দেশের আকাশে ঈদের চাঁদ দেখা যায়নি, ঈদ বৃহস্পতিবার

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ৫ জুলাই , ২০১৬ সময় ০৭:৫৪ অপরাহ্ণ

দেশের আকাশে সোমবার ঈদের(কোথাও ১৪৩৭ হিজরি সনের শাওয়াল মাসের ) চাঁদ দেখা যায়নি। ফলে আগামী বৃহস্পতিবার ৭ জুলাইদেশে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপিত হবে।

বাংলাদেশে বৃহস্পতিবারে ঈদ । সৌদি আরবে ঈদ বুধবার, সাধারণত সৌদি আরবের একদিন পর বাংলাদেশে ঈদ হয়ে থাকে। তবে এর কিছু ব্যতিক্রমও হয়েছে। তাই বাংলাদেশে কবে ঈদ হবে তা নিশ্চিত হওয়া গেল চাঁদ দেখা না যাওয়ায়।

আগের দেয়া ঘোষণা অনুসারে আজ সন্ধ্যায় বৈঠকে বসে চাঁদ দেখা কমিটি। এ বৈঠকের বিষয়ে একটি নির্দেশ জারি করে।

এক মাসের রোজা পালনের পরে শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখার ওপর নির্ভর করে মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতরের দিন।

বাংলাদেশের আকাশে কোথাও ১৪৩৭ হিজরি সনের শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা যায়নি। এজন্য বুধবার (৬ জুলাই) ঈদুল ফিতর উদযাপিত হচ্ছে না, ঈদ হবে আগামী বৃহস্পতিবার।

এদিকে সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, কাতার, জর্ডানসহ মধ্যপ্রাচ্যে ও এশিয়ার কয়েকটি দেশে ঈদ পালিত হবে বুধবার।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি ধর্ম মন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান সাংবাদিকদের জানান, দেশের ৭টি বিভাগীয় ও ৬৪ জেলা কার্যালয় থেকে চাঁদ দেখার চেষ্টা হয়েছে। আবহাওয়া দপ্তর থেকেও পর্যবেক্ষণ চালানো হয়। কিন্তু কোথাও চাঁদ দেখার খবর পাওয়া যায়নি। তাই সারাদেশে ঈদুল ফিতর পালিত হবে বৃহস্পতিবার।

এর আগে সন্ধ্যায় ঈদের তারিখ ঠিক করতে বায়তুল মোকাররম মসজিদে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কার্যালয়ে বৈঠকে বসে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি। এতে সভাপতিত্ব করেন ধর্মমন্ত্রী।

সভায় উপস্থিত ছিলেন ধর্মসচিব মো. আব্দুল জলিল, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক সামীম মোহাম্মদ আফজাল, প্রধান তথ্য অফিসার একেএম শামীম চৌধুরী, মন্ত্রীপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. মাকছুদুর রহমান পাটওয়ারি ও বাংলাদেশ টেলিভিশন, ঢাকা জেলা প্রশাসন, আবহাওয়া অধিদপ্তর, জাতীয় মসজিদ, লালবাগ শাহী মসজিদ, চকবাজার জামে মসজিদের প্রতিনিধিরা।

এক মাস সিয়াম সাধনার পর মুসলমানদের প্রধান এ ধর্মীয় আনন্দ-উৎসবকে বরণ করে নিতে সারা দেশেই চলছে সাজ সাজ রব। ঘরে ঘরে বইছে খুশির বন্যা। পথে-ঘাটে সবখানে নেমেছে উৎসবমুখর মানুষের ঢল । প্রিয়জনদের সঙ্গে ঈদে শামিল হতে ইতোমধ্যে রাজধানী ছেড়েছেন লাখো মানুষ। নিত্যপণ্যের ঊর্ধ্বগতি, পথের নানান বিড়ম্বনা সব ছাপিয়ে দেশের সব মানুষ এখন নিজেদের সম্প্রীতি আর সৌহার্দ্যের বাঁধতে যাচ্ছে, মেতে উঠতে যাচ্ছে ঈদ আনন্দে।