‘দেশকে জঙ্গিমুক্ত করতে হলে জামায়াত-শিবিরকে নিষিদ্ধ করতে হবে’

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২ আগস্ট , ২০১৬ সময় ০৮:৪৮ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম গণজাগরণ মঞ্চহত্যার হুমকি পাওয়া চট্টগ্রামের পাঁচ বিশিষ্ট নাগরিকের নিরাপত্তা দেয়ার কোন উদ্যোগ না নেয়ায় পুলিশের প্রতি ক্ষোভ জানিয়েছেন গণজাগরণ মঞ্চের সংগঠকরা।

মঙ্গলবার (০২ আগস্ট) বিকেলে নগরীর চেরাগি চত্বরে আয়োজিত সমাবেশে পুলিশের প্রতি ক্ষোভ জানানোর পাশাপাশি অবিলম্বে বিশিষ্ট নাগরিকদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছেন তারা।

গত বুধবার (২৭ জুলাই) পাঁচ বিশিষ্ট নাগরিককে হত্যার হুমকি দিয়ে একটি চিঠি নগরীর ও আর নিজাম রোডে প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যালয়ে আসে। এরা হলেন, বরেণ্য শিক্ষাবিদ ও প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড.অনুপম সেন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড.ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, গণজাগরণ মঞ্চ, চট্টগ্রামের সদস্য সচিব ডা.চন্দন দাশ এবং ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির কেন্দ্রীয় সহ সাংগঠনিক সম্পাদক শওকত বাঙালি।

হুমকির প্রতিবাদে ডাকা সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন গণজাগরণ মঞ্চ, চট্টগ্রামের সমন্বয়কারী শরীফ চৌহান। গণজাগরণ মঞ্চের সংগঠক ও প্রমা আবৃত্তি সংগঠনের সভাপতি রাশেদ হাসানের সঞ্চালনায় সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মুক্তিযোদ্ধা কাজী নূরুল আবছার, ফজল আহমেদ ও হাবিবুর রহমান ইদ্রিস, উদীচীর সহ সভাপতি অধ্যাপক বাদল বরণ বড়ুয়া, খেলাঘর চট্টগ্রাম মহানগরী কমিটির সহ সভাপতি আশীষ সেন, কবি ও সাংবাদিক কামরুল হাসান বাদল, সম্মিলিত আবৃত্তি পরিষদ, চট্টগ্রামের সাধারণ সম্পাদক ‍মাহবুবুর রহমান মাহফুজ, ছাত্র ইউনিয়নের জেলা কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি গোলাম সরওয়ার এবং মহানগর ছাত্রফ্রন্টের সাধারণ সম্পাদক রাফিউল ইসলাম।

সমাবেশে কাজী নূরুল আবছার বলেন, মৌলবাদি, জঙ্গিগোষ্ঠী জাতির মেধাবী সন্তান মুক্তমনা লেখকদের যখন একের পর এক হত্যা করতে শুরু করে তখন আমরা বারবার সরকার ও প্রশাসনকে এ ব্যাপারে সজাগ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছিলাম। কিন্তু প্রশাসন আমাদের কথায় কর্ণপাত করেনি। এর ফলে আজ দেশে জঙ্গিরা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।

‘চট্টগ্রামের সর্বজনশ্রদ্ধেয় শিক্ষাবিদ অনুপম সেন, গণজাগরণ মঞ্চের সদস্য সচিব ডা.চন্দন দাশসহ পাঁচজনকে হত্যার হুমকি দেয়ার পর বিভিন্নভাবে তাদের নিরাপত্তার দাবি জানানো হচ্ছে। কিন্তু গত এক সপ্তাহের মধ্যেও পুলিশ তাদের নিরাপত্তায় কোন ব্যবস্থা নেয়নি। এমনকি পুলিশ বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে অনুধাবন করছেনা বলে আমাদের মনে হচ্ছে।’

শরীফ চৌহান বলেন, পাঁচ বিশিষ্ট নাগরিকের জীবন আজ হুমকির মুখে। আমরা পুলিশের কাছে অবিলম্বে পাঁচ বিশিষ্ট নাগরিকের পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করার জোর দাবি জানাচ্ছি। একইসঙ্গে হুমকিদাতাদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়ার দাবি জানাচ্ছি।

তিনি বলেন, দেশজুড়ে জঙ্গিবাদি কর্মকাণ্ড, হুমকিধমকি দিয়ে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরির পেছনে আছে জামায়াত-শিবির। দেশকে জঙ্গিমুক্ত, সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসমুক্ত করতে হলে প্রথমে জামায়াত-শিবিরকে নিষিদ্ধ করতে হবে।

সমাবেশ শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

সমাবেশ ও মিছিলে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিপিবির প্রেসিডিয়ামর সদস্য মো.শাহআলম, গণতন্ত্রী পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য তাজুর মুল্লুক, সিপিবির জেলা সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য অমৃত বড়ুয়া, বাসদের জেলা সমন্বয়ক মহিম উদ্দিন, মুক্তিযোদ্ধা মুক্তিমান বড়ুয়া, তপন দস্তিদার, মাস্টার আবদুস ছালাম এবং উদীচী চট্টগ্রাম জেলা সংসদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপিকা শীলা দাশ গুপ্তা।