নির্বাচনকালীন সরকার গঠনে সংলাপ আহ্বান

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| শনিবার, ১৩ জানুয়ারি , ২০১৮ সময় ০৮:১৫ অপরাহ্ণ

জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী যে নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের কথা বলেছেন, সে বিষয়ে আলোচনা করতে সংলাপ ডাকার আহ্বান জানিয়েছে বিএনপি।
নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের রূপরেখা এখনও হাজির না করার মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের এই প্রতিক্রিয়ায় দৃশ্যত দলটির নরম সুর ফুটে উঠল।

শুক্রবার ভাষণের পরপরই তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, এতে সঙ্কট আরও ঘনীভূত হল।

দশম সংসদ নির্বাচনে বর্জনের পরও নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবি জানিয়ে আসছে বিএনপি। দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ওই সরকারের রূপরেখা দেবেন বলে এলেও এখনও তা আসেনি।

এদিকে বিএনপির দাবি প্রত্যাখ্যান করে আসার পর সরকারের চার বছর পূর্তিতে জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে শেখ হাসিনা একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগেও ‘নির্বাচনকালীন সরকার’ গঠনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে তাতে সব দলের অংশগ্রহণের আশা প্রকাশ করেন।

নির্বাচনের বছরের শুরুতে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ নিয়ে দলের আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানাতে শনিবার সংবাদ সম্মেলনে আসেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, “প্রধানমন্ত্রী যদি আন্তরিকভাবে নির্বাচনকালীন সরকার সম্পর্কে নতুন কিছু ভেবে থাকেন, তাহলে তার উচিৎ হবে এ নিয়ে সকল স্টেক-হোল্ডারদের সঙ্গে সংলাপের উদ্যোগ নেওয়া।

“আমার দল মনে করে, একটি আন্তরিক ও হৃদ্যতাপূর্ণ সংলাপের মাধ্যমে ২০১৮ সালের নির্বাচন সম্পর্কে অর্থবহ সমাধানে আসা সম্ভব। দীর্ঘকাল যাবত সকল বিরোধী দল ও সুশীল সমাজসহ সব দলের অংশ গ্রহণে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের পদ্ধতি নির্ধারণের দাবি জানাচ্ছি।”দশম সংসদ নির্বাচনের সময় সংসদে প্রতিনিধিত্বশীল সব দলের প্রতিনিধিদের নিয়ে একটি ছোট সরকার গঠন করেছিলেন শেখ হাসিনা।

এবার কেমন হবে, তা তিনি স্পষ্ট করেননি। তাছাড়া বিএনপি এখন সংসদে নেই।

দশম সংসদ নির্বাচনের আগে নির্বাচনকালীন সরকারে বিএনপি অংশ নেওয়ার আহ্বান জানানো হলেও তারা অংশ নেয়নি। শেখ হাসিনা বলে আসছেন, অংশ নিলে বিএনপিকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় দেওয়া হত।

নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা কেমন হতে পারে, তা নিয়ে বিএনপির রূপরেখা ‘যথা সময়ে’ উপস্থাপন করা হবে বলে সাংবাদিকদের প্রশ্নে জানান ফখরুল।

তিনি বলেন, সংবিধানে নির্বাচনকালীন সরকার সম্পর্কে স্পষ্ট কোনো বিধান নাই।

 

নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের রূপরেখা এখনও হাজির না করার মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের এই প্রতিক্রিয়ায় দৃশ্যত দলটির নরম সুর ফুটে উঠল।

শুক্রবার ভাষণের পরপরই তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, এতে সঙ্কট আরও ঘনীভূত হল।

দশম সংসদ নির্বাচনে বর্জনের পরও নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবি জানিয়ে আসছে বিএনপি। দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ওই সরকারের রূপরেখা দেবেন বলে এলেও এখনও তা আসেনি।

এদিকে বিএনপির দাবি প্রত্যাখ্যান করে আসার পর সরকারের চার বছর পূর্তিতে জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে শেখ হাসিনা একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগেও ‘নির্বাচনকালীন সরকার’ গঠনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে তাতে সব দলের অংশগ্রহণের আশা প্রকাশ করেন।

নির্বাচনের বছরের শুরুতে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ নিয়ে দলের আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানাতে শনিবার সংবাদ সম্মেলনে আসেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, “প্রধানমন্ত্রী যদি আন্তরিকভাবে নির্বাচনকালীন সরকার সম্পর্কে নতুন কিছু ভেবে থাকেন, তাহলে তার উচিৎ হবে এ নিয়ে সকল স্টেক-হোল্ডারদের সঙ্গে সংলাপের উদ্যোগ নেওয়া।

