নারী উদ্যোক্তারা নিজেদের জন্য বিশেষ শিল্পাঞ্চল চান

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১৩ মার্চ , ২০১৪ সময় ১০:৫৩ অপরাহ্ণ

নারী উদ্যোক্তারা নিজেদের জন্য বিশেষ শিল্পাঞ্চল চান। এতে করে, তাদের বিনিয়োগ বাড়ানো সম্ভব হবে। বিশেষ শিল্পাঞ্চল চালু করতে পারলে নারীরা আরো উৎপাদনশীল খাতে বিনিয়োগ করতে পারবে। তাই সরকারকে এ ব্যাপারে এগিয়ে আসতে হবে।

নারী উদ্যোক্তা সম্মেলন ও পণ্য প্রদশর্নী-২০১৪ এ নারী উদ্যোক্তাদের এ দাবি তুলেছেন।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর রূপসী বাংলা হোটেলে দিনব্যাপী এ সম্মেলনের আয়োজন করে বাংলাদেশ ব্যাংক। দিনব্যাপী আয়োজনে বিভিন্ন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ব্যানারে ৫ শতাধিক নারী উদ্যোক্তা তাদের উৎপাদিত পণ্য নিয়ে অংশ নেন। এতে ৮০টি স্টল ছিলো।

সম্মেলনে কথা হচ্ছিল নারী উদ্যোক্তা রাবেয়া আকতারের সঙ্গে। ট্রাইকো টেক্স এর কর্ণধার তিনি। ২০০০ সালে ছোট পরিসরে। ২শ মেশিন নিয়ে যাত্রা। বিনিয়োগ মাত্র ১ কোটি টাকা।

যাত্রার ওই পর্যায়ে সঙ্গে পেয়েছিলেন বেসরকারি ব্যাংক এক্সিমকে। এর আগে তাকে ঋণের জন্য ঘুরতে হয়েছে অনেক ব্যাংকে।

এক্সিম ব্যাংক তাকে ৬০ লাখ টাকা ঋণ দেয়। বর্তমানে তার বিনিয়োগ প্রায় ৪ কোটি টাকা দাড়িয়েছে। শ্রমিক প্রায় দেড় হাজার।

এ নারী ব্যবসায়ী বাংলানিউজকে বলেন, সামাজিক প্রতিবন্ধকতার মধ্যে ব্যবসা শুরু করি। পরিবারের বিশেষ সহায়তা ছাড়া সম্ভব ছিলো না। পাশে পেয়েছিলাম এক্সিম ব্যাংককে।

রাবেয়া বলেন, নারীদের জন্য একটি বিশেষ শিল্প এলাকা গড়ে তোলা দরকার। যাতে করে আমরা পুরুষের সঙ্গে প্রতিযোগিতা আসতে পারে।

২০০৬ সালে ক্যানভাস নিয়ে ছোট পরিসরে ব্যবসা শুরু করেন ৪ বান্ধবী শায়লা শবনম, সুবর্ণা হুদা, মাহমুদা তাহের সুবর্ণা এবং নাইমা শিরিন। ১০ লাখ টাকার বিনিয়োগ আজ এক কোটি টাকা ছাড়িয়ে। রাজধানীর আজিজ মার্কেট ও মেট্রো শপিং মলে দুটি নিজস্ব শোরুম চালু করেছেন। তারাও চান একটি বিশেষ শিল্পাঞ্চল হোক নারীদের জন্য।

ফাহমিদা আকতার নিজের কারখানার সুয়েটার নিয়ে পণ্য প্রদশনীতে অংশ নিয়েছেন। তিনি বাংলানিউজকে বলেন, আমরা পুরুষের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করতে পারি না। কিন্তু আমরা মোট জনসংখ্যার অর্ধেক। সরকার একটি বিশেষ শিল্পাঞ্চল করে দিলে নারীরা আরো বেশি বিনিয়োগে এগিয়ে আসবে।

জামালুপুরের নারী উদ্যোক্তা দেলোয়ার বলেন, অর্থায়ন পাওয়াটাই যেন নারীর জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। কিন্তু আমরা যারা নারী উদ্যোক্তা তারা খেলাপি হই না। এটা বিবেচনা করতে হবে। সরকার নারী উদ্যোক্তাদের পৃষ্টপোষকতা করলে দেশ আরো এগিয়ে যাবে।

নারী উদ্যোক্তাদের এসব দাবির সঙ্গে একমত পোষণ করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান। তিনি বলেন, সরকার নারী উদ্যোক্তাদের জন্য একটি শিল্পাঞ্চল করবে এটা আমিও দাবি করছি।

অর্থায়ন ও আনুসঙ্গিক সহায়তা পেলে নারীরা নিজেরাই নিজেদের ভাগ্য পরিবর্তন করতে পারবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, নারী গৃহবধূ হয়ে থাকলে দেশ অভিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবে না।

এসএসই বিভাগের মহাব্যবস্থাপক মাসুম চৌধুরীর সভাপতিত্বে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই সভাপতি কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদ, বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর আবুল কাসেম আহমেদ, পরিচালনা পর্ষদের সদস্য অধ্যাপক হান্নানা বেগম, মেট্রোপলিটন চেম্বারের সভাপতি রোকেয়া আফজাল রহমান, ঢাকা চেম্বারের সভাপতি মো. শাহজাহান খান, আন্তর্জাতিক সহায়তা সংস্থা জাইকার প্রধান প্রতিনিধি মিকিও হাতাইদা, কেয়ারের আবাসিক প্রতিনিধি জেমি তেরজি, বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর প্রধান নির্বাহীদের সংগঠন-এবিবি’র চেয়ারম্যান আলী রেজা ইফতেখার, আর্থিক প্রতিষ্ঠান অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আসাদ খান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।


আরোও সংবাদ