দেশে এক ব্যক্তির ইচ্ছা-অনিচ্ছার বর্বর দুঃশাসন চলছে-খালেদা

প্রকাশ:| রবিবার, ২০ এপ্রিল , ২০১৪ সময় ১০:৪১ অপরাহ্ণ

শাসকগোষ্ঠী স্বেচ্ছাতন্ত্রের শেষ সীমানা অতিক্রম করে অতিকায় দানব হয়ে উঠেছে উল্লেখ করে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, দেশে এখন আইনের শাসনের বদলে এক ব্যক্তির ইচ্ছা-অনিচ্ছার বর্বর দুঃশাসন চলছে।

আজ রোববার এক বিবৃতিতে খালেদা জিয়া এসব কথা বলেন। বিএনপি জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও যুগ্ম মহাসচিব আমানউল্লাহর জামিন বাতিল করে কারাগারে পাঠানোর পর ক্ষোভ ও প্রতিবাদ জানিয়ে এই বিবৃতি দেন তিনি।

খালেদা জিয়া বলেন, দেশের মানুষের জানমালের কোন নিরাপত্তা নেই। চারিদিকে গভীর হতাশা ও নৈরাজ্যে দেশ আজ গভীর ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে দেশে আইনের শাসন এতটাই ভুলুন্ঠিত হয়েছে যে, বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের অন্যায়ভাবে মিথ্যা মামলায় জড়িত করার পরও তাদের আইনী প্রতিকার পাবার অধিকারটুকুও চরমভাবে হরণ করা হচ্ছে। দেশে এখন আইনের শাসনের বদলে এক ব্যক্তির ইচ্ছা অনিচ্ছার বর্বর দু:শাসন চলছে। আর এই দু:শাসনের যাঁতাকলে পিষ্ট হচ্ছে বিরোধী দলীয় নেতা-কর্মীসহ সাধারণ মানুষ।

খালেদা জিয়া বলেন, জনগণের কাছ থেকে সম্পূর্ণভাবে বিচ্ছিন্ন হয়ে বর্তমান অবৈধ সরকার নিজেদের হীনউদ্দেশ্য চরিতার্থ করার জন্য বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোকে দমন করতে পুলিশ প্রশাসনসহ রাষ্ট্রের সকল অঙ্গকে সরকারি দলের অঙ্গ সংগঠনে পরিণত করেছে। এর ফলে বিরোধী মত, বিবেক ও চিন্তার স্বাধীনতাকে নিষ্ঠুর পীড়ণে স্তব্ধ করে দেয়া হচ্ছে। তারই অংশ হিসেবে বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও যুগ্ম মহাসচিব আমান উল্লাহ আমানের জামিন বাতিল করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। মিথ্যা, বানোয়াট ও মনগড়া মামলায় গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও আমানের জামিন বাতিল এবং কারাগারে পাঠানোর ঘটনা দুরভিসন্ধিমূলক ও সরকারের বন্য প্রতিহিংসার বহি:প্রকাশ ছাড়া অন্য কিছু নয়।

তিনি বলেন, অবৈধ সরকারের টিকে থাকার একমাত্র অবলম্বন হচ্ছে নির্যাতন, নিপীড়ণ, মামলা, হামলা, গুম, অপহরণ, গুপ্তহত্যা, হুমকি-ধামকি, কুৎসা ও নির্জলা মিথ্যাচার। তিনি অবিলম্বে গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও আমানের মুক্তি দাবি করেন। ওদিকে আলাদা বিবৃতিতে দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দলের সিনিয়র দুই নেতাকে কারাগারে পাঠানোর প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে তাদের মুক্তি দাবি করেন।