‘দেশদ্রোহী’ মামলা ‘মুড়ি-মুড়কির’ মতো হয়ে গেছে

প্রকাশ:| শনিবার, ৫ মার্চ , ২০১৬ সময় ১১:৩৪ অপরাহ্ণ

‘দেশদ্রোহী’ মামলার মতো স্পর্শকাতর মামলাও বর্তমান জামানায় মুড়ি-মুড়কি’র মতো হয়ে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টির (জাগপা) সভাপতি শফিউল আলম প্রধান।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনামের বিরুদ্ধে একদিনে ২৮ মামলা ও ১১ হাজার কোটি টাকার ক্ষতিপূরণ দাবি করা হয়। অন্যদিকে, দৈনিক আমার দেশের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমান ‘তথাকথিত’ দেশদ্রোহের চরম মূল্য দিচ্ছেন।’

জাগপা সভাপতি আরো বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে একটি আগরতলা রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় ফিল্ড মার্শাল আইয়ুব খান শুধু গদিই হারান নাই, এমনকি পাকিস্তান রাষ্ট্রও টিকে নাই। শেখ হাসিনার সবই জানার কথা। সুতরাং যার খেলা সে খেলুন।’

শনিবার বিকেলে রাজধানীর আসাদ গেটের জিইউপি মিলনায়তনে যুব জাগপা ঢাকা মহানগর আয়োজিত এক প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন প্রধান। সম্প্রতি পঞ্চগড়ের দেবিগঞ্জে হিন্দুমঠের অধ্যক্ষ যজ্ঞেশ্বর হত্যার প্রতিবাদে এ সভার আয়োজন করা হয়।

আসন্ন ইউপি নির্বাচন প্রসঙ্গে শফিউল আলম প্রধান বলেন, ‘এ নির্বাচনে কারো ঘরে তালা আর কারো গলায় মালা। ২০৪১ সাল পর্যন্ত আওয়ামী ভোটে যদি আওয়ামীওলারাই নির্বাচিত হতে থাকে, তবে জনগণের ভোট হবে কবে? জোয়ার-ভাটার এই মুল্লুকে জনগণকে গোলাম বানিয়ে রাখা যায় না।’

এ প্রসঙ্গে তিনি আরো বলেন, ‘আপাতত নীরবতা প্রচণ্ড ঝড়েরই পূর্বাভাস। তাই দেশপ্রেমিক জনগণের মনে রাখা দরকার, দিল্লির সেবাদাস শাসন ও বুলেট মার্কা নির্বাচন কমিশন বহাল রেখে কোনো পরিবর্তন সম্ভব নয়।’

প্রধানমন্ত্রীকে আইয়ুব-ইয়াহিয়া, বাকশাল ও নব্বইয়ের আন্দোলন থেকে শিক্ষা নেয়ার আহ্বান জানান জাগপা সভাপতি।

অধ্যক্ষ যজ্ঞেশ্বরের হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে প্রধান বলেন, ‘দেশবাসী জানতে চায়, কাদের ইঙ্গিতে কারা দমে দমে মসজিদ-মন্দির-বৌদ্ধ বিহার ও গীর্জায় হামলা চালাচ্ছে? স্বাধীনতার পর কারা সংখ্যালঘুদের জমি ও সম্পত্তি দখল এবং লুট করেছে? হিন্দু মহাজোট পর্যন্ত আওয়াজ তুলেছে, এ জামানায় প্রতিদিনই কোনো না কোনো হিন্দুর বাড়ি-ঘর ও জমি-জমা দখল হচ্ছে। সুতরাং বুকের পাটা থাকলে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করুন।’

যুব জাগপা ঢাকা মহানগর সভাপতি খোরশেদ আলম সুমনের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম বাবলুর পরিচালনায় সমাবেশে অন্যদের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন- যুব জাগপার কেন্দ্রীয় সভাপতি ফাইজুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক শেখ ফরিদ উদ্দিন, সহ-সভাপতি মাহিদুর রহমান বাবলা, সাংগঠনিক সম্পাদক রিয়াজ রহমান, যুগ্ম সম্পাদক ইব্রাহিম জুয়েল প্রমুখ।