নগরীতে প্রায় ৩৬৭ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ এগিয়ে চলছে

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১৯ জুলাই , ২০১৮ সময় ১০:১৬ অপরাহ্ণ


সিটি গভর্ণেন্স প্রজেক্টের (সিজিপি) অধীনে চট্টগ্রাম নগরীতে প্রায় ৩৬৭ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ পুরোদমে এগিয়ে চলছে। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে চসিক সম্মেলন কক্ষে সিজিপি কাজের অগ্রগতি সম্পর্কিত রিভিও সভায় এই তথ্য জানা যায়। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন সভায় সভাপতিত্ব করেন। এ সভায় অন্যান্যদের মধ্যে চসিক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা, প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্ণেল মহিউদ্দিন আহমেদ, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম, প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ এ কে এম রেজাউল করিম, প্রধান হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা মো. সাইফুদ্দিন, জাইকার মনিটরিং টিম লিডার শাহজাহান আলী, মো. নাঈম মোল্লা, সাজেদা বেগম, সাখাওয়াত হোসেন, সরূপ হাসনাইন, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী, নির্বাহী প্রকৌশলীসহ সংশ্লিষ্ট বিভাগসমূহের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সিজিপি কাজের আওতায় নগরীর রাস্তাঘাটে ভৌত অবকাঠামো উন্নয়নে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন এলাকার মধ্যে জাইকার ব্যাচ-১ এর ১৭টি প্রকল্পের বিপরীতে ১৬০ কোটি টাকা এবং ব্যাচ-২ তে ১১ টি প্রকল্পের বিপরীতে ২০৬ কোটি ১৪ লক্ষ ২৮ হাজার টাকার কাজ চলমান আছে। ব্যাচ-১ এর প্রকল্পের স্থানসমূহ মেরিনার্স রোড, চাক্তাই ব্রিজ, ফিসারীঘাট ব্রিজ, টেকপাড়া ব্রিজ, জাকির হোসেন রোড, ফিরোজশাহ, ফয়সলেক,ওয়ারলেস মোড় থেকে জালালাবাদ হাউজিং, ওমেন কলেজ থেকে হোটেল লর্ডস ইন, এয়ারপোর্ট সল্টগোলা থেকে প্রজাপতি পার্ক পর্যন্ত ১১ কিলোমিটার রোড, রুবি সিমেন্ট গেইট ব্রিজ, গুপ্তখাল ব্রিজ, ১৫নং ব্রিজ, ধনিরপুল ড্রাইভারশন খালের প্রতিরোধ দেয়াল নির্মাণ, সুরভী হাউজিং সোসাইটি পাশে রাস্তাসহ খালের প্রতিরোধ দেয়াল নির্মাণ শতভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। বাকী দুইটি মহেষখাল পোর্টক্লাব থেকে বিমান চত্বর পর্যন্ত প্রতিরোধ দেয়াল নির্মাণ ও বড়পুল থেকে সিডিএ ২০নং পর্যন্ত ১১শ মিটার রাস্তাসহ প্রতিরোধ দেয়াল নির্মাণ, ২৬নং ওয়ার্ডে ৪ কি.মি. রাস্তাসহ প্রতিরোধ দেয়াল ও ৩টি ব্রিজ নির্মাণ এবং ব্যাচ-২ এর প্রকল্পের স্থানসমূহ পোর্ট কানেক্টিং রোড বিমান চত্বর থেকে নয়াবাজার পর্যন্ত, আগ্রাবাদ এক্সেস রোড, দক্ষিণ বাকলিয়া সৎসঙ্গ রোড, পাথরঘাটা রবীন্দ্র নজরুল স্কুল কাম সাইক্লোন সেন্টার, লালদিঘী চসিক কেন্দ্রীয় লাইব্রেরী, পূর্ব ও পশ্চিম মাদারবাড়ী বালিকা স্কুল, পাঠানটুলী বালক উচ্চ বিদ্যালয়, হালিশহর আহমদীয়া বালক উচ্চ বিদ্যালয়, মহব্বত আলী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের কাজ চলমান রয়েছে। এ ছাড়াও এ কে খান থেকে সাগরিকা রোড পর্যন্ত ওভারপাস নির্মাণের জন্য টেন্ডার প্রক্রিয়াধীন আছে। ইতোমধ্যে ব্যাচ-১ ও ব্যাচ-২ প্রকল্পের কাজগুলো অতিদ্রুত সময়ের মধ্যে শেষ হবে। সভায় জাইকার মনিটরিং টিম লিডার মো. শাহজাহান আলী কাজের গুনগত মান সম্পর্কে সভায় তুলে ধরেন। সভায় মেয়র চলমান কাজের গুনগত মান অক্ষুন্ন রেখে নির্দিষ্ট সময়ের আগে শেষ করার নির্দেশ দেন। এতে জনভোগান্তি কমবে। এ প্রসঙ্গে মেয়র বলেন, দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা কাজের প্রতি মনোযোগী হলে কাজের গুনগত মান আরো সুনিশ্চিত হবে। তাই প্রতিটি সাইডে কর্মরত প্রকৌশলীদের প্রতিদিনের কাজের বিবরণ লক বইতে লেখার নির্দেশ দেন। এতে করে কাজের জবাবদিহীতা সুনিশ্চিত হবে। চলমান প্রকল্পের কাজ শেষ হলে চট্টগ্রাম শহরে দৃশ্যমান পরিবর্তণ সাধিত হবে। তিনি বলেন, নগরবাসীর সমস্যা নিরসন করা তাঁর নৈতিক দায়িত্ব। এ দায়িত্ব পালনে তিনি কখনো পিছ পা হবেন না বলে উল্লেখ করেন।