দেনা৬৩ লাখ টাকার ভয়ে আত্মগোপন করেছিল সাবেক ছাত্রলীগ নেতা দুর্লভ

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২৭ জুন , ২০১৭ সময় ০৫:১৪ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম মহানগরীর পতেঙ্গায় জাহিদুল ইসলাম দুর্লভ (৩৭) নামে সাবেক এক ছাত্রলীগ নেতাকে নিখোঁজের ২২ ঘন্টা পর পুলিশ আবাসিক হোটেলে আত্মগোপন থাকাবস্থায় উদ্ধার করেছে।

অথচ পরিবার থেকে দাবী করা হয়েছিল রাবিবার রাত ১২ টার দিকে দক্ষিণ পতেঙ্গার মাইজপাড়ার নিজ এলাকায় সেলুনে চুল কাটতে যাওয়ার পর কে বা কারা দুর্লভকে তুলে নিয়ে যায়। পরে অজ্ঞাত একটি নম্বর থেকে ফোন করে বিকাশে ৯০ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করে।

এনিয়ে সোমবার সকাল ১০ টায় পতেঙ্গা থানায় সাধারণ ডায়রী করা হয়। পরে পুলিশ তার সন্ধ্যানে নামে।
এএদিকে রাত পুলিশ খবর পায় যে জাহিদুল ইসলাম দুর্লভ নিজেই একটি আবাসিক হোটেলে আত্মগোপন করে আছে। এ তথ্যের ভিক্তিতে রাত পৌনে ১০টার দিকে রয়েল বীচ নামক একটি আবাসিক হোটেলে অভিযান চালিয়ে তাকে উদ্ধার করেছে।

এব্যপারে পতেঙ্গা থানার সেকেন্ড অফিসার এস আই শফিকুল ইসলাম জানায়, একটি নিঁখোজ ডায়রি দায়ের করা হলে আমরা তাৎক্ষণিক ভাবে ভিকটিমকে উদ্ধারের চেষ্টায় তার সম্পর্কে তথ্য বের চেষ্টা করি এলাকবাসীর কাছ থেকে । এলকাবাসীর তথ্য মতে জানতে পারি সে বিভিন্ন লোকজনের কাছে প্রায় ৬৩ লাখ দেনা ছিল। তাকে কেউ অপহরণ করেনি। পাওনাদারের ভয়ে রয়েল বীচ নামক একটি আবাসিক হোটেলে নিজেই আত্মগোপন করেছে। এলাকাবাসী ও থানার ওসি সহ আমরা ঐ হোটেলে অভিযান চালিয়ে রাত ৯টা ৪৫ নাগাদ তাকে থানায় নিয়ে আসি।

পরে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের অনুরোধে থানায় মুচলিকা নিয়ে ছেড়ে দিয়েছি।
দিকে এলাকার লোকজন জানিয়েছেন, ছাত্রলীগ নেতা দুর্লভ পতেঙ্গা এলাকায় নদী বাংলা নামে মাল্টি পারপাস সমিতি (এম এল এস) ব্যবসার মাধ্যমে অসংখ্য লোকজন থেকে কয়েক লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছে।

এসব নিয়ে তার সাথে পাওনা দারদের বিরোধ সৃষ্টি হয়।৬৩ লাখ টাকা দেনার কারণে সে পালিয়ে চলছি। মূলত ঈদের আগে পাওনাদারদের টাকা না দিতেই সে আত্মগোপন করে অপহরণের নাটক সাজিয়ে ছিল।

এদিকে তার নিখোঁজের খবর ফেসবুকে প্রচার করা হলে সেখানে মো. ইকবাল নামে একজন কমেন্টস করেছে দুর্লভ নদী নামে একটি এনজিওর মাধ্যমে মানুষের লাখ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছে।


আরোও সংবাদ