নাৎসীদের তথ্য চেয়ে ৭০ বছর পর পোস্টারিং

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই , ২০১৩ সময় ০৭:৪৩ অপরাহ্ণ

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে ৬০ লাখ ইহুদি নিধন হয়েছে ৭০ বছর আগে। সেই নিধনযজ্ঞে অংশ নেয়া ব্যক্তিদের খুঁজে আইনের মুখোমুখি নাৎসীকরার চেষ্টা এখনও থামেনি।নাৎসীদের তথ্য চেয়ে ৭০ বছর পর পোস্টারিং
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকালীন জার্মানিতে নাৎসীদের একটি নির্যাতন কেন্দ্র।

ওই সময় ইহুদি হত্যাযজ্ঞে জড়িতদের সম্পর্কে তথ্য চেয়ে জার্মানির বিভিন্ন শহরে মঙ্গলবার পোস্টার লাগিয়েছে দেশটির নাৎসী-সন্ধানী প্রতিষ্ঠান সিমন ভিজেনথাল সেন্টার।

রাজধানী বার্লিনসহ বিভিন্ন নগরীতে আউশভিৎয-বির্কেনাউ মৃত্যুশিবিরের ভয়াবহ সাদা-কালো ছবি সম্বলিত দুই হাজার প্ল্যাকার্ড লাগানো হয়েছে। প্ল্যাকার্ডগুলোতে লেখা রয়েছে, “দেরি হয়েছে,তবে খুব দেরি নয়”।

গত প্রায় ৭০ বছর ধরে গ্রেফতার এড়িয়ে থাকা সন্দেহভাজনদের ধরতে ভিজেনথাল সেন্টারের ‘অপারেশন লাস্ট চান্স’-এর অংশ হিসেবে এ কর্মসূচি।

পোস্টারগুলোতে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকালে নৃশংসতার সঙ্গে জড়িতদের সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রদানকারীকে ৩৩ হাজার ডলার পুরস্কার দেয়ার কথাও বলা হয়েছে।

সেন্টারের ইফ্রেইম সুরফ এজেন্সি ফ্রান্স প্রেসকে (এএফপি) বলেন,”মৃত্যুশিবির বা মোবাইল ডেথ স্কোয়াডে কাজ করেছিল এমন ব্যক্তিদের সম্পর্কে তথ্য পাওয়া যাবে বলে আশা করছি।”

এভাবে অপরাধীদের বিচারের সম্মুখীন করতে তারা সক্ষম হবেন বলেও আশা প্রকাশ করেন সুরফ।

লস অ্যাঞ্জেলসভিত্তিক সিমন ভিজেনথাল সেন্টারের জেরুজালেম দফতরের প্রধান সুরফের ধারণা সম্ভাব্য ৬০ আসামি এখনো বেঁচে আছেন।

বয়সের কারণে তাদের প্রতি করুণা দেখানো উচিত নয় মন্তব্য করে তিনি বলেন, “গত ৩৩ বছর ধরে আমি নাৎসী ঘাতকদের খুঁজে বেড়াচ্ছি। এই দীর্ঘ সময়ে একজন নাৎসীকেও আমি অনুতপ্ত হতে দেখেনি।”