নববর্ষ বরণে কক্সবাজারে

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| শুক্রবার, ১৩ এপ্রিল , ২০১৮ সময় ০৭:৪১ অপরাহ্ণ

বর্ষবরণে কক্সবাজারে বর্ণিল প্রস্তুতি. জীবনের হালখাতায় যুক্ত হচ্ছে আরও একটি বছর।

বাংলা নববর্ষকে বরণ করতে কক্সবাজার জেলার পর্যটন স্পটগুলোতে রং তুলির আঁচড় লাগছে।

বাঙালির প্রাচীন ঐতিহ্য বৈশাখ উদযাপন উপলক্ষে কক্সবাজারে আয়োজন করা হচ্ছে মেলাসহ লোকজ নানান সাংস্কৃতিক উৎসবের। রঙিন জীবনের পরশের মাঝে গ্রাম বাংলার নানা আলপনায় সাজানো হচ্ছে হোটেল-মোটেল জোনের তারকা হোটেলগুলো।

অনেক হোটেল অতিথিদের জন্য সাশ্রয়ী নানান প্যাকেজ ঘোষণা দিয়েছে। বৈশাখ বরণে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বের করা হবে মঙ্গল শোভাযাত্রা। বাড়তি নিরাপত্তার বিষয়েও ভাবছেন আইন প্রয়োগকারী সংস্থা। ইতোমধ্যে তিনস্তরের নিরাপত্তা বলয় তৈরির প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে।

পর্যটন সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, এবারও পহেলা বৈশাখ পর্যটন ব্যবসায়ীদের জন্য বাড়তি সুখবর হতে পারে। তবে অন্য বারের মতো এবার সপ্তাহিক কোনো দিনে নববর্ষের ছুটি পড়েনি। সপ্তাহিক দু’দিনের ছুটিতেই জমতে পারে বাংলা বর্ষবরণ। ফলে বাংলা বর্ষ বরণ করতে সপ্তাহিক ছুটিকে পুঁজি করেই কক্সবাজারে আসছেন ভ্রমণ পিপাসুরা। এ কারণে তারকা হোটেলসহ গেস্ট হাউস ও কটেজ এবং আবাসন প্রতিষ্ঠনগুলো আগাম বুকিং হয়ে গেছে।

ট্যুর অপারেটর অ্যাসোসিয়েশন অব কক্সবাজার (টুয়াক) এর সদস্য ও দিগন্ত ট্যুরিজমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইয়ার মুহাম্মদ বলেন, বর্ষ হিসেব মতে এখন পর্যটন মৌসুমের শেষ সময়। এ সময়ে চৈত্র-বৈশাখের দাবদাহে কক্সবাজারে পর্যটক সমাগম একেবারে কমে যায়। তবে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা থাকায় এখন পুরো বছরই কক্সবাজারে কমবেশি পর্যটক উপস্থিতি রয়েছে।

সাগরপাড়ের তারকা হোটেল ওশান প্যারাডাইস’র পরিচালক আবদুল কাদের মিশু জানান, ওশান প্যারাডাইস হোটেলই বেসরকারিভাবে সর্বপ্রথম বাংলা নববর্ষ নিয়ে পৃথক অনুষ্ঠানের সূচনা করেছিল। এটি পাঁচ বছর আগের কথা। নব সূচনার অর্ধযুগকে স্মৃতিময় করে রাখতে এবার বিগত বছরের চেয়ে আলাদা আয়োজন থাকছে।

এছাড়াও পৃথক অনুষ্ঠানের আয়োজন করছে তারকা হোটেল কক্স-টু-ডে, লংবীচ, বেস্ট ওয়েস্টার্ন, মারমেড ও ডিভাইন ইকো রিসোর্টসহ সবকটি বড় হোটেল-মোটেলে। ইনডোরে তারকা হোটেলগুলো নিজেদের মতো উৎসব আয়োজন করলেও অন্যান্য হোটেল গেস্ট হাউজগুলো প্রশাসন আয়োজিত র্যা লি ও অনুষ্ঠানে যোগ দিবে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট সূত্র।

এদিকে পর্যটকদের ভিড়ের সুযোগে কোনো দুর্বৃত্ত যাতে অঘটন ঘটাতে না পারে সেজন্য ট্যুরিস্ট পুলিশও সতর্ক রয়েছে বলে জানান কক্সবাজার ট্যুরিস্ট পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার।

তিনি জানান, পর্যটকদের চাপ বাড়ার চিন্তা মাথায় রেখে তাদের নিরাপত্তা বিধানে পর্যটন স্পটসমূহে অতিরিক্ত পুলিশ ফোর্স মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া কক্সবাজার সৈকতে নিয়ন্ত্রণ কক্ষ খুলে পর্যটকদের রাত-দিন ২৪ ঘণ্টা নিরাপত্তা বিধান করবে পুলিশ।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক বলেন, পর্যটন একটি সম্ভাবনাময় শিল্প। পর্যটনকে বিকশিত করার প্রচেষ্টা আমাদের সব সময়। এরই অংশ হিসেবে বৈশাখের বৈচিত্রময় আয়োজন থাকে কক্সবাজারে। এবারও এর ব্যতিক্রম হচ্ছে না।

তিনি আরও জানান, জেলা প্রশাসন বৈশাখ বরণে সকালে মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করবে। এরপর শহীদ দৌলত ময়দানে আয়োজন করা হবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের। জেলা শহরের প্রায় প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও পর্যটন সংশ্লিষ্টরা এতে অংশ নেবেন।


আরোও সংবাদ