দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির কর্মকাণ্ডে হতাশ মন্ত্রী

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ৬ এপ্রিল , ২০১৭ সময় ১১:৫৪ অপরাহ্ণ

  1. সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের প্রধান উপস্থিত না থাকা এবং বর্ষা মৌসুম শুরু হলেও প্রস্তুতিমূলক সভা না করায় জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটি কার্যক্রম নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া।

    জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা(মাধ্যমিক), জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, এলজিইডি, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন, বিভিন্ন উপজেলার নির্বাহি কর্মকর্তারা সভায় উপস্থিত না থাকায় মন্ত্রী বলেন,‘এ ধরনের সভা আমাকে হতাশ করেছে। সংশ্লিষ্ট বিভাগের লোক না থাকলে সভা করে লাভ নেই। ঢিলে ঢালা সভার দরকার কি’।

    এসময় তিনি সভার পরিচালক দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব শাহ কামালকে বলেন, আজকের সভা এখানেই শেষ করেন। আগামীতে আবারও সভা আহ্বান করেন। সেখানে সংশ্লিষ্ট সবাইকে উপস্থিত থাকতে হবে। না থাকলে তার আসন খালি থাকবে। কোন প্রতিনিধি পাঠাতে পারবে না।

    পরে সচিব কমিটিকে কার্যকর ভূমিকা পালনের আহ্বান জানান। বিভিন্ন দফতর থেকে আসা কর্মকর্তাদের কাছে বিভিন্ন বিষয়ে জানতে চান এবং দুর্যোগ মোকাবেলায় কোন চাহিদা থাকলে তা জানানোর নির্দেশ দেন।

    বৃহস্পতিবার বিকেলে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া।

    সভার শুরুতে বিগত সভার কার্যবিবরণী পাঠ, ২০১৬-২০১৭ অর্থ বছরে ত্রাণ সামগ্রির প্রাপ্ত বরাদ্দ ও বিতরণ প্রতিবেদন, আঞ্চলিক গুদামে মজুদ ত্রাণ বিবরণ, সন্দ্বীপ চ্যানেলে নৌকা ডুবিতে মৃতদের তালিকা তুলে ধরেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক সামসুল আরেফিন।

    তিনি জানান, জেলার অনুকূলে ১৩ লাখ টাকা জিআর ক্যাশ বরাদ্দের বিপরীতে ১৩ লাখ ৫৩ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। জিআর চাল ১৬২ মেট্রিক টন বরাদ্দের বিপরীতে ৯২ দশমিক ৬৯০ মেট্রিক টন, ঢেউটিন ৮৬৩ বান্ডেলের বিপরীতে ৮৫২ টন বিতরণ করা হয়। ঢেউটিনের সঙ্গে গৃহবাবদ মঞ্জুরি ২৫ লাখ ৮৯ হাজার টাকার মধ্যে ২৫ লাখ ৫৬ হাজার টাকা এবং ৬৪ হাজার ৯৯৭ পিস কম্বলের মধ্যে ৬৩ হাজার ৩৫৪ পিস বিতরণ করা হয়েছে।

    এছাড়া দেওয়ানহাট আঞ্চলিক ত্রাণ গুদামে ২ হাজার ৬৯৬ বান্ডিল ঢেউটিন, ৪৯৬ বান্ডিল পুরাতন ঢেউটিন, ১ লাখ ৬৯ হাজার ১০ পিস কম্বল ও ৪২২টি তাবু মজুদ রয়েছে বলে জানানো হয়।

    সভায় অন্যান্যের মধ্যে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতরের মহাপরিচালক মো.ফিরোজ আহমেদ, চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার রুহুল আমীন, হাটহাজারী উপজেলা চেয়ারম্যান মাহবুবুল আলম, রাউজান উপজেলা চেয়ারম্যান এহসানুল হায়দার চৌধুরীসহ বিভিন্ন উপজেলার নির্বাহি অফিসার, সংশ্লিষ্ট দফতরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।