“আমার দল মনে করে, একটি আন্তরিক ও হৃদ্যতাপূর্ণ সংলাপের মাধ্যমে ২০১৮ সালের নির্বাচন সম্পর্কে অর্থবহ সমাধানে আসা সম্ভব। দীর্ঘকাল যাবত সকল বিরোধী দল ও সুশীল সমাজসহ সব দলের অংশ গ্রহণে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের পদ্ধতি নির্ধারণের দাবি জানাচ্ছি।”

জাতির উদ্দেশে শুক্রবার ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

জাতির উদ্দেশে শুক্রবার ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

দশম সংসদ নির্বাচনের সময় সংসদে প্রতিনিধিত্বশীল সব দলের প্রতিনিধিদের নিয়ে একটি ছোট সরকার গঠন করেছিলেন শেখ হাসিনা।

এবার কেমন হবে, তা তিনি স্পষ্ট করেননি। তাছাড়া বিএনপি এখন সংসদে নেই।

দশম সংসদ নির্বাচনের আগে নির্বাচনকালীন সরকারে বিএনপি অংশ নেওয়ার আহ্বান জানানো হলেও তারা অংশ নেয়নি। শেখ হাসিনা বলে আসছেন, অংশ নিলে বিএনপিকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় দেওয়া হত।

নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা কেমন হতে পারে, তা নিয়ে বিএনপির রূপরেখা ‘যথা সময়ে’ উপস্থাপন করা হবে বলে সাংবাদিকদের প্রশ্নে জানান ফখরুল।

তিনি বলেন, সংবিধানে নির্বাচনকালীন সরকার সম্পর্কে স্পষ্ট কোনো বিধান নাই।

“বিদ্যমান সংবিধান অনুযায়ী যদি সংসদ বহাল রেখে দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়, তাহলে সেই নির্বাচন কখনো সুষ্ঠু হবে না। কারণ সংসদ বহাল থাকা অবস্থায় নির্বাচনকালীন সরকারও হবে বিদ্যমান সরকারেরই অনুরূপ।

“আমরা প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি, আত্মম্ভরিতা বাদ দিয়ে বাস্তবতাকে মেনে নিয়ে জনগণের শান্তি ও স্বস্তির জন্য সকল বিরোধী দলের সঙ্গে আলোচনা করে একটি নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের পরিচালনায় গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের উদ্যোগ গ্রহণ করুন।”

এক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রীকে ‘দায়িত্বশীলতার পরিচয়’ দিতে আহ্বান জানান ফখরুল।

বিএনপি সংলাপের কথা বারবার বলে এলেও শেখ হাসিনাসহ আওয়ামী লীগ নেতারা তা প্রত্যাখ্যান করে আসছেন। এক্ষেত্রে দশম সংসদ নির্বাচনের আগে আলোচনায় বসতে খালেদা জিয়াকে টেলিফোন করেও সাড়া না পাওয়াকে কারণ দেখাচ্ছেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে ফখরুল বলেন, দেশবাসী নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন চাইলেও প্রধানমন্ত্রীর ভাষণে বিদ্যমান সঙ্কট উত্তরণে কোনো স্পষ্ট রূপরেখা পায়নি।

 

“আগামী নির্বাচন সম্পর্কে তিনি যা বলেছেন, তা খুবই অস্পষ্ট, ধোঁয়াশাপূর্ণ ও বিভ্রান্তিকর। তার ভাষণ জাতিকে হতাশ, বিস্ময়-বিমূঢ় ও উদ্বিগ্ন করে তুলেছে। আমি গতকাল তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় বলেছি, প্রধানমন্ত্রীর ভাষণে সঙ্কট আরও ঘনীভূত হয়েছে।”

প্রধানমন্ত্রী উন্নয়নের যে ফিরিস্তি দিয়েছেন, তাতেও ভিন্নমত জানান বিএনপি মহাসচিব।

তিনি বলেন, “পাকিস্তানের সামরিক শাসক আইয়ুব খান তার শাসনামলের ১০ বছর পূর্তি উপলক্ষে জাঁকজমকপূর্ণভাবে উন্নয়ন দশক পালন করেছিলেন। গণতন্ত্রহীন তথাকথিত উন্নয়ন জনগণ গ্রহণ করেনি। পরিণতিতে তার মতো লৌহমানবকে গণঅভ্যুত্থানের মুখে বিদায় নিতে হয়েছে।

“বর্তমান সরকারও উন্নয়ন মেলা করছে। ভাগ্যের কী নির্মম পরিহাস পাকিস্তানি আমলের স্বৈরশাসক ক্ষমতা আঁকড়ে রাখার জন্য যে ধরনের চমকের আশ্রয় নিয়েছিল,বাংলাদেশের বর্তমান সরকারও সেই একই পথে হাঁটছে।”

“মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণে তার শাসনামলে উন্নয়নের এক চোখ ধাঁধানো বয়ান পেশ করেছেন। যার সাথে বাস্তবতার কোনো মিল নেই,” বলেন বিএনপি মহাসচিব।

গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিবের সঙ্গে ছিলেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান ও আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী।