নাট্যাধার জিয়া হায়দার নাট্যপদক পেলেন শুভ্রা বিশ্বাস

প্রকাশ:| সোমবার, ১৯ ডিসেম্বর , ২০১৬ সময় ১১:৫৯ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রামের নাট্যাঙ্গনে নাট্য চর্চায় গুরুত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতি পেলেন অভিনয় শিল্পী শুভ্রা বিশ্বাস। গ্রুপ থিয়েটার নাট্যাধার কর্তৃক প্রবর্তিত ৯ম জিয়া হায়দার নাট্যপদক পেয়েছেন এই গুণী শিল্পী। শুভ্রা বিশ্বাসের মঞ্চাভিনয়ে হাতেখড়ি হয়েছিল নবম শ্রেনীর ছাত্রী থাকাকালীন। এরপর নিজেকে শিল্পী হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করেছেন বিভিন্ন নাট্যদলে। নিপুণ অভিনয় শৈলীর দক্ষতার পাশাপাশি নাচ, গান, আবৃত্তি শিল্পে সুদক্ষ সংস্কৃতিকর্মী হিসেবে দেশের সাংষ্কৃতিক অঙ্গনে সনামে খ্যাত তিনি।

তাঁর এই দীর্ঘ নাট্যজীবনের স্বীকৃতিস্বরূপ নাট্যাধার’র পক্ষ থেকে ৯ম ‘জিয়া হায়দার‘ নাট্যপদকে ভূষিত হলেন এই গুণী শিল্পী। তিনি নাট্যনির্দেশক ও নাট্যশিল্পী শুভ্রা বিশ্বাস।

রোববার সন্ধ্যায় নগরীর থিয়েটার ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে এ পদক গ্রহণ করেন তিনি। পদক প্রদান উপলক্ষে কথামালা ও নাটক মঞ্চায়নের মাধ্যমে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করে নাট্যদল ‘নাট্যাধার’। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের থিয়েটার এন্ড পারফরমেন্স স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ইসরাফিল শাহীন, উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের শিক্ষক কুন্তল বড়–য়া, বিস্তার আর্ট কমপ্লেক্স এর পরিচালক আলম খোরশেদ, নাট্যাধার’র দল-সমন্বয়ক মাশরুজ জামান মুকুট। এছাড়া নাট্যপদকপ্রাপ্ত নাট্যজন শুভ্রা বিশ্বাস।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের থিয়েটার এন্ড পারফরমেন্স স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ইসরাফিল শাহীন বলেন, ‘সংস্কৃতিতে একটি শব্দ আছে ‘নূ-হণ্যে’। অর্থাৎ শরীর। শরীরের মরণ হয় কিন্তু ব্যক্তির চিন্তা, সৃষ্টিশীলতা, ভাবনার কোন মরণ নেই। ঠিক তেমনি জিয়া হায়দার তাঁর সৃষ্টিশীলতার মাধ্যমে যুগে যুগে বেঁচে থাকবেন।’ তিনি আরো বলেন, ‘মানুষ শিল্পী হয়ে উঠেন সাধনার মাধ্যমে। সেভাবে শুভ্রা বিশ্বাসও শিল্পী হয়ে উঠেছেন।
একটি স্বীকৃতি শুধু ব্যক্তির কাজের নয়, অন্যদের অনুপ্রাণিত করে। এগুলো আমাদের আচার। এগুলো হারিয়ে গেলে আমাদের মূল্যবোধেরও অবক্ষয় হবে।’

অনুষ্ঠানের শুরুতেই শুভ্রা বিশ্বাসকে উত্তরীয় ও সম্মাননা পদক তুলে দেন অধ্যাপক ইসরাফিল শাহীন। অনুষ্ঠানে নাট্যযুধিষ্ঠির জিয়া হায়দার ও নাট্যজন শুভ্রা বিশ্বাসের কর্মজীবন পাঠ করেন সুপ্রিয়া চৌধুরী ও দেবাশীষ রুদ্র।

পাঠ থেকে জানা যায়, জিয়া হায়দার ছিলেন একাধারে কবি, গীতিকার, নাট্যকার, নাট্যনির্দেশক, নাট্যবিষয়ক প্রাবন্ধিক ও অনুবাদক। স্বাধীনতা পূর্বকালে বিদেশ থেকে প্রথম নাট্যকলায় প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা শেষে, দেশে ফিরে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে নাট্যকলা বিষয়ে পাঠ দানের সূচনা করেন। পরবর্তীতে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের নাট্যকলা স্বতন্ত্র পাঠ্যসূচী হিসেবে চালু করেন তিনি।

কথামালার আয়োজন শেষে ভৈকম মুহম্মদ বশীরের গল্প অবলম্বনে নাটক ‘প্রেমপত্র’ মঞ্চায়ন করে ঢাকা থেকে আগত নাট্যদল ‘প্রাকৃতজন’।