দুর্নীতিকে সরকার ‘জিরো টলারেন্স’ কামরুল ইসলাম

প্রকাশ:| বুধবার, ১২ ফেব্রুয়ারি , ২০১৪ সময় ১১:০২ অপরাহ্ণ

দুর্নীতিকে সরকার ‘জিরো টলারেন্স’ দেখাচ্ছে বলে জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম এমপি।

তিনি বলেন, ‘কোনো অভিযোগই ফাইলবন্দী হয়ে থাকবে না। খাদ্য মন্ত্রাণলয়ের কারো বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ থাকলে তা কঠোর হস্তে দমন করা হবে। সবাইকে সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে হবে।’

বুধবার বিকেলে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজে বিভাগীয় খাদ্য কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘কোনো অজুহাত দিয়ে গুদামে খাদ্যে অপচয়, নিম্নমানের চাল সংগ্রহ করলে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেয়া হবে। যে সমস্ত খাদ্যের গুদাম পুরনো, সেগুলো মেরামতের জন্য তালিকা তৈরি করে শিগগিরই মন্ত্রাণলয়ে পাঠানোর ব্যবস্থা করুন। এরপরও কোনো ধরনের দুর্নীতি অনিয়ম সহ্য করা হবে না।’

চারদলীয় জোট সরকারের সমালোচনা করে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, ‘তারা এ দেশকে খাদ্যে ঘাটতিরে দেশে পরিণত করেছে। তারা আমাদের পরনির্ভরশীল করে রেখেছিল। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে বাংলাদেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা লাভ করেছে। এখন বাংলাদেশকে চাল আমদানি করতে হয় না। এ সরকারের আমলে জনগণকে খাদ্য নিয়ে কোনো আন্দোলন করতে হয়নি। বাংলাদেশ সরকার ২০২১ সালের মধ্যে খাদ্যে নিরাপত্তার জন্য ৩০ লাখ মেট্টিক টন খাদ্য মজুতের পরিকল্পনা নিচ্ছে।’

বিভাগীয় খাদ্য অধিদপ্তর আয়োজিত এই মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আহমেদ হোসেন খান, খাদ্য মন্ত্রাণলয়ে যুগ্ম-সচিব আতিউর রহমান, আঞ্চলিক খাদ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তা আবদুল আজিজ মোল্লা, খাদ্যমন্ত্রীর একান্ত সচিব মো. হেলাল হোসেন এবং চট্টগ্রাম বিভাগীয় খাদ্য কর্মকর্তারা।

এসময় কর্মকর্তারা চট্টগ্রামের খাদ্য গুদামের বিভিন্ন সমস্যার কথা মন্ত্রীর সামনে তুলে ধরেন। মন্ত্রী এসব সমস্যার সমাধানের আশ্বাস দেন।