। আন্তর্জাতিক মহলও কোন পর্যবেক্ষক না পাঠিয়ে এই নির্বাচনের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছে। ঘরে বাইরে কোথাও এই নির্বাচনের কোন মূল্য নেই। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের পাশাপাশি এদেশের আলেম সমাজ ও কোটি কোটি তৌহিদী জনতাও এই প্রহসনের নির্বাচনকে জোরালোভাবে প্রত্যাখ্যান করেছে। প্রহসনের এই নির্বাচনকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করে ক্ষমতা কুক্ষিগত করে রাখার কোন সুযোগ নেই। তিনি অবিলম্বে সরকারের পদত্যাগ দাবি করে দলনিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন অনুষ্ঠানের আহ্বান জানান। অন্যথায় গণজোয়ারের রোষ থেকে কোন স্বৈরশাসকই রেহাই পাবে না বলে মন্তব্য করেন। হেফাজত মহাসচিব বলেন, রাজনৈতিক সংঘাত ও চলমান নিরাপত্তাহীন পরিস্থিতির শান্তিপূর্ণ সমাধানের জন্য সকল রাজনৈতিক দল, ইসলামী নেতৃবৃন্দসহ গণমানুষের দাবি ছিল তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচন আয়োজন করা। এই দাবির সঙ্গে জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক মহলও একাত্মতা পোষণ করে নানাভাবে সরকারকে বুঝানোর চেষ্টা করে। অথচ সরকারী দল কারো মতামতের প্রতি তোয়াক্কা না করে একজনের ক্ষমতা দখলে রাখার খায়েশ রক্ষা করতে দেশকে চরম অনিশ্চয়তার মুখে ঠেলে দিয়েছে। নির্বিচারে মানুষ হত্যা করে হামলা-মামলা ও জেল-জুলুম দিয়ে ত্রাসের রাজত্ত কায়েম করতে চাইছে। তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর যারা জনগণকে নিরাপত্তা দিবে, আজ তাদেরকেই অন্যায় দমন-পীড়নে নগ্ন হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। প্রতিবাদি জনমতের বিরুদ্ধে নির্বিচারে তাদেরকে গুলির হুকুম দেওয়া হচ্ছে। স্বাধীনতার পর থেকে দেশের জনগণ এতটা কঠিন নিরাপত্তাহীন পরিস্থিতির মুখোমুখি কখনো হয়নি। হেফাজত মহাসচিব বলেন,এ সংকটময় পরিস্থিতিতে দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় এবং শান্তি ও ন্যায়ের পক্ষে জনগণের ঐক্যবদ্ধ দৃঢ় অবস্থান আরো জোরদার করা অত্যন্ত জরুরী। এক তরফা প্রহসনের নির্বাচনী তামাশাকে প্রত্যাখ্যানের ন্যায় একে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করে কেউ যাতে আমাদের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও অধিকারকে ছিনতাই করতে না পারে, সে ব্যাপারে সজাগ ও সতর্ক থাকতে হবে। ঐক্যবদ্ধ জনগণের প্রতিবাদ-প্রতিরোধের মুখে ফ্যাসিবাদি শক্তির পতন হতে বাধ্য। হেফাজত মহাসচিব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, অন্যায়ভাবে ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য দেশ ও দেশের মানুষকে নিয়ে যে নির্মম খেলা শুরু করেছেন, অবিলম্বে তা বন্ধ করে পদত্যাগ করে নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের ব্যবস্থা গ্রহণ করুন। দেশকে নিয়ে এই ছিনিমিনি খেলায় মানুষ দীর্ঘ দিন চুপ করে থাকবে না। পৃথিবীর কোন শাসকই জুলুম-অত্যাচার ও গণমানুষের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে টিকে থাকতে পারেনি। এদেশের জনগণ কখনোই কঠিন আত্মত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীনতাকে নস্যাত হতে দিবে না।