নামফলক থেকে মুজাহিদের নাম মুছে দিল ছাত্রলীগ

প্রকাশ:| শনিবার, ১৬ মে , ২০১৫ সময় ১১:৫০ অপরাহ্ণ

নগরীর মুরাদপুর মোড়ে সমাজ কল্যাণ অধিদপ্তরের আঞ্চলিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে স্থাপিত যুদ্ধাপরাধী জামায়াত নেতা আলী আহসান মুজাহিদের নামের নামফলকটি কালো কালি দিয়ে মুছে দিয়েছে ছাত্রলীগ। যুদ্ধপরাধের দায়ে অভিযুক্ত আলী আহসান মুজাহিদ গত বিএনপি সরকারের আমলে সমাজকল্যাণ মন্ত্রী ছিলেন।

নামফলক থেকে মুজাহিদের নাম মুছে দিল ছাত্রলীগশনিবার নামফলকটি কালো কালি দিয়ে মুছে দেয়া হয়। এসময় নামফলকটির স্থাপনাবিশেষ আগামী তিন দিনের মধ্যে অপসারণের আল্টিমেটাম দেয় ছাত্রলীগ।

সংক্ষিপ্ত সমাবেশে নগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনি বলেন, ‘আলী আহসান মুজাহিদ একজন স্বীকৃত রাজাকার। একাত্তরে হাজার হাজার নারী পুরুষ শিশুর রক্তে যার হাত রঞ্জিত, যার নগ্ন লালসার শিকার এদেশের অগনিত মা-বোন। আর এই কুখ্যাত যুদ্ধাপরাধীর নামে এদেশের কোন সরকারী স্থাপনার নামফলক থাকা লজ্জার এবং ঘৃণার। সুতরাং ছাত্রলীগ এমন ঘৃণিত ব্যক্তির নামফলকটি কালো কালিতে মুছে দিয়ে এবং থু-থু নিক্ষেপ করে তাদের ঘৃণা প্রকাশ করতে বাধ্য হয়েছে।’

এসময় তিনি আরও বলেন, ‘খালেদা জিয়া স্বীকৃত যুদ্ধাপরাধী আলী আহসান মুজাহিদের হাতে সমাজ কল্যাণ অধিদপ্তরের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব অর্পন করার মাধ্যমে এদেশের ৩০ লক্ষ শহীদকে যেভাবে অসম্মান করেছে তার বিপরীতে আজ সময় এসেছে সে দিনের রাজাকারদেরকে ঘৃণা প্রদর্শনের মাধ্যমে সমুচিত জবাব দেওয়ার।’

চট্টগ্রামে সকল সরকারি স্থাপনা থেকে আগামী তিন দিনের মধ্যে সকল প্রকার যুদ্ধাপরাধীদের নামফলক এবং স্মৃতিস্মারক অপসারণ করার দাবি জানিয়েছে ছাত্রলীগ। অন্যথায় ছাত্রলীগ নিজ উদ্যোগে এই সকল স্তম্ভ ভেঙ্গেচুড়ে গুড়িয়ে দিতে বাধ্য হবে বলে হুশিয়ারি দেয়া হয় সমাবেশে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া দস্তগীর, সাংগঠনিক সম্পাদক খোরশেদ আলম মানিক, পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক আখতার হোসেন সৌরভ, উপ-সম্পাদক এম.এ. হালিম মিতু, আশরাফ উদ্দিন টিটু, ওমরগনি এম.ই.এস বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্রলীগ নেতা শহীদুল ইসলাম শহীদ, সৈয়দ আনিসুর রহমান, তোফায়েল আহমেদ মামুন, সুলতান মাহমুদ ফয়সাল, শেখ মুহাম্মদ শাকিল, সোহেল রানা, শাহাদাত হোসেন পারভেজ, ইমাম হোসেন ইমন, আব্দুল আল আহাদ, আবু সাঈদ মুন্না, আওরাজ ভুইয়া রনক, ফজলে রাব্বি, ওমরগণি, ঐশিক পাল জিতু, জাবেদ রহিম মুন, ইউসুফ আলী বিপ¬ব, পাঁচলাইশ থানা ছাত্রলীগ নেতা রবিউল ইসলাম খুকু, তানভীন আহমদ সেজান, তানিন ইসলাম, মিন জাহুল আদনান, সুহৃদ দত্ত, মোঃ ফরহাদ, নোমান চৌধুরী রাকিন সহ প্রমুখ।