দেশে গণতন্ত্র নেই, গণতন্ত্র এখন কবরে- এরশাদ

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১২ নভেম্বর , ২০১৫ সময় ০৮:২৫ অপরাহ্ণ

 হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ।সাবেক প্রধান বিচারপতি সাহাবুদ্দিন আহমেদকে বেঈমান হিসেবে আখ্যায়িত করে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ বলেছেন, আমার ওপরে তিনি অনেক অবিচার করেছেন। আমার শাসনামলে যে ভালো তাঁকে বিচারক বানিয়েছি। কে বিএনপি কে আওয়ামী লীগ তা দেখিনি। বিচার বিভাগ ও নির্বাচন কমিশনে আমি হস্তক্ষেপ করিনি। এখন এসব হচ্ছে। কোথায় গণতন্ত্র? গণতন্ত্র এখন কবরে।

বৃহস্পতিবার বেলা একটায় কুমিল্লা উত্তর জেলা জাতীয় পার্টির দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

সম্মেলনে এরশাদ বলেন, কোথায় আজ নূর হোসেনের গণতন্ত্র। দেশে গণতন্ত্র নেই। একদলীয় শাসনতন্ত্র চলছে। ৮৬ বছর বয়সে আল্লাহ আমাকে বাঁচিয়ে রেখেছেন আপনাদের সেবা করার জন্য। জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় এলে কুমিল্লাকে ময়নামতি প্রদেশ ঘোষণা করা হবে।

সাবেক এই রাষ্ট্রপতি বলেন, সংলাপ ছাড়া গণতন্ত্র বেঁচে থাকতে পারে না। কিন্তু সংলাপ আর জীবনে হবে না। খালেদা জিয়া আজ সংলাপ ভিক্ষা চাচ্ছেন।

এরশাদ বলেন, ভবিষ্যতে আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টি নির্বাচন করবে। বিএনপি এখন কোণঠাসা অবস্থায় রয়েছে। বিএনপি নেত্রী কবে আসবেন কেউ জানে না। তাঁর ছেলে আসতে পারবেন না। তিনি বলেন, বিএনপির সঙ্গে ছিলাম, কিছু পাইনি। আওয়ামী লীগে আছি, কিছু পাই না। তাই ভবিষ্যতে জাতীয় পার্টি এককভাবে নির্বাচন করবে। ৩০০ আসনে প্রার্থী দেবে।

সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত বলেন, গোটা দেশ আজ মৃত্যুকূপ। দিনের বেলা প্রকাশক ফয়সল আরেফিন দীপনকে হত্যা করা হয়েছে। দেশের মানুষ নিরাপদে নেই। ঘর থেকে বের হলে মানুষ আর ফিরে আসছে না। মানুষের মধ্যে আইনের শাসন ও সহমর্মিতা না থাকার কারণে অপরাধ বেড়ে যাচ্ছে। আইনের শাসনের অভাবের কারণেই দীপন হত্যার বিচার চান না, তার বাবা। কারণ, তিনি জানেন বিচার পাবেন না। এ সরকারের ওপর মানুষের কোনো আস্থা নেই।

এরশাদ আরও বলেন, ‘আমি এমপি, আমার কাজ সংসদে আইন প্রণয়ন করা, এলাকার মানুষকে গম দেওয়া নয়।’

সকালে চান্দিনা মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় খেলার মাঠে সম্মেলন শুরু হয়। কুমিল্লা উত্তর জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি লুৎফুর রেজা খোকনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে বক্তব্য দেন পানি সম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, সাংসদ নুরুল ইসলাম মিলন, সাংসদ আমির হোসেন ও জাতীয় ছাত্র সমাজের কেন্দ্রীয় সভাপতি সৈয়দ ইফতেখার হাসান।

পরে এরশাদ কুমিল্লা উত্তর জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি হিসেবে লুৎফুর রেজা খোকন ও সাধারণ সম্পাদক পদে কুমিল্লা-২ আসনের সাংসদ আমির হোসেনের নাম ঘোষণা করেন